kalerkantho


কিউবার সংবিধান থেকে ‘সাম্যবাদী সমাজ নির্মাণ’ এর লক্ষ্য বাদ!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২২ জুলাই, ২০১৮ ২২:০১



কিউবার সংবিধান থেকে ‘সাম্যবাদী সমাজ নির্মাণ’ এর লক্ষ্য বাদ!

মিগেল দিয়াজ-কানেল গত এপ্রিলে রাউল কাস্ত্রোর কাছ থেকে প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব গ্রহণ করছেন

কিউবার নতুন সংবিধানের খসড়ায় ‘সাম্যবাদী সমাজ নির্মাণ’ এর লক্ষ্য বাদ দিয়ে ব্যক্তিগত সম্পত্তির স্বীকৃতি ও সমকামী বিবাহের দ্বার উন্মোচনের প্রস্তাব করা হয়েছে।

বদলে যাওয়া সময়ের কথা বিবেচনায় নিয়ে সমাজতান্ত্রিক শাসনব্যবস্থায় পরিচালিত দেশটির সংবিধানে এ পরিবর্তনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

চূড়ান্ত লক্ষ্য ও শাসনতান্ত্রিক কাঠামোর সামান্য পরিবর্তনের প্রস্তাব করা হলেও খসড়ায় কমিউনিস্ট পার্টির নেতৃত্বাধীনে একদলীয় ব্যবস্থা বজায় রাখার কথাই বলা হয়েছে।

সোভিয়েত আমলের সংবিধানের পরিবর্তন করে বর্তমান রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক পরিবর্তনের সঙ্গে মানানসই সমাজতন্ত্র এবং নতুন ধ্যানধারণার সন্নিবেশ ঘটাতে চলতি সপ্তাহে কিউবার জাতীয় পরিষদে খসড়া এ প্রস্তাবনা নিয়ে আলোচনা ও বিতর্ক চলবে।

পরিষদ অনুমোদন করার পর খসড়াটির বিষয়ে জনগণের মতামত চাওয়া হবে। কোনো সংযোজন বা বিয়োজন প্রয়োজন হলে সেগুলো সম্পন্ন করার পর চূড়ান্ত প্রস্তাবনাটি গণভোটে যাবে।

কিউবার ১৯৭৬ সালের সংবিধানে চূড়ান্ত লক্ষ হিসেবে ‘সাম্যবাদী সমাজ নির্মাণে’র যে ধারাটি রাখা হয়েছিল প্রস্তাবিত খসড়ায় সেটি বাদ দিয়ে কেবল সমাজতন্ত্রের ওপর মনোযোগ নিবদ্ধ রাখার প্রস্তাব করা হয়েছে।

কিউবার জাতীয় পরিষদের প্রেসিডেন্ট এস্তেবান লাজো নতুন সংবিধানের খসড়া নিয়ে বলেছেন, ‘এর অর্থ এই নয় যে আমরা আমাদের আদর্শ পরিত্যাগ করছি। আমরা একটি সমাজতান্ত্রিক, সার্বভৌম, স্বাধীন, সমৃদ্ধ ও টেকসই দেশে বিশ্বাস করি।’

সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনের পর থেকে কিউবায় খানিকটা ভিন্ন যুগ চলছে বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি।

খসড়ায় ব্যক্তিগত সম্পত্তিকে স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে বলে নতুন সংবিধান প্রণয়নের লক্ষে জড়ো হওয়া সাংসদদের উদ্দেশ্যে শনিবার বলেছেন দেশটির কাউন্সিল অব স্টেটের সেক্রেটারি হোমেরা অ্যাকোস্তা।

পুঁজিবাদের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ নিদর্শন ব্যক্তিগত সম্পত্তির স্বীকৃতি দিতে দীর্ঘদিন ধরে আপত্তি জানিয়ে আসছে বিভিন্ন দেশের কমিউনিস্ট পার্টিগুলো।

এ পরিবর্তনের ফলে দেশটিতে বেসরকারি পর্যায়ে ক্ষুদ্র ব্যবসা ও বিদেশি বিনিয়োগ বিকশিত হবে বলে ধারণা পর্যবেক্ষকদের।

কিউবার এখনকার সংবিধানে কেবল রাষ্ট্রীয়, সমবায়, কৃষি, ব্যক্তিগত ও যৌথ উদ্যোগের সম্পত্তির স্বীকৃতি আছে।

ছয় দশক ধরে কাস্ত্রো ভ্রাতৃদ্বয়ের পরিচালনায় চলা কিউবার রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠানগুলো ও যৌথ নেতৃত্বের কাঠামোকে আরও শক্তিশালী করার ওপরও খসড়ায় জোর দেওয়া হয়েছে।

৮৬ বছর বয়সী রাউল কাস্ত্রো চলতি বছরের এপ্রিলে ভাবশিষ্য ৫৮ বছর বয়সী মিগেল দিয়াজ-কানেলের ওপর প্রেসিডেন্টের দায়িত্বভার হস্তান্তর করেছিলেন।

প্রেসিডেন্টের পদ ছেড়ে দিলেও সংবিধান সংস্কার কমিশনের প্রধান রাউল ২০২১ সাল পর্যন্ত কমিউনিস্ট পার্টির প্রধান পদেই থাকছেন বলেও দলের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

নতুন সংবিধানের খসড়ায় কাউন্সিল অব স্টেট এবং কাউন্সিল অব মিনিস্টারের প্রধানের পদ থেকে প্রেসিডেন্টকে সরিয়ে দিয়ে প্রধানমন্ত্রীর পদ সৃষ্টির প্রস্তাবও দেওয়া হয়েছে। এতে জাতীয় পরিষদের প্রেসিডেন্টকেই কিউবার সর্বোচ্চ নির্বাহী পরিষদ কাউন্সিল অব স্টেটের প্রধান বানাতে বলা হয়েছে।

শনিবারের জাতীয় পরিষদের আলোচনায় খসড়া সংবিধানে বিবাহের ক্ষেত্রে স্বামী ও স্ত্রীর সংজ্ঞায়নের বদলে দুই স্বতন্ত্র ব্যক্তির মধ্যে গাঁটছড়া বাধার স্বীকৃতি নিয়েও আলোচনার কথা রয়েছে।

এতে প্রেসিডেন্টের বয়স ও মেয়াদের পরিমাণ নিয়েও নতুন প্রস্তাব আনা হয়েছে। বলা হয়েছে- প্রথমবার দায়িত্ব নেওয়ার সময় প্রেসিডেন্টের বয়স অবশ্যই ৬০- এর নিচে থাকতে হবে; টানা দুই মেয়াদে দশ বছরের বেশি দায়িত্ব পালনেরও সুযোগ মিলবে না।

শনিবার নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট দিয়াজ-কানেল তার নতুন মন্ত্রিসভার সদস্যদের নামও ঘোষণা করেছেন। তবে এপ্রিলে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার পর কানেল বিপ্লবী প্রজন্মের ধারাবাহিকতা রক্ষার যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন সে অনুযায়ীই প্রতিরক্ষা, স্বরাষ্ট্র, বাণিজ্য ও পররাষ্ট্রসহ গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়গুলোর দায়িত্বে কাস্ত্রোর সময়ের অধিকাংশ মন্ত্রীকেই বহাল রাখা হয়েছে।



মন্তব্য