kalerkantho


পান করছি কোয়ালিশন সরকারের বিষ: কর্নাটক মুখ্যমন্ত্রীর বাষ্পরুদ্ধ বয়ান

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৫ জুলাই, ২০১৮ ১৪:২২



পান করছি কোয়ালিশন সরকারের বিষ: কর্নাটক মুখ্যমন্ত্রীর বাষ্পরুদ্ধ বয়ান

মুখ্যমন্ত্রী কুমারস্বামী ছবি: জনসত্তা.কম

নির্বাচনী প্রচারে যত জায়গায় গেছি সবখানে তার কথা শুনতে মানুষজন উপচে পড়েছিল। কিন্তু ভোটের দিন তারা তাকে ভুলে যায়। নিজ রাজ্যের জনতার উদ্দেশ্যে কষ্টভরা এসব কথা বলেন ভারতের কর্নাটক রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী এইচডি কুমারস্বামী।

হিন্দি সংবাদ মাধ্যম জনসত্তা.কম রবিবার জানায়, এসব বলতে গিয়ে একপর্যায়ে তার দুচোখ বেয়ে লোনাজল গড়িয়ে পড়ে। 

কুমারস্বামীর কথায় আবারো প্রকাশ পেল কোয়ালিশন সরকারের শরীক হওয়ার যন্ত্রণা। এই যন্ত্রণাটা আবার প্রধান শরীকের- বেশিরভাগ সময়েই বেশি-ই ভোগ করতে হয়। 

কোনো নির্বাচনে যখন কোনো দল এককভাবে সরকারগঠনের মতো সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পায় তখন কয়েকটি দল মিলে কোয়ালিশন সরকার করে। সেই সরকার হয় দুর্বল প্রকৃতির সরকার। অনেকটা সুকুমার রায়ের সেই বিদ্রুপাত্মক ছড়ার মতো- হাতিমির দশা দেখ/ তিমি বলে জলে যাই/ হাতি বলে এই বেলা/ জঙ্গলে চল ভাই। অর্থাৎ, হাতি আর তিমির সংমিশ্রণে তৈরি কাল্পনিক প্রাণি হাতিমি; এর তিমি অংশ চায় পানিতে নামতে কিন্তু হাতি অংশটি চায় বনে যেতে। 

যাহোক, কুমরাস্বামীও এই ‘হাতিমি সংকটে’ জেরবার অবস্থায় আছেন বলা যায়। রাজ্যের রাজধানী বেঙ্গালুরুতে আয়োজিত এক সভায় সংক্ষুব্ধ কণ্ঠে তিনি বলেন, ভগবান আমাকে সিএম হওয়ার শক্তি দিয়েছেন, এখন তিনিই ঠিক করবেন আমি কতদিন পর্যন্ত মুখ্যমন্ত্রী থাকবো!

সম্প্রতি কৃষকদের ঋণ মওকুফ করায় তাকে কৃতজ্ঞতা জানাতে ওই সভার আয়োজন করে জনতা দল সেক্যুলার। 

সভায় কোয়ালিশন সরকারের অসহায়ত্বের বয়ান দিতে দিতে তার চোখ অশ্রসিক্ত হয়ে পড়ে। একপর্যায়ে সবার সামনেই টপ টপ করে গড়িয়ে পড়তে থাক নোনা পানি। তিনি রুমাল দিয়ে বারবার চোখ চোছেন। এসময় তিনি বাষ্পরুদ্ধ কণ্ঠে বলেন, পান করছি কোয়ালিশন সরকারের বিষ। 

সভার শুরুতে আয়োজকরা মুখ্যমন্ত্রী কুমারস্বামীকে ফুলের মালা দিয়ে বরণ করতে গেলে তিনি তা গ্রহণ করেননি। এমনকি ফুলের তোড়া দিয়ে তাকে স্বাগত জানাতে এলে তাও প্রত্যাখ্যান করেন। 

এসময় শোকাতুর কণ্ঠে তিনি বলেন, আপনারা মনে করছেন যে আপনাদের আন্না (ভাই) মুখ্যমন্ত্রী বনে গেছে! কিন্তু আমি আপনাদের বলছি- আমি হইনি... আমি নিজের কষ্ট কাউকে ভাগ না দিয়ে ভোগ করছি যা কি না বিষের চেয়ে ভাল কিছু না...এমন অবস্থায় আমি আসলে সুখে নেই। 

দলের নেতাকর্মীদের কুমারস্বামী বলেন, যে সরকারের পূর্ণ জনসমর্থন নেই তেমন সরকারের প্রধান হয়ে তিনি খুশি নন।      

এমনভাবে সাধারণত রাজনৈতিক নেতারা বিশেষ করে রাজ্য বা রাষ্ট্র প্রধানরা দুঃখের কথা বলেন না জনতার কাছে। 

এসময়ে তিনি প্রকারান্তরে জানান, জনগণ যদি তার দলকে ঠিকঠাক মতো ভোট দিত তাহলে তাকে আর কোয়ালিশনের দিকে ঝুঁকতে হতো না। কিন্তু জনতা তার নির্বাচনী সভাগুলোতে ভীড় করলেও ভোটের দিন তার ও তার দলের কথা স্মরণে রাখেনি বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেন তিনি। সূত্র: জনসত্তা.কম   



মন্তব্য