kalerkantho


আটকে রেখে কিশোরীকে গণধর্ষণ, বন্ধুসহ গ্রেপ্তার ৪

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৭ নভেম্বর, ২০১৭ ০৩:৪৯



আটকে রেখে কিশোরীকে গণধর্ষণ, বন্ধুসহ গ্রেপ্তার ৪

ছবি: ইন্টারনেট

বন্ধুদের সঙ্গে পার্টিতে যাওয়ার কথা ছিল। তার বদলে ১৭ বছরের এক কিশোরীকে নিয়ে যাওয়া হয় একটি লজে।

সেখানে ওই কিশোরীকে ১০ দিন আটকে রেখে তার ওপর চলে লাগাতার গণধর্ষণ। ঘটনায় মূল অভিযুক্ত ওই কিশোরীর বন্ধুসহ চারজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বেঙ্গালুরুর এই ঘটনায় ফের একবার প্রশ্নের মুখে শহরের নারীদের নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

পুলিশ জানিয়েছে, গত ২৬ অক্টোবর পার্টিতে যাবে বলে বাড়ি থেকে বেরিয়েছিল ওই কিশোরী। স্থানীয় হোয়াইটফিল্ড এলাকার এক যুবকের সঙ্গে ওই কিশোরীর বন্ধুত্ব ছিল। ওই যুবকই তাকে পার্টিতে নিয়ে যাবে বলে জানায়। সেই মতো সেদিন সন্ধ্যায় হোয়াইটফিল্ড স্টেশনের কাছে অপেক্ষা করছিল সে। কিন্তু, অনেক সময় অপেক্ষার পর বন্ধুর দেখা মেলেনি। বরং রাঘবেন্দ্র ও সাগর নামে দুই যুবক সেখানে এসে হাজির হয়।

তারা জানায়, পার্টিতে নিয়ে যেতে কিশোরীর বন্ধুই তাঁদের পাঠিয়েছে। এর পর সেখান থেকে তাকে নিয়ে যাওয়া হয় হোয়াইটফিল্ড এলাকার একটি লজে। সেখানে হাজির ছিল তার বন্ধু এবং লজ মালিকও। সেদিন থেকে আর খোঁজ মেলেনি ওই কিশোরীর।

ওই কিশোরীর পরিবার জানিয়েছে, রাত পার হয়ে গেলেও মেয়ে বাড়ি না ফেরায় আশপাশের এলাকায় অনেক খোঁজাখুঁজি করে না পেয়ে গত ৩০ অক্টোবর আর কে পুরম থানায় নিখোঁজ ডায়েরি করেন তাঁরা। পরে ওই কিশোরীর তল্লাশি শুরু করে পুলিশ। গোপন সূত্রে গত ৪ নভেম্বর পুলিশ জানতে পারে, স্থানীয় একটি লজে একজন কমবয়সী মেয়েকে দেখা গেছে। সঙ্গে সঙ্গে সেখানে উপস্থিত হয় তারা। সেখান থেকে ওই কিশোরীকে উদ্ধার করা হয়। ওই লজ মালিক ছাড়াও কিশোরীর বন্ধু এবং আরো দুই যুবকের সন্ধান মেলে সেখানে। পুলিশ তাদের আটক করে থানায় নিয়ে আসে।

হোয়াইটফিল্ডের ডিসিপি আব্দুল আহদ জানিয়েছেন, পুলিশের কাছে জবানবন্দিতে ওই কিশোরী জানিয়েছে, দিন দশেক ধরে তাকে ধর্ষণ করেছে তার বন্ধুসহ লজ মালিক ও দুই যুবক। এর পর ওই চারজনকেই গ্রেপ্তার করে পুলিশ। ডিসিপি বলেন, 'অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে পকসো ছাড়াও অপহরণসহ একাধিক ধারায় মামলা রুজু করা হয়েছে। ' আদালতে হাজির করা হলে তাদের বিচার বিভাগীয় হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছেন বিচারক। সূত্র: আনন্দবাজার


মন্তব্য