kalerkantho


ডোনাল্ড ট্রাম্পকে 'কবর' দেওয়ার হুমকি ইরানি জেনারেলের!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৫ অক্টোবর, ২০১৭ ১৫:৩৮



ডোনাল্ড ট্রাম্পকে 'কবর' দেওয়ার হুমকি ইরানি জেনারেলের!

ইরানের কুদস বাহিনীর এক সিনিয়র কমান্ডার বলেছেন, তার বাহিনী ডোনাল্ড ট্রাম্পের মতো 'অনেককেই কবর' দিয়েছে। আর ইরানের বিরুদ্ধে ডোনাল্ড ট্রাম্পের হুমকিও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের 'ক্ষতি' করবে।

ইরানের আল কুদস বাহিনী হলো দেশটির ইসলামী বিপ্লবী গার্ড সেনাবাহিনী (আইআরজিসি)র একটি বিশেষ ইউনিট। ভিনদেশে সেনা অভিযান চালানোর জন্য এই ইউনিটটি গঠন করা হয়।

ডেপুটি কুদস কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ইসমাইল গনি বলেন, 'আমরা যুদ্ধবাজ দেশ না। তবে ইরানের বিরুদ্ধে কোনো ধরনের সামরিক পদক্ষেপ গ্রহণ করা হলে পস্তাতে হবে। ইরানের বিরুদ্ধে ট্রাম্পের হুমকি যুক্তরাষ্ট্রেরই ক্ষতি করবে। আমরা ট্রাম্পের মতো অনেককেই কবর দিয়েছি। আর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে কীভাবে যুদ্ধ করতে হবে তা-ও আমাদের জানা আছে। '

ইরানের সঙ্গে বিশ্বের পরাশক্তিধর ছয়টি দেশের সম্পাদিত পরমাণু চুক্তি প্রত্যয়ন না করার সিদ্ধান্ত নেওয়ার জবাবে ইরানের জেনারেল এই হুমকি দেন।

আইআরজিসি ইরানের সবচেয়ে প্রভাবশালী নিরাপত্তা বাহিনী।

এবং ইরানের অর্থনীতিরও একটা বিশাল অংশ বাহিনীটির নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। এবং রাজনীতিতেও বাহিনীটির বেশ প্রভাব রয়েছে।

১৯৭৯ সালের ইসলামী বিপ্লবের কঠোর সমালোচনা করে দেওয়া এক বক্তব্যে গত শুক্রবার ট্রাম্প ইরানের একনায়কতন্ত্র, সন্ত্রাসবাদকে সহযোগিতা দেওয়া এবং মধ্যপ্রাচ্যসহ সারা বিশ্বে তাদের অব্যাহত আগ্রাসন যা ইউরোপীয় মিত্রদের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্ক নষ্ট করার ঝুঁকি তৈরি করেছে তার বিরুদ্ধে কথা বলেন।

এ সময় তিনি ২০১৫ সালে করা এ চুক্তি ছুড়ে ফেলে দেওয়ার হুমকি দেন। তিনি এটির নিন্দা জানানোর প্রক্রিয়াগত পদক্ষেপ গ্রহণের কথাও বলেন।

ট্রাম্প আরো বলেন, পুরো বিশ্বের উচিত আমাদের সঙ্গে যোগ দিয়ে ইরানি সরকারের হত্যা ও ধ্বংসযজ্ঞ প্রতিরোধ করা।  তবে ট্রাম্প ইরানের বিরুদ্ধে চরম কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করতে গেলে নিজ দেশেই চাপের মুখে পড়বেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

ওদিকে ট্রাম্পের হুঁশিয়ারি উপেক্ষা করেই আরেকটি মাঝারি-পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালিয়েছে ইরান।

৩১ অক্টোবরের মধ্যেই ট্রাম্প ইরানের আইআরজিসির বিরুদ্ধে কোনো অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা জারি করতে পারেন বলে প্রত্যাশা করা হচ্ছে। এতে ইরানও পরমাণু চুক্তি থেকে বেরিয়ে যেতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

আর যুক্তরাষ্ট্র ইতিমধ্যেই আল কুদস বাহিনীর বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে রেখেছে। ২০০৭ সাল থেকে আল কুদস বাহিনীকে সন্ত্রাসবাদের সহায়ক সংগঠন বলে আখ্যায়িত করে আসছে যুক্তরাষ্ট্র।
সূত্র : দ্য ইনডিপেনডেন্ট


মন্তব্য