kalerkantho


রাত হলেই খুবলে নিচ্ছে মাংস, অজানা জন্তুর আক্রমণের আতঙ্ক শহরজুড়ে!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২০ মার্চ, ২০১৭ ১৮:২১



রাত হলেই খুবলে নিচ্ছে মাংস, অজানা জন্তুর আক্রমণের আতঙ্ক শহরজুড়ে!

ভোররাতে অজানা জন্তুর আক্রমণে ত্রাহি-ত্রাহি রব পশ্চিমবঙ্গের জলপাইগুড়ি পুরসভার ৮ ও ৯ নম্বর ওয়ার্ডে। সত্তর বছরের বৃদ্ধ থেকে কিশোর, যুবক- কেউ বাদ নেই, যাকে এই অজানা জন্তুর অতর্কিত আক্রমণের শিকার হতে হয়নি। জলপাইগুড়ি জেলা সদর হাসপাতালে এই মুহূর্তে অজানা জন্তুর আক্রমণে জখম হয়ে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ২ জন।  

৮ নম্বর ওয়ার্ডের কিংসাহেবের ঘাটের বাসিন্দা চন্দেশ্বর পাসওয়ান(৭০)-কে রবিবার ভোর ৪টেয় এই অজানা জন্তু আক্রমণ করে। চন্দেশ্বর পাসওয়ানের বাঁ-দিকের চোখের নীচে এবং মাথায় খুবলে দিয়েছে জন্তুটি।

চন্দেশ্বরের স্ত্রী শকুন্তলা পাসওয়ান জানিয়েছন, ভোররাতে কুকুরের চেঁচামেচি শুনে স্বামী ঘর থেকে বেড়িয়ে আসেন। তিনি নাকি দেখেন অনেক কুকুর একজোট হয়ে এক দীর্ঘকায় চার পেয়ে প্রাণীকে তাড়া করেছে। চন্দেশ্বরও তাড়া করেন জন্তুটিকে। কিন্তু, আজব দর্শনের সেই জন্তুটি নাকি চন্দেশ্বরের উপরে ঝাঁপিয়ে পড়ে।

চন্দেশ্বরের মেয়ে রাধা পাসওয়ানের দাবি, ‘বাবার উচ্চতা প্রায় ৬ ফুট। একটা দেশি কুকুরের পক্ষে বাবার উপরে হামলা করা সম্ভব নয়।

জন্তুটির সঙ্গে শাবক ছিল। বাবাকে আক্রমণ করেই দু’টিতে মিলে পালিয়ে যায়। ’

স্থানীয় বাসিন্দা গীতা রজক জানিয়েছেন, পুর এলাকার ৯ নম্বর ওয়ার্ডেও তিনজন যুবক, কিশোরকে অজানা জন্তুতে রাতে কামড়ে দেয়। প্রথমে ৪জন হাসপাতালে ভর্তি হলেও চন্দেশ্বর পাসওয়ান ছাড়া আরও একজন এখনও ভরতি আছেন। বন দফতরকে সমস্ত বিষয়টি জানানো হয়েছে।  

জেলা হাসপাতালের সুপার গয়ারাম নস্কর জানিয়েছেন, ‘বেশ কয়েকজন জন্তুর আক্রমণে জখম হয়ে ভরতি হয়েছেন। তবে এটা কী জন্তু, বলা সম্ভবপর নয়। ’

- ইন্টারনেট


মন্তব্য