kalerkantho


মেয়ের বাড়িতে আপত্তি

নিজের অফিসে তরুণ-তরুণীর বিয়ে দিলেন পুলিশ সুপার

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১৯:২৫



নিজের অফিসে তরুণ-তরুণীর বিয়ে দিলেন পুলিশ সুপার

অপরাধীদের গ্রেপ্তার বা আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধারের পর সাংবাদিক সম্মেলন করে থাকেন পুলিশ সুপার। এতদিন পর্যন্ত অন্তত এই ভূমিকাতেই তাঁদের দেখা যেত। কিন্তু, এবার সম্পূর্ণ অন্য ভূমিকায় দেখা গেল ভারতের পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা পুলিশ সুপার ভারতী ঘোষকে। বাড়ি থেকে পালিয়ে আসা প্রেমিক প্রেমিকার বিয়ে দিলেন। পুলিশ সুপারের অফিসে দেখা গেল টোপর মাথায় নতুন বর ও নববধূকে। যা নিয়ে রীতিমতো বিয়ে বাড়ির পরিবেশ ছিল পুলিশ সুপার অফিসে।

ভারতী ঘোষ জানান, গত একবছর ধরে ওই তরুণ-তরুণী একে অপরকে ভালোবাসে। মেয়ের নাম প্রতিমা দন্ডপাট ও ছেলে শুভজিৎ কর্মকার। পশ্চিম মেদিনীপুরের শালবনী থানার খামারবার গ্রামের বাসিন্দা প্রতিমা গড়বেতা কলেজের সেকেন্ড ইয়ারের ছাত্রী। শুভজিতের বাড়ি গড়বেতার রাধানগরে। নিজের একটি ছাপাখানা রয়েছে শুভজিতের।

কিন্তু জাতপাতের কারণ দেখিয়ে মেয়ের বাড়ির লোক বিয়ে দিতে রাজি ছিল না। মেয়েকে শায়েস্তা করতে বাড়ির ভিতর মাস দেড়েক ধরে আটকে রাখা হয়। সেখান থেকে তাঁকে উদ্ধার করে দু’জনের ইচ্ছেমতো বিয়ে দেওয়া হয়।

ভারতী ঘোষ নিজের উদ্যোগে পাত্রীকে সোনার অলঙ্কার দিয়ে সাজান। বাদ পড়েনি ছেলেও। তাঁকে দেওয়া হয় সোনার আংটি ও হাতঘড়ি। এসওজি-র পক্ষ থেকে শাড়ি সহ নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র তুলে দেওয়া হয় নবদম্পতির হাতে। তারপর পুলিশি প্রহরায় কর্ণগড় মন্দিরে নিয়ে গিয়ে তাঁদের বিয়ে দেওয়া হয়।


মন্তব্য