kalerkantho


বিবিসি বাংলার প্রতিবেদন

ভারতীয় অংশের রাস্তার গাছ টিকে আছে আদালতের স্থগিতাদেশে

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৭ জানুয়ারি, ২০১৮ ০৯:১৫



ভারতীয় অংশের রাস্তার গাছ টিকে আছে আদালতের স্থগিতাদেশে

দমদম বিমানবন্দরের পরে বারাসাত শহর ছাড়িয়ে কিছুটা এগোলেই যশোর রোডের ওপরে ছাতার মতো বিছিয়ে থাকে কয়েক হাজার প্রাচীনগাছের পাতা - ডালপালা। এই রাস্তা তৈরী হওয়ার পর থেকে একসময়ে গোটা রাস্তাতেই গাছের ছায়া থাকত.. কিন্তু নগরায়নের জন্য আগেই কেটে ফেলা হয়েছে অনেক গাছ। বাংলাদেশের দিকে যশোর রোডে বহু প্রাচীন গাছ কেটে ফেলে যখন রাস্তা চওড়া করার পরিকল্পনা হচ্ছে আর তা নিয়ে বিরোধীতা করছেন পরিবেশবিদরা, তার বেশ কিছুদিন আগে পশ্চিমবঙ্গের দিকেও ওই রাস্তায় শতাব্দী প্রাচীন গাছগুলি কেটে ফেলে রাস্তা চওড়া করার পরিকল্পনা নিয়েছিল সেখানকার সরকার। কিন্তু পরিবেশবাদী এবং স্থানীয় মানুষের বিরোধীতায় বিষয়টি এখন আদালতে পৌঁছিয়েছে। গাছ কাটার ওপরে জারি হয়েছে স্থগিতাদেশ। তবুও পেট্রাপোল স্থল বন্দর অবধি রয়েছে চার হাজার ৩৬টি গাছ, সেগুলিকে মহীরূহ বলাটাই শ্রেয়।


আরো পড়ুন: সবজি চাষে স্বনির্ভর


আবার যশোর রোড চওড়া করার দাবীও অনেকদিনের - যাতে বারাসাত থেকে বনগাঁ পর্যন্ত গাড়ির যাতায়াত আর পেট্রাপোল সীমান্ত দিয়ে আন্তর্জাতিক বাণিজ্য সহজতর হয়ে ওঠে। গাছগুলিকে না কেটেই রাস্তা যশোর রোড চওড়া করা যেতে পারে বলে মত পরিবেশবিদ ও স্থানীয় মানুষের। তারা এই কয়েক হাজার গাছকে ঐতিহ্যশালী তকমা দেওয়ারও দাবী জানিয়েছেন। সেই জন্যই পশ্চিমবঙ্গ সরকার পরিকল্পনা করেছিল গাছগুলি কেটে ফেলে চওড়া হবে রাস্তা। কিন্তু বনগাঁর বাসিন্দা অজয় মজুমদারের মতো কিছু মানুষ বিরোধীতা শুরু করেন। মামলাও দায়ের হয়।

ভারতের আইন অনুযায়ী কোনও উন্নয়নমূলক প্রকল্পের জন্য গাছ যদি একান্ত কাটতেই হয়, তাহলে প্রতিটি গাছের বিকল্প পাঁচটি করে গাছ লাগাতে হবে। অজয় মজুমদার এবং কয়েকটি সংগঠনের করা মামলার ভিত্তিতে হাইকোর্ট খতিয়ে দেখতে বলে, যে গাছ কাটা হলে আইন অনুযায়ী প্রতিটি গাছের জন্য পাঁচটি করে গাছ লাগানোর জায়গা আছে কী না। তবে মামলাকারী সংগঠনগুলির অন্যতম, এ পি ডি আরের নেতা মানস দাসের কথায়, সেই বৃক্ষরোপনের সেই বিকল্প জায়গা দেখাতে পারে নি সরকার।


আরো পড়ুন: বাগাতিপাড়ায় রেল লাইনের পাশ থেকে অজ্ঞাত যুবকের লাশ উদ্ধার


পরিবেশবিদ সুভাষ দত্ত-ও মনে করেন যশোর রোড শুধু একটা রাস্তা নয় - এর সঙ্গে জড়িয়ে আছে ইতিহাস আর ঐতিহ্য। আগে যখন আমরা পেট্রাপোল সীমান্ত অবধি যেতাম, গোটা রাস্তার ওপরে তাঁবুর মতো হয়ে থাকত গাছগুলো। আসলে গাছের তো ভোটাধিকার নেই, তাই ওগুলো কেটে ফেলার সিদ্ধান্ত নেওয়াটা খুব সহজ। কিন্তু কোনও রাজনৈতিক দলই চায় না যে ভোট দেয় যারা - সেই জবরদখলকারীদের সরিয়ে ভোটব্যাঙ্কের ক্ষতি করতে। অথচ রাস্তা চওড়া করার জন্য বিকল্প ব্যবস্থা করাই যেত। যশোর রোড তো নিছক কোনও রাস্তা নয় - এর পেছনে রয়েছে ইতিহাস, ঐতিহ্য। সেটা রক্ষা করতে পারলে পৃথিবীর কাছে একটা উদাহরণ হয়ে উঠত, বলছিলেন সুভাষ দত্ত।

 



মন্তব্য