kalerkantho


ট্রাম্পের অভিযোগ নাকচ ওবামার

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৫ মার্চ, ২০১৭ ১১:২৪



ট্রাম্পের অভিযোগ নাকচ ওবামার

যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার বিরুদ্ধে ফোনে আড়িপাতার যে অভিযোগ তুলেছেন ট্রাম্প তা প্রত্যাখ্যান করেছেন ওবামা। শনিবার টুইটারে দেওয়া পোস্টে ট্রাম্প দাবি করেন, তিনি নির্বাচিত হওয়ার এক মাস আগে পূর্বসূরি বারাক ওবামা তার টেলিফোনে আড়ি পেতেছিলেন। ট্রাম্পের এমন দাবির পর বারাক ওবামার মুখপাত্র কেভিন লুইস বলেছেন, ফোনে আড়িপাতাসংক্রান্ত ট্রাম্পের দাবি 'ডাহা মিথ্যাচার'।

ডোনাল্ড ট্রাম্প নিজেও অবশ্য তবে দাবির সমর্থনে তিনি কোনো প্রমাণ দেখাতে পারেননি। ট্রাম্পের দাবি প্রত্যাখ্যান করে এক বিবৃতিতে কেভিন লুইস বলেন, প্রেসিডেন্ট ওবামা কিংবা হোয়াইট হাউসের অন্য কোনো কর্মকর্তা কখনও যুক্তরাষ্ট্রের কোনো নাগরিকের ওপর নজরদারির নির্দেশ দেননি। ওবামা প্রশাসনের মূলনীতি ছিল, বিচার বিভাগের নেতৃত্বে পরিচালিত কোনো তদন্তে হোয়াইট হাউসের কোনো কর্মকর্তা হস্তক্ষেপ করবেন না।

ওবামার সমালোচনা করে টুইটারে দেওয়া ওই পোস্টে ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, 'ভয়ংকর! মাত্র আবিষ্কার করলাম, প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জয়ের কয়েক দিন আগে আমার ট্রাম্প টাওয়ারের ফোনে আড়ি পাতেন ওবামা। কিন্তু কিছুই পাওয়া যায়নি। '

টুইটারে দেওয়া আরেক পোস্টে ট্রাম্প বলেন, 'কতটা নিচু হলে অত্যন্ত পবিত্র নির্বাচনী প্রক্রিয়ার সময় ওবামা আমার টেলিফোনে আড়ি পাততে পারেন। এটা নিক্সন ওয়াটারগেট কেলেঙ্কারির মতো ঘটনা। '

ট্রাম্পের এ অভিযোগের বিষয়ে বিস্তারিত জানানোর জন্য সংবাদমাধ্যমগুলোর পক্ষ থেকে হোয়াইট হাউসে যোগাযোগের চেষ্টা করা হয়।

তবে মার্কিন প্রেসিডেন্টের দফতর থেকে এ বিষয়ে কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

উল্লেখ্য, নির্বাচনি প্রচারণাকালে ওবামাকে যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসের নিকৃষ্টতম প্রেসিডেন্ট হিসেবে আখ্যায়িত করেছিলেন ট্রাম্প। এমনকি গত ফেব্রুয়ারিতে নিজের প্রতি সহানুভূতিশীল ফক্স নিউজকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারেও ওবামা’র কঠোর সমালোচনা করেন ট্রাম্প। তার দাবি, যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে তিনি যে বিক্ষোভের মুখে পড়েছেন, এমনকি নিজ দলের মধ্যেও তার বিরোধিতা তাকে মোকাবিলা করতে হচ্ছে এর নেপথ্যে বারাক ওবামা’র হাত রয়েছে।

বিশেষ করে প্রেসিডেন্ট হিসেবে ট্রাম্পের দায়িত্ব গ্রহণের প্রথম সপ্তাহে ব্যাপক বিক্ষোভের জন্য বারাক ওবামাকে দায়ী করেন ট্রাম্প। ফক্স টেলিভিশনের ‘ফক্স অ্যান্ড ফ্রেন্ডস’ নামের ওই অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, আমি মনে করি ওবামা এসবের সঙ্গে যুক্ত। আমি জানি এটা রাজনীতিরই অংশ।

ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, পর্দার পেছনে কি ঘটছে তা নিশ্চিতভাবে জানা সম্ভব নয়। তবে আমার মনে হয় গুরুত্বপূর্ণ তথ্য ফাঁসের সঙ্গে ওবামা প্রশাসনের লোকজন জড়িত। তারা সংবাদমাধ্যমগুলোর কাছে হোয়াইট হাউসের দরকারি তথ্য ফাঁস করে দিচ্ছে।
সূত্র : বিবিসি, সিএনএন, দ্য গার্ডিয়ান


মন্তব্য