kalerkantho


অবশেষে ট্রাম্প–পুতিন বৈঠক শুরু

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৬ জুলাই, ২০১৮ ১৮:০১



অবশেষে ট্রাম্প–পুতিন বৈঠক শুরু

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের মধ্যে বৈঠক শুরু হয়েছে। ফিনল্যান্ডের রাজধানী হেলসিংকিতে বৈঠকটি একটু বিলম্বে অনুষ্ঠিত হচ্ছে। ট্রাম্প হেলসিংকিতে পৌঁছে গেলেও পুতিনের পৌঁছাতে বিলম্ব হয়। স্থানীয় সময় দুপুর ১টায় বৈঠকটি শুরু হওয়ার কথা ছিল। 

ওয়াশিংটন পোস্টের প্রতিবেদক ফিলিপ রাকার টুইটারে মন্তব্য করেছেন, মানুষকে অপেক্ষায় রাখাটা পুতিনের প্রভাব প্রদর্শনের স্টাইল। হেলসিংকিতে পুতিন দেরিতে অবতরণ করলেও পরবর্তীতে দেখা গেছে, সভাস্থলে তিনি ট্রাম্পের আগে পৌঁছেছেন।

গার্ডিয়ান লিখেছে, পুতিনকেও পাল্টা অপেক্ষায় রেখেছেন ট্রাম্প। নির্ধারিত সময়ের এক ঘণ্টা পর অবশেষে তাদের বৈঠক শুরু হয়েছে ফিনল্যান্ডের রাজধানী হেলসিংকির প্রেসিডেনশিয়াল প্যালেসে।

পুতিনের সঙ্গে বৈঠকে যোগ দেওয়ার বিষয়ে ঘরে-বাইরে দুই দিক থেকেই চাপের মুখে ছিলেন ট্রাম্প। যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনে রাশিয়ার হস্তক্ষেপের বিষয়ে তদন্ত চালাচ্ছেন বিশেষ তদন্ত কর্মকর্তা রবার্ট মুলার।

অন্যদিকে গত শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের আইন প্রতিমন্ত্রী রড রোজেন্সটেইন জানিয়েছেন, যুক্তরাষ্ট্রে ২০১৬ সালের নির্বাচনে ডেমোক্র্যাট প্রার্থী হিলারি ক্লিনটনের ইমেইল অ্যাকাউন্ট হ্যাক করার ঘটনায় ১২ রুশ নাগরিককে চিহ্নিত করা হয়েছে। পুতিনের সঙ্গে অনুষ্ঠিতব্য ওই বৈঠকে যোগ না দিতে ট্রাম্পকে আহ্বান জানিয়েছিলেন ডেমোক্র্যাটরা।

ডেমোক্র্যাটদের চেয়ারম্যান টম পেরেজের ভাষ্য, ‘পুতিন যুক্তরাষ্ট্রের বন্ধু নয়।’ ডেমোক্র্যাটদের পাশাপাশি রিপাবলিকানরাও ট্রাম্পকে ওই বৈঠকে যোগ না দেওয়ার পরামর্শ দিয়েছিলেন। সিনেটর ম্যাককেইন মন্তব্য লড়েছিলেন, ট্রাম্প যদি পুতিনকে দায়ী করার বিষয়ে প্রস্তুতি নিয়ে না থাকেন, তাহলে তার উচিত হবে না ওই বৈঠকে যোগ দেওয়া।

কিন্তু ট্রাম্প পুতিনের সঙ্গে বৈঠকে অংশগ্রহণের বিষয়ে তার সিদ্ধান্তে অটল। মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিবিএসকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ট্রাম্প বলেছিলেন, ‘আমি মনে করি বৈঠকে বসাটা ভালো। আমি আলোচনায় বিশ্বাস করি। আমি মনে করি, চেয়ারম্যান কিম জং উনের সঙ্গে বৈঠকে বসাটা ভালো হয়েছে। আমি মনে করি, চীনের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে বৈঠকে যোগ দেওয়াটাও ভালো ঘটনা ছিল। আমি বিশ্বাস করি, এটা সত্যি একটা ভালো বিষয়। (রাশিয়ার সঙ্গে বৈঠকে) খারাপ কিছু হবে না। হয়তো সামান্য ভালো কিছু বেরিয়ে আসবে।

তিনি আরও জানিয়েছেন, অভিযুক্ত রুশ হ্যাকারদের বিষয়ে তিনি পুতিনের কাছে জানতে চাইবেন। তবে যুক্তরাষ্ট্রের হাতে তাদের তুলে দেওয়ার দাবি করবেন কি না সে বিষয়ে মনস্থির করেননি।

বৈঠক শুরুর কয়েক ঘণ্টা আগে তিনি বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের বোকামি ও নির্বুদ্ধিতার কারণে বর্তমানে রুশ মার্কিন সম্পর্ক সবচেয়ে খারাপ অবস্থায় রয়েছে। ট্রাম্পের ওই মন্তব্যের পর ক্রেমলিনের পক্ষ থেকে প্রকাশিত এক টুইটারবার্তায় ট্রাম্পের বক্তব্যকে সমর্থন করে লেখা হয়েছে, ‘আমরা একমত।’

ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ জানিয়েছেন, ট্রাম্প পুতিন সম্মেলনে নির্ধারিত কোনও বিশেষ ইস্যু নেই। মূলত দুই দেশের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক উন্নয়নের জন্যই চেষ্টা করবেন দুই দেশের দুই নেতা।



মন্তব্য