kalerkantho


যুক্তরাষ্ট্রে হাতকড়া পরেই খেতে হচ্ছে ভারতীয় বন্দিদের

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৭ জুলাই, ২০১৮ ১৮:৪০



যুক্তরাষ্ট্রে হাতকড়া পরেই খেতে হচ্ছে ভারতীয় বন্দিদের

যুক্তরাষ্ট্রের ওরেগনের কারাগারে রাখা ভারতীয় বন্দিদের যেভাবে রাখা হয়েছে, দোষী সাব্যস্ত হওয়াার পরও সেভাবে কাউকে রাখা হয় না। কারাগার ঘুরে এ ধরনের অভিযোগ করেছে স্বেচ্ছাসেবী একটি সংস্থা।

ওই কারাগারে বন্দি রয়েছেন ৫০ জনেরও বেশি ভারতীয় অনুপ্রবেশকারী। কখনো হাতকড়া, কখনো শিকল, অপরাধীদের মতো তাদের পরানো হচ্ছে সবই।

গত কয়েক সপ্তাহ ধরে সেখানে আটকে রাখা হয়েছে তাদের। স্থানীয় এক স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার হয়ে ওরেগনের শেরিডান কারাগারে পাঞ্জাবি অনুবাদকের কাজ করতে গিয়েছিলেন অধ্যাপক নবনীত কৌর।

তিনি জানান, যেভাবে ভারতীয় বন্দিদের রাখা হয়েছে, তা অকল্পনীয়। কোনো অপরাধীর সঙ্গেও এ ধরনের আচরণ করা হয় না। মন খারাপ হয়ে যায় তাদের কষ্ট দেখলে। ১৮ থেকে ২৪ বছরের ছেলেমেয়েরা কয়েদির পোশাক পরে ঘুরছে। ওরা তো কোনো অপরাধ করেনি। সীমান্ত পেরিয়ে আশ্রয় চেয়েছে শুধু। ভয়ঙ্কর অবস্থা চলছে।

৫২ জন বন্দি ভারতীয়র মধ্যে বেশির ভাগই পাঞ্জাবি। কয়েকজন শিখও রয়েছেন। তাদের সঙ্গে কথা বলে নবনীত জানতে পেরেছেন, আটকের সময় শিকল পরানো হয়েছিল সবাইকে।

তিনি আরো বলেন, ২৪ ঘণ্টা ওই শিকল আর হাতকড়া। খাওয়ার সময়ও খোলা হয়নি। অপরাধীদের সঙ্গেও সব সময় এমনটা করা হয় না। টানা ২২ ঘণ্টা এমন কিছু লোকের সঙ্গে একটা কুঠুরিতে রাখা হয়েছে, যাদের ভাষাই তারা কেউ বোঝে না। একেবারে অমানবিক।

শিখ বন্দিদের জন্য পরিস্থিতি আরো ভয়াবহ বলে জানিয়েছেন নবনীত। তাদের পাগড়ি খুলে দেওয়া হয়েছে। নবনীত বলেন, এই দেশে প্রত্যেকের নিজস্ব ধর্মাচরণের অধিকার আছে। অথচ শিখ বন্দিদের পাগড়ি তো দূরে থাক, এক টুকরো কাপড়ও দেওয়া হচ্ছে না মাথা ঢাকার জন্য।

সান ফ্রান্সিসকোতে ভারতীয় দূতাবাস সম্প্রতি কর্মীদের পাঠিয়েছিল বন্দিদের সঙ্গে দেখা করতে। কিন্তু ভারত সরকার তাদের ফিরিয়ে আনার প্রস্তাব দিলেও তারা রাজি হয়েছেন কি না স্পষ্ট নয়।



মন্তব্য