kalerkantho


রাশিয়ার সঙ্গে সামরিক চুক্তি পাকিস্তানের, চাপে ভারত

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১০ আগস্ট, ২০১৮ ২৩:০৭



রাশিয়ার সঙ্গে সামরিক চুক্তি পাকিস্তানের, চাপে ভারত

রাশিয়ার সঙ্গে সামরিক চুক্তির বিষয়ে আলোচনা নাকি ভালই এগোচ্ছে। ভারতকে চাপে ফেলে, এমনটাই বলছে পাকিস্তান। দুদিন আগেই রাশিয়ার উপ প্রতিরক্ষামন্ত্রী জেনারেল আলেক্সান্ডার ভি ফোমিন ঘুরে গিয়েছেন পাকিস্তানে। তারপরই, পাকিস্তানের তরফ থেকে এই বার্তা দেওয়া হয়েছে। নিয়মিত যোগাযোগ থাকছে বলেও উল্লেখ করছে পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়।

বৃহস্পতিবার পাকিস্তান পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মোহাম্মদ ফয়জল জানান, পাকিস্তানের সঙ্গে রাশিয়ার সামরিক সম্পর্ক অগ্রগতির পথে। তিনি বলেন, ‘রাশিয়ার সঙ্গে আমাদের সামরিক সম্পর্কে ক্রমশ তরান্বিত হচ্ছে। নিয়মিত কথাবার্তাও হচ্ছে দু দেশের। সম্প্রতি, পাকিস্তানে এসে পাকিস্তানের সেনাপ্রধান জেনারেল বাজওয়ার সঙ্গে দেখাও করেছেন রাশিয়ার মন্ত্রী।

২০১৬ ও ১৭-তে একসঙ্গে সামরিক মহড়া চালিয়েছিল রাশিয়া ও পাকিস্তান। ১৬-তে পাকিস্তানে হয়েছিল এক্সারসাইজ “DRUZBA” আর পরের বছরেই রাশিয়ার মাটিতে হয় ও একই মহড়া। এর আগে ২০১৪ ও ১৫-তে দুই দেশ অংশ নেয় এক বিশেষ নৌ মহড়ায়, যার নাম ছিল “Arabian Monsoon.”

এখানেই শেষ নয়। গত মঙ্গলবার পাকিস্তান ও রাশিয়ার মধ্যে এক বিশেষ চুক্তিও হয়েছে। এই চুক্তি অনুযায়ী, রাশিয়ার মিলিটারি ট্রেনিং ইনস্টিটিউটগুলিতে গিয়ে ট্রেনিং নিতে পারবে পাকিস্তানের সেনা সদস্যরা।

অন্যদিকে, ভারতকে অবাক করে কয়েকদিন আগেই পাকিস্তানকে সুখোই বিমান রপ্তানি করার ভাবনাচিন্তার কথা জানিয়েছে রাশিয়া। মস্কোর সঙ্গে ভারত যৌথ উদ্যোগে ফিফথ জেনারেশন এয়ারক্রাফট তৈরি করতে চায়নি বলেই নাকি ক্ষুব্ধ রাশিয়া। এমনটাই অনুমান করছেন কূটনীতিবিদরা। রাশিয়ার এক সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবরে দাবি, ভারতের বিষয়ে বেশি উৎসাহী হতে নিষেধ করছে রাশিয়ান থিংক ট্যাংক। যদিও আজও ভারত অস্ত্রভাণ্ডারের বেশির ভাগ জিনিসই রাশিয়া থেকে কিনে থাকে।

রাশিয়ার Center for Analysis of Strategies and Technologies-এর কর্ণধার বলেছেন, ‘ভারতকে অবজ্ঞা করা হচ্ছে না, তবে এই মুহূর্তে পাকিস্তানকে সুখোই বিমান না দেওয়া হলে আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে বাজার ধরে ফেলবে চীন, দক্ষিণ কোরিয়া, এমনকি তুরস্কের মত দেশ।’

২০০৭-এ ভারত ও রাশিয়ার মধ্যে যৌথভাবে এয়ারক্রাফট তৈরি করার চুক্তি হয়। কিন্তু এবছর জুলাইতে প্রতিরক্ষামন্ত্রী জানান, রাশিয়া একাই ওই প্রজেক্ট চালাক। প্রয়োজনে শেষের দিকে ভারত যোগ দেবে। ভারত এইভাবে মুখ ঘুরিয়ে নেওয়ায় অসন্তুষ্ট রাশিয়া।

ওই বিশেষজ্ঞ আরও জানান, ‘এর আগে ভারতের স্বার্থে পাকিস্তানের সঙ্গে অনেক লোভনীয় চুক্তি বাতিল করেছে রাশিয়া। কিন্তু এবার নিজেদের আর্থিক উন্নতির দিকে নজর দেওয়া উচিৎ। রাশিয়ার এক অন্যতম তুখোড় যুদ্ধবিমান এই Su-35.

পাকিস্তানের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের ঘনিষ্ঠ সামরিক সম্পর্ক রয়েছে। তবে সাম্প্রতিককালে পাকিস্তানকে রাশিয়ার কাছাকাছি আসতে দেখা গিয়েছে। কারণ ৯/১১-র পর থেকে পাকিস্তানের সঙ্গে সম্পর্কে কিছুটা ছেদ পড়ে আমেরিকার।



মন্তব্য