kalerkantho


ডোকলাম বিতর্কে ভারতের পাশে দাঁড়াল জাপান

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৮ আগস্ট, ২০১৭ ২০:৫৮



ডোকলাম বিতর্কে ভারতের পাশে দাঁড়াল জাপান

ছবি : ইন্টারনেট থেকে

ডোকলাম বিতর্কে ভারতের পাশে দাঁড়াল জাপান। চীনকে জোর কূটনৈতিক ধাক্কা দিয়ে আজ শুক্রবার নয়াদিল্লিতে নিযুক্ত জাপানি রাষ্ট্রদূত জানিয়েছেন, ত্রিদেশীয় সীমান্তে যে স্থিতাবস্থা রয়েছে, একতরফাভাবে এবং বলপূর্বক তা ভাঙার চেষ্টা করা কোনো পক্ষেরই উচিত নয়।

জাপানের এই বিবৃতি ডোকলাম বিতর্কে ভারতের যা অবস্থান, তাকেই পুরোপুরি সমর্থন করেছে বলে মনে করছে ভারতের বিশ্লেষকরা।  

ডোকলাম এলাকাটিকে নিয়ে বিরোধ মূলত চীন এবং ভুটানের মধ্যে হলেও, ভুটানের সঙ্গে ভারতের নিরাপত্তা সংক্রান্ত দ্বিপাক্ষিক চুক্তি থাকায় ভারতকে এই বিষয়ে হস্তক্ষেপ করতে হয়েছে। নয়াদিল্লির হয়ে এমন কথা বলেছে জাপানি রাষ্ট্রদূত কেনজি হিরামাৎসু।

রাষ্ট্রদূত বলেন, আমরা মানছি যে ডোকলাম হল চীন এবং ভুটানের মধ্যে বিতর্কিত একটি এলাকা এবং ওই দুই দেশ নিজেদের মধ্যে আলোচনাও চালাচ্ছে। তিনি বলেছেন, আমরা এটাও বুঝি যে ভুটানের সঙ্গে ভারতের চুক্তি রয়েছে, সেই কারণেই ভারতীয় সেনাকে ওই এলাকায় যেতে হয়েছে।

খুব স্পষ্ট করেই চীনের অবস্থানের বিরোধিতা করেছেন নয়াদিল্লিতে নিযুক্ত জাপানি রাষ্ট্রদূত। তিনি বলেছেন, বিতর্কিত এলাকায় একতরফা বলপ্রয়োগের ভিত্তিতে স্থিতাবস্থা বদলে দেওয়ার চেষ্টা করা কোনো পক্ষেরই উচিত নয়।

চীন বলছে, ডোকলাম ভারতের এলাকা নয়, এলাকাটি চীন এবং ভুটানের মধ্যে বিতর্কিত, সুতরাং চীন ও ভুটান নিজেদের মধ্যে আলোচনা করবে, এতে ভারতের নাক গলানোর প্রয়োজন নেই।

এক্ষেত্রে ভারতের বক্তব্য হল, ডোকলাম ত্রিদেশীয় সীমান্তে অবস্থিত।

ত্রিদেশীয় সীমান্তে যদি কোনো বিতর্ক থাকে, তাহলে তিন পক্ষের আলোচনার ভিত্তিতেই সিদ্ধান্ত হবে, ভারত এবং চীনের মধ্যে এমন চুক্তি রয়েছে। কিন্তু রাস্তা তৈরির নামে একতরফা ভাবে বিতর্কিত এলাকার দখল নেওয়ার চেষ্টা করে চীন সে চুক্তি ভেঙেছে। এতে ভুটানের স্বার্থ তো ক্ষুণ্ন হচ্ছেই ভারতের নিরাপত্তাও বিঘ্নিত হচ্ছে। অতএব সেনা পাঠিয়ে রাস্তা তৈরির কাজ আটকানো ছাড়া আর কিছুই করার ছিল না ভারতের।


মন্তব্য