kalerkantho


এই মন্দিরে এক রাত কাটালেই নারীরা হয়ে পড়েন গর্ভবতী!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৬ মার্চ, ২০১৭ ১৯:০৬



এই মন্দিরে এক রাত কাটালেই নারীরা হয়ে পড়েন গর্ভবতী!

ভারতবর্ষে এমন একটি মন্দির যেখানে এক রাত কাটানোর পরই নারীরা হয়ে পড়েন গর্ভবতী। আজবগজব ডটকমের রিপোর্ট অনুযায়ী, মন্দির চত্বরে শতরঞ্জি পেতে শোওয়ার পরই মহিলারা গর্ভবতী হয়ে পড়েন।

হিমাচল প্রদেশের সিমসা মাতার মন্দির এমনই একটি স্হান যেখানে এক রাত কাটানোর পরই নিঃসন্তান মহিলারা গর্ভবতী হয়ে পড়েন। নবরাত্রির সময়ে শুধু হিমাচল নয়, পার্শ্ববর্তী রাজ্য পঞ্জাব, হরিয়ানা, চণ্ডীগড়ের বহু নিঃসন্তান মহিলারা এখানে আসেন।

বিস্তীর্ণ এলাকায় এই মন্দির সন্তানদাত্রী মন্দির হিসেবে পরিচিত। প্রত্যেক বছর নিঃসন্তান মহিলারা এখানে সন্তান লাভের আশায় আসেন। নবরাত্রির সময় এই মন্দিরকে কেন্দ্র করে যে বিশেষ উত্সব পালন করা হয় তার নাম হলো সলিন্দরা। স্হানীয় ভাষায় সলিন্দরার অর্থ হলো স্বপ্ন পাওয়া। সেই সময় মহিলারা দিনরাত মন্দির চত্বরে শুয়ে থাকেন। দু-এক রাত্রি শুয়ে থাকার পরেই মহিলাদের স্বপ্নের মাধ্যমে আশীর্বাদ করেন দেবী সিমসা মাতা।
দেবী যে স্বপ্ন দেন তা হলো প্রতীকী ইঙ্গিতবাহী। আসন্ন সন্তান ছেলে না মেয়ে তাও জেনে ফেলা সম্ভব। কোনও মহিলা যদি স্বপ্নে দেখেন আম তা হলে তার পুত্রসন্তান হবে। যিনি স্বপ্নে ঢ্যাঁড়শ দেখেন তাহলে তিনি কন্যাসন্তানের জননী হবেন। স্বপ্নে কাঠ বা পথর দেখলে সেই মহিলাকে সারাজীবন নিংসন্তান থাকতে হবে। নিংসন্তান থাকার স্বপ্ন দেখার পরেও যদি কোনও মহিলা মন্দির থেকে তার বিছানা না সরালে তার শরীরে লাল লাল দাগ হয়ে যায়।
মন্দিরের পাশেই রয়েছে একটি পাথর। দুহাত দিয়ে প্রাণপণে চেষ্টা করলেও পাথরটিকে সরানো যায় না। ডান হাতের কড়ে আঙ্গুলের সাহায্যে পাথরটাকে সামান্য ঠেললেই হেলে যায়। পাথরটি স্হানীয়রা পাথরটিকে পবিত্র বলে মনে করেন।


মন্তব্য