kalerkantho


'ভেটো ক্ষমতা' ছাড়াই জাতিসংঘের স্থায়ী সদস্য হতে চায় ভারত

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৯ মার্চ, ২০১৭ ১২:২৩



'ভেটো ক্ষমতা' ছাড়াই জাতিসংঘের স্থায়ী সদস্য হতে চায় ভারত

সাময়িকভাবে 'ভেটো' (আমি ইহা মানি না) দেওয়ার ক্ষমতা ছাড়াই জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্যপদ পেতে চায় ভারত। জাতিসংর্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্যপদ নিয়ে সংস্কার আলোচনায় ভারত এই প্রস্তাব দিয়েছে।


খবর বলা হয়েছে, বহুদিন ধরেই দিল্লি এই সদস্যপদ পাওয়ার ব্যাপারে তদবির চালাচ্ছে। নিজেদের দাবিকে জোরালো করতে ব্রাজিল, জার্মানি এবং জাপানকে নিয়ে জি ফোর নামে একটি আন্তর্জাতিক মঞ্চ তৈরি করেছে দিল্লি। জি ফোর-ভুক্ত দেশগুলো স্থায়ী সদস্যপদ পাওয়ার ব্যাপারে একে অপরের দাবিকে সমর্থন করবে বলে চুক্তিবদ্ধ।

ভারতের যুক্তি, জাতিসংঘ গঠনের পর ৭০ বছর অতিক্রান্ত হয়েছে। ইতিমধ্যে বিশ্বের ক্ষমতার সমীকরণের তারতম্য ঘটেছে। তার প্রতিফলন জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্যপদে দেখা যাক। বাড়ানো হোক সদস্যপদ। এখনও পর্যন্ত নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্য-দেশ হিসেবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন, চীন, ফ্রান্স এবং রাশিয়া ভেটো প্রয়োগের ক্ষমতা ভোগ করে।

মঙ্গলবার কাউন্সিলের সংস্কার নিয়ে আলোচনায় বসে জি ফোর- এর ইন্টার গভর্নমেন্টাল নেগোসিয়েশন (আইজিএন)।

বৈঠকের পর জাতিসংঘে নিযুক্ত ভারতের স্থায়ী প্রতিনিধি সৈয়দ আকবরউদ্দিন বলেন, 'ভেটো ক্ষমতা গুরুত্বপূর্ণ। তবে পরিষদের সংস্কার করতে গিয়ে হয়তো আমাদের সেই ক্ষমতা দেওয়া হবে না। '

পরিষদে পাঁচ স্থায়ী সদস্য দেশ ছাড়াও নামের আদ্যক্ষর অনুযায়ী ঘুরিয়ে ফিরিয়ে আরও ১০ দেশ দুই বছরের জন্য নিরাপত্তা পরিষদের সদস্যপদ পায়। তবে এই দেশগুলোর ভেটো ক্ষমতা থাকে না। জি ফোর- কে প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে এই মেয়াদ আরও বাড়িয়ে তাদের নির্বাচিত সদস্য করতে। যা খারিজ করেছেন আকবরউদ্দিন।
এদিকে, ভারত যাতে সদস্যপদ না পায় তার চেষ্টা চালাচ্ছে পাকিস্তান। ইউনাইটিং ফর কনসেনসাস (ইউএফসি) নামে ১৩ দেশের গোষ্ঠী গড়ে নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্য দেশ না বাড়ানোর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে তারা। প্রধানত ইউএফসি'র পক্ষ থেকেই মেয়াদ আরও বাড়িয়ে নির্বাচিত সদস্য করার প্রস্তাব দেওয়া হচ্ছে।

ইউএফসি'র সদস্য দেশ ইতালির জাতিসংঘের স্থায়ী প্রতিনিধি সিবাস্তিয়ানো কার্ডি বলেছেন, নিরাপত্তা পরিষদের অস্থায়ী ১০ দেশের মধ্যে নয়টি দেশকে আরও দীর্ঘ সময় দায়িত্বে রাখা যেতে পারে। আকবরউদ্দিন বলেছেন, 'এটা পুরনো টুপি'। তার কথায় এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের ৫৩ সদস্য দেশের স্থায়ী প্রতিনিধি মাত্র দুই। অপরিদিকে পশ্চিম ইউরোপ গ্রুপের ২৬ সদস্যেরও প্রতিনিধি দুই। এটা এক কথায় অসাম্য।


মন্তব্য