kalerkantho


দখলকৃত গোলান মালভূমিতে ইসরায়েলের সার্বভৌমত্বের স্বীকৃতি দেবে যুক্তরাষ্ট্র

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৫ মে, ২০১৮ ১০:১৭



দখলকৃত গোলান মালভূমিতে ইসরায়েলের সার্বভৌমত্বের স্বীকৃতি দেবে যুক্তরাষ্ট্র

ছবি অনলাইন

১৯৬৭ সালের যুদ্ধে সিরিয়ার গোলান মালভূমি দখল করে নেয় ইসরায়েল। এরপর শান্তিচুক্তির আওতায় ওই ভূখণ্ড কাগজে-কলমে ফেরত দেওয়া হলেও সেখানে এখনো ইসরায়েলের অবস্থান রয়েছে। আর এবার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সেই ভূমিকে ইসরায়েলের ‘নিজস্ব ভূমি’ বলেই স্বীকৃতি দিচ্ছে বলে জানিয়েছে ইসরায়েল।

ইসরায়েলের গোয়েন্দাবিষয়ক মন্ত্রী ইসরায়েল কাত্জ গত বুধবার রয়টার্সকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে জানান, গোলান মালভূমিতে নিজেদের সার্বভৌমত্ব নিশ্চিত করতে তাঁরা যুক্তরাষ্ট্রের স্বীকৃতি আদায়ের তৎপরতা চালাচ্ছেন। ১৯৬৭ সালে আরবদের সঙ্গে যুদ্ধে সিরিয়ার গোলান হাইটস দখল করে নেয় ইসরায়েল। সিরিয়ার সঙ্গে শান্তিচুক্তির আওতায় পরে ওই ভূখণ্ড কাগজে-কলমে ফেরত দেওয়া হলেও সেখানে এখনো ইসরায়েলের অবস্থান রয়েছে। সে অবস্থান পাকাপোক্ত করার জন্য ইসরায়েলের তৎপরতার কথা জানান কাত্জ। এর আগে গত ডিসেম্বরে ফিলিস্তিনিদের অধিকার আর আন্তর্জাতিক অঙ্গনের সব অনুরোধ-আহ্বান উপেক্ষা করে জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দেয় যুক্তরাষ্ট্র।

তৎপরতা শুধু গোলান মালভূমি ইস্যুতে সীমাবদ্ধ নয়। গতকাল ইসরায়েলের প্রতিরক্ষামন্ত্রী আভিদগর লিবারম্যান জানান, ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীরে ২০১৮ সালের মধ্যে আড়াই হাজার নতুন ইহুদি বসতি স্থাপন প্রকল্প আগামী সপ্তাহেই সংশ্লিষ্ট পরিকল্পনা কমিটির কাছ থেকে অনুমোদন করিয়ে নেওয়া হবে। আরো এক হাজার ৪০০ বসতি স্থাপন প্রকল্প আগেভাগে অনুমোদন করিয়ে নেওয়ার কথাও ভাবছেন তিনি।

এদিকে জাতিসংঘের বাণিজ্যোন্নয়ন বিষয়ক সংস্থা ইউএনসিটিএডি, শিল্পোন্নয়নবিষয়ক সংস্থা ইউনিডো এবং রাসায়নিক অস্ত্র নিষিদ্ধকরণ সংস্থা ওপিসিডাব্লিউয়ের অর্থায়নে কাটছাঁট করার কথা ভাবছে যুক্তরাষ্ট্র। এ তিন সংস্থার অপরাধ, তাদের সঙ্গে যোগ দিয়েছে ফিলিস্তিন।



মন্তব্য