kalerkantho


অরুণাভের কুকীর্তি ঘুরছে সোশ্যাল মিডিয়ায়!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৫ মার্চ, ২০১৭ ২০:১২



অরুণাভের কুকীর্তি ঘুরছে সোশ্যাল মিডিয়ায়!

শ্লীলতাহানির দায়ে অভিযুক্ত ভারতের TVF-এর  সিইও অরুণাভ কুমার। সংস্থার একাধিক কর্মচারী তাঁর বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগ তুলেছেন। তবে একজনের পোস্ট ইতিমধ্যেই ভাইরাল।
“Indian Flower” নামে পোস্টটি করেছেন তিনি। সেখানে লিখেছেন, একদিন অরুণাভ তাঁকে পৌনে সাতটার সময় অফিসে ডাকেন। বলে, সেই নারী নাকি কিছু কাজ অসমাপ্ত রেখে গেছেন। অরুণাভর ফোন পেয়ে তিনি অফিসে যান। সেখানে তখন তিনজন ছিলেন। অরুণাভ ছাড়া বাকি দুজন পাঁচ মিনিট পরেই বেরিয়ে যান। অরুণাভ একটি চেয়ারে বসেছিলেন। ওই মহিলাকে তিনি জিজ্ঞাসা করেন, “চতুর্ভুজ স্থানের নাম শুনেছো?” মুজাফ্ফরপুরের একটি রেড লাইট এলাকা হলো এই চতুর্ভুজ স্থান।

নারী তা জানতেন। তিনি কথার উত্তর দেননি। অরুণাভ বলেন, আমার খুব পছন্দের জায়গা চতুর্ভুজ স্থান। ওখানে কমার্শিয়াল ডিল হয়। তুমিও তো কমার্শিয়াল ডিলেই এসেছো। ওই মহিলা অরুণাভকে বলেন, অরুণাভ, আপনি আমার দাদার মতো। আমার শরীর ভালো নেই। কী করতে হবে বলুন। করে আমি বাড়ি যাই।   তখনই ওই মহিলার হাত চেপে ধরেন অরুণাভ। বলেন, “ম্যাডাম, একটু রোল প্লে করুন। ” কোনওমতে হাত ছাড়িয়ে টয়লেটে ঢুকে ছিটকিনি আটকে দেন ওই মহিলা। সারা রাত সেখানেই কাটান।

“Indian Flower”-এর পোস্টটি কিছুক্ষণের মধ্যেই ভাইরাল হয়ে যায়। তারপরই রুক্মিণী সেনগুপ্ত নামে আরও একজন অরুণাভর বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগ তোলেন। তিনিও প্রায় একই কথা বলেন। আলিগড় ছবির লেখিকা অপূর্বা আনসারি টুইটারে লেখেন, এমন কয়েকটি ঘটনার কথা তিনিও শুনেছেন।
TVF-এর একজন প্রাক্তন কর্মচারী বলেছেন, তাঁরও এমন অভিজ্ঞতা হয়েছে। তিনিও শ্লীলতাহানির শিকার হয়েছিলেন। পরিস্থিতি এমন হয়েছিল যে চাকরি ছাড়তে বাধ্য হয়েছিলেন তিনি। তারপর কাউকে সেখানে কাজ কারার কথা বলেননি।

তবে TVF-এর তরফ থেকে এই অভিযোগ মিথ্যে বলে উড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। তাদের মতে, এগুলো নেহাতই গুজব। তাদের অফিস পুরুষ ও মহিলা, উভয়ের জন্যই সুরক্ষিত। তাদের টিম নিয়ে তারা গর্বিত। TVF-এর রাইটার ডিরেক্টর বিশ্বপতি সরকার, কাস্টিং ডিরেক্টর নিধি বিস্ত ও ডিরেক্টর অমিত গোলানি অরুণাভর পাশে দাঁড়িয়েছেন।


মন্তব্য