kalerkantho


একসময় সেখানে ইয়াকুনতে নামেও ভাষা ছিল

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ২২:৩২



একসময় সেখানে ইয়াকুনতে নামেও ভাষা ছিল

ছাগল আর ভেড়া নিয়ে মাঠে মাঠে ঘুরেই দিন পার হয় ৭৮ বছর বয়সী রশিদ এনজাপার। কেনিয়ার রাজধানী নাইরোবি থেকে অাড়াইশ কিলোমিটার দূরে দোলদোল নামক এলাকায় স্ত্রী, সন্তান আর নাতিনাতনিদের নিয়ে বসবাস তার।

বংশের সাত পুরুষের নাম বলতে পারেন তিনি। ইয়াকু উপজাতির এই বৃদ্ধ কথা বলেন তার মাতৃভাষা ইয়াকুনতে। তার মতো আর মাত্র সাতজন এ ভাষায় কথা বলেন। সবার বয়সই বর্তমানে ৭০ বছরের বেশি। সে কারণে ভাষাটি বিলুপ্ত হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা করছেন রশিদ।

রশিদ জানান, বংশের ছোট ছেলেদের ইয়াকুনতে ভাষা শেখানোর চেষ্টা করা হয়। তবে বড়ো হয়ে তারা আর সে ভাষায় কথা বলছে না। ফলে হারিয়ে যাচ্ছে ইয়াকুনতে ভাষা।

প্রায় একশ বছর আগে ইথিওপিয়া থেকে চলে আসেন রশিদের মতো উপজাতিরা। কেনিয়ায় এসে তারা বসতি স্থাপন করেন। কেনিয়ায় এসে কেনাবেচার জন্য মাসাই নামক ভাষা আয়ত্ত করে ইয়াকু উপজাতির লোকেরা।

ওই সময় দোলদোল গ্রামে ২০ জন ইয়াকু বসতি স্থাপন করে। বর্তমানে ইয়াকু উপজাতির লোক সংখ্যা ৪০ হাজারের বেশি হলেও মাত্র সাতজন ছাড়া সবাই কথা বলেন মাসাই ভাষায়।

সে কারণে আক্ষেপ করে রশিদ বলেন, একসময় সবাই বলবে সেখানে ইয়াকুনতে নামেও একটা ভাষা ছিল।

সূত্র : আলজাজিরা



মন্তব্য