kalerkantho


ট্রাম্পের বিরুদ্ধে 'নোংরা তথ্য' দিলে কোটি ডলার পুরস্কার পর্ন মোগলের!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৬ অক্টোবর, ২০১৭ ১৩:৩২



ট্রাম্পের বিরুদ্ধে 'নোংরা তথ্য' দিলে কোটি ডলার পুরস্কার পর্ন মোগলের!

ফাইল ফটো

মার্কিন পর্নোগ্রাফি ইন্ডাস্ট্রির অন্যতম প্রভাবশালী ব্যক্তি ল্যারি ফ্লিন্ট। সম্প্রতি তিনি মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে ক্ষমতা থেকে সরাতে ইমপিচমেন্ট বা অভিশংসনে সহায়তা করতে পারে এমন কোনো তথ্য কেউ সরবরাহ করতে পারলে তাকে এক কোটি ডলার পুরস্কার দেওয়া হবে এমন ঘোষণা দিয়েছেন।

ফ্লিন্ট যে ট্রাম্পের ব্যাপারে অত্যন্ত সিরিয়াস, সে বিষয়টি কাজের মাধ্যমেই বুঝিয়ে দিয়েছেন। কারণ এক কোটি ডলার পুরস্কারের ঘোষণাটি তিনি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম কিংবা অন্য কোনো বিনামূল্যের ঘোষণার মাধ্যমে দেননি। রীতিমতো পত্রিকায় বিজ্ঞাপন আকারে প্রকাশ করেছেন।

তিনি দৈনিক ওয়াশিংটন পোস্ট পত্রিকায় রবিবার এক বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে সেই ঘোষণা দেন। ওয়াশিংটন পোস্টের পুরো এক পাতাজুড়ে প্রকাশিত হয়েছে ওই বিজ্ঞাপন। বিজ্ঞাপনে কোনো ছবি নেই। পুরো পাতাজুড়ে বড় বড় অক্ষরে ওই বিজ্ঞাপন প্রকাশিত হয়েছে।

কেন এই বিজ্ঞাপন দিলেন তিনি? এ বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের জনপ্রিয় মাসিক পর্নোগ্রাফি ম্যাগাজিন হাসলারের প্রকাশক ফ্লিন্ট ওই বিজ্ঞাপনের বিষয়ে বলেছেন, দেরি হওয়ার আগেই ডোনাল্ড ট্রাম্পকে ক্ষমতা থেকে সরানো দরকার। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে ক্ষমতা থেকে সরানো সব মার্কিন নাগরিকের দায়িত্ব বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

বিজ্ঞাপনটির শিরোনাম 'টেন মিলিয়ন ডলার ফর ইনফরমেশন লিডিং টু দ্য ইমপিচমেন্ট অ্যান্ড রিমোভাল ফ্রম অফিস অব ডোনাল্ড জে ট্রাম্প'। বিজ্ঞাপনে বলা হয়, ডোনাল্ড ট্রাম্প সম্পর্কে কেউ যদি অত্যন্ত নোংরা কোনো তথ্য দিতে পারেন তাহলে তাকে এক কোটি ডলার পুরস্কার দেওয়া হবে। ওই নোংরা তথ্যটি এমন ধরনের হতে হবে যা প্রেসিডেন্ট পদ থেকে অভিশংসনের মাধ্যমে ডোনাল্ড ট্রাম্পকে ক্ষমতাচ্যুত করার জন্য যথেষ্ট হতে হবে।

বিজ্ঞাপন দেওয়ার বিষয়ে ল্যারি ফ্লিন্ট কতগুলো কারণ উল্লেখ করেছেন। কয়েকটি কারণের মধ্যে রয়েছে বিদেশি শক্তির সঙ্গে হাত মেলানো, বর্ণবাদী গোষ্ঠীদের উসকানি দিয়ে সংঘাতের সৃষ্টি করা, মিথ্যে কথা বলা, স্বজনপ্রীতি করাসহ কয়েকটি অভিযোগ।

হিলারি ক্লিনটনের কট্টর সমর্থক হিসেবে পরিচিত ফ্লিন্ট বলেন, দেশের অভ্যন্তরীণ ও বৈদেশিক নীতিতে ব্যবসায়িক দৃষ্টিতে তার প্রচণ্ড বিরোধিতা, তার কথাবার্তায় অগোছালোভাব ও মিথ্যাচারিতা, বৃহত্তর স্বজনপ্রীতি ও উচ্চ পদে অযোগ্য ব্যক্তিদের নিয়োগদানসহ বিভিন্ন বিষয়ে মার্কিনিরা তার ওপর খুবই বিরক্ত। এ কারণেই ইমপিচমেন্ট বা অভিশংসনে সহায়তা করতে পারে এমন কোনো নোংরা তথ্য চেয়ে বিজ্ঞাপন দেওয়া হয়েছে, যাতে প্রেসিডেন্ট পদ থেকে তাকে দ্রুত সরানো যায়।

তথ্য পাওয়ার পর কী করবেন ফ্লিন্ট? এ প্রশ্নের জবাবে ৭৪ বছর বয়সী ফ্লিন্ট বলেন, আমি আশা করছি কয়েক দিনের মধ্যে তথ্য পেয়ে যাব। আর তথ্য পাওয়ার পর তা বৈধভাবে প্রকাশ করা হবে। তথ্যের জন্য নগদ পুরস্কার প্রদানের পক্ষপাতী বলেও তিনি জানান।
সূত্র : বিজনেস ইনসাইডার


মন্তব্য