kalerkantho


পাকিস্তানের যে দ্বীপে কেবল থাকে কুকুর

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ১৪:২২



পাকিস্তানের যে দ্বীপে কেবল থাকে কুকুর

পাকিস্তানের করাচির উপকূলীয় এক দ্বীপে অনেক বছর ধরে বাস করছে কিছু মালিকবিহীন কুকুর। যাদের কারণে দ্বীপের নাম হয়েছে ডগ আইল্যান্ড বা কুকুর দ্বীপ।

দ্বীপটিতে এখনো জনবসতি গড়ে ওঠেনি। অস্থায়ী ভিত্তিতেও কেউ সেখানে থাকে না। এর বাসিন্দা কেবল কুকুরগুলো। উপকূলের কাছে দ্বীপটিতে দিনভর ঘুরে বেড়ায় কুকুরগুলো। সেখানে নিয়মিত মাছ ধরেন এমন জেলেরা কুকুরগুলোর দেখাশোনা করেন। এদের একজন মুনির বলছেন, কুকুরগুলোর দেখভাল করার কেউ নেই বলে তিনি প্রায়ই ওদের দেখাশোনা করেন।

চারিদিকে কেবল লবণাক্ত পানি, ফলে এরা খাওয়া বা পান করার জন্য কিছুই পায় না। দ্বীপে মানুষের আগমন টের পেলে কুকুরগুলো দল বেঁধে কাছে আসে খাবারের আশায়।

কুকুরগুলো কিভাবে প্রথম এ দ্বীপে এসেছিল, তা পরিষ্কার জানা যায় না।

তবে স্থানীয় জেলেরা বলছেন বেশ কয়েক দশক ধরেই এ দ্বীপে তারা কুকুরের দল ঘুরে বেড়াতে দেখছেন। কেউ কেউ বলেন এগুলো আসলে বিদেশি নাবিকদের ছেড়ে দেওয়া কুকুর। আবার কেউ কেউ বলেন শহর কর্তৃপক্ষ বিভিন্ন স্থান থেকে বেওয়ারিশ কুকুর ধরে এ দ্বীপে ফেলে যায় রাতের অন্ধকারে। অথচ দ্বীপটিতে নেই কোনো পরিষ্কার পানি কিংবা খাবার। আর সে কারণেও পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় জেলেদের অনেকে কুকুরগুলোকে পানি বা খাবার দিয়ে যান নিয়মিতই।

জেলে মুনিরের বিশ্বাস কুকুরগুলোকে খাওয়ালে সৃষ্টিকর্তা তাকে এ জন্য পুরস্কৃত করবেন। ওদের খাওয়ালে আল্লাহ তারও খাওয়ার ব্যবস্থা করবেন। আমাদের নৌকা দ্বীপের কাছে আসতে দেখলেই কুকুরগুলো ছুটে আসে। কারণ তারা জানে আমরা তাদের কিছু না কিছু দেব। পাকিস্তানিদের মধ্যে অনেকেই বিশ্বাস করেন কুকুর পরিচ্ছন্ন প্রাণী নয়, আর সে কারণে তাদের স্পর্শ করা উচিত নয়। করাচি শহরে এমন হাজারো কুকুর রয়েছে যাদের মূল পরিচয় তারা বেওয়ারিশ, তাই তাদের জন্য নেই কোনো সুবিধা।

আরেকজন জেলে মুহাম্মদ বলছেন এসব কারণে জেলেরা অনেকেই বিশ্বাস করে এ দ্বীপের কুকুরগুলোর দেখাশোনার দায়িত্ব তাদেরই। এখন পরিকল্পনা চলছে এই ডগ আইল্যান্ড বা কুকুর দ্বীপটিতে কিভাবে ঘরবসতি গড়ে তোলা যায়। সেটি হলে এখানে হবে বড় ধরনের গৃহনির্মাণ প্রকল্প। যদিও এ নিয়ে উদ্বেগ রয়েছে পরিবেশবাদীদের মধ্যে। যা নিয়ে বিরোধ চলছে জমির মালিকদের সাথে। আর সে কারণেই এখনো পর্যন্ত কুকুরগুলোই এ দ্বীপের একমাত্র অধিবাসী।

 


মন্তব্য