kalerkantho


যুক্তরাষ্ট্রকে অন্ধভাবে বিশ্বাস করা ঠিক নয়, এবার আবেগ পাকিস্তানের!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৪ জানুয়ারি, ২০১৮ ১৭:৪৪



যুক্তরাষ্ট্রকে অন্ধভাবে বিশ্বাস করা ঠিক নয়, এবার আবেগ পাকিস্তানের!

শীতে কাঁপছে দুই দেশ। তার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে কূটনৈতিক উত্তাপ। সন্ত্রাসবাদ দমন ইস্যুতে এবার আরও চড়া সুর পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর। তাঁর তীর আমেরিকার প্রেসিডেন্ট। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ওপর ক্ষোভ উগরে দিলেন পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী খাজা আসিফ। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের ‘মিথ্যা ও প্রতারণা’-র অভিযোগের বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি ট্যুইট করেন। সেখানে তিনি ট্রাম্পের উক্তির বিরোধিতা করেন।

আসিফ জানান, ট্রাম্প জিজ্ঞাসা করেছিলেন পাকিস্তান কী করেছে? পাকিস্তানের মাটি ব্যবহার করে আফগানিস্তানে ৫৭ হাজার ৮০০ বার হামলা চালিয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। পাকিস্তানের বহু নাগরিক ও জওয়ান সেই হামলার শিকার হয়েছেন।

‘পাকিস্তানি সেনা অযাচিত যুদ্ধ করেছে। অশেষ ত্যাগ স্বীকার করেছে। ইতিহাস আমাদের শিখিয়েছে অন্ধভাবে আমেরিকাকে বিশ্বাস করা উচিত নয়। আমরা দুঃখিত যে ওরা খুশি নয়। কিন্তু আমরা আমাদের সম্মান নিয়ে আর আপস করব না।’ বলেছেন আসিফ।

পাকিস্তানের প্রাক্তন প্রধান পারভেজ মোশাররফকে নিয়ে ট্যুইট করা শুরু করেন আসিফ। লেখেন, ৯/১১-র হামলার পর একজন শাসক মাত্র একটি ফোন কলের পর আত্মসমর্পন করেছিলেন। তখন পাকিস্তান খুব খারাপ পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে গিয়েছিল। বোকা যদি কেউ হয়, সে পাকিস্তান। নাহলে আমেরিকার সঙ্গে যুদ্ধে কি যোগ দিতে পারে?

ট্রাম্প পাকিস্তানের বিরুদ্ধে লিখেছিলেন, ওয়াশিংটনকে বোকা বানাতে চাইছে ইসলামাবাদ। ট্যুইটে ট্রাম্প জানান, গত পনেরো বছর ধরে আমেরিকা পাকিস্তানকে ৩৩বিলিয়ন ডলার আর্থিক সাহায্য দিয়েছে। কিন্তু তার প্রত্যুত্তরে আমেরিকাকে দেওয়া কথা রাখেনি পাকিস্তান। তার পরিপ্রেক্ষিতেই এমন ট্যুইট করেন আসিফ।

পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, বিশ্বকে খুব শিগগিরই সত্যি কথা জানাবে পাকিস্তান। ফ্যাক্ট ও ফিকশনের মধ্যে পার্থক্য বুঝিয়ে দেবে। ‘আমরা আপনাদের পাশে দাঁড়িয়েছি। আপনাদের শত্রুকে নিজের শত্রু মনে করেছি।’ তার পরেও আমেরিকা ইসলামাবাদের দিকে আঙুল তোলায় হতাশা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন আসিফ।

ওদিকে পাকিস্তানের তেহরিক-ই-ইনসাফ পার্টির প্রধান ইমরান খান দাবি করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের আল-কায়েদা ও তালেবানবিরোধী যুদ্ধে পাকিস্তানের ৭০ হাজার মানুষের প্রাণহানি ঘটেছে!



মন্তব্য