kalerkantho


‘মোহাম্মদ নাম দেখেই আমার দিকে তাকান ওই নারী কর্মকর্তা’

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১১:০৮



‘মোহাম্মদ নাম দেখেই আমার দিকে তাকান ওই নারী কর্মকর্তা’

নামের প্রথমভাগে মোহাম্মদ শব্দটি দেখেই বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ শিক্ষক জুহেল মিয়াকে যুক্তরাষ্ট্র প্রবেশে বাধা দেওয়া হয়েছে। মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন-এর কাছে তিনি এমন অভিযোগ করেছেন।
ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি জানিয়েছে, বাংলাদেশি পরিবারের সন্তান জুহেল মিয়ার জন্ম ওয়েলসে। তিনি সেখানকার নেথ পোর্ট টালবোট এলাকার ল্যানগেটগ কম্প্রিহেনসিভ স্কুলের শিক্ষক।   আরেক ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য ইন্ডিপেনডেন্ট লিখেছে, শিক্ষক হিসেবে তিনি খুবই জনপ্রিয়। বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের নিয়ে তিনি আইসল্যান্ডে শিক্ষা ভ্রমণে গিয়েছিলেন জুহেল। সেখান থেকে তাঁদের নিউইয়র্কে যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু তাকে  প্রবেশাধিকার দেওয়া  হয়নি। শেষ পর্যন্ত জুহেলকে ছাড়াই বাকীরা যুক্তরাষ্ট্রে চলে যান।
জুহেল সিএনএনকে বলেন, ‘ঘটনার শুরু তখন, যখন আমি প্রথম নিরাপত্তা কর্মকর্তার মুখোমুখি হোই। আমি সেই নারী কর্মকর্তার হাতে আমার পাসপোর্ট তুলে দিই।

আমার নামের প্রথম ভাগে মোহাম্মদ দেখেই তিনি সোজাসুজি আমার দিকে তাকান। তারপর বলেন, আপনাকে নিরাপত্তা তল্লাশির মধ্য দিয়ে যেতে হবে। ’
স্থগিতাদেশে থাকা ট্রাম্পের মুসলিম নিষেধাজ্ঞা নিয়ে চলমান বিতর্কের মধ্যেই বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ওই ব্রিটিশ শিক্ষককে যুক্তরাষ্ট্র প্রবেশে বাধা দেওয়া হলো। বিভিন্ন আান্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম এই খবর নিশ্চিত করেছে। গত ১৬ ফেব্রুয়ারি আইসল্যান্ডের রিকজাভিক বিমানবন্দরে এ ঘটনা ঘটে।   মঙ্গলবার ব্রিটিশ ও মার্কিন মিডিয়ায় ফলাও করে  খবরটি ছাপা হয়।
জুহেল মিয়া বিবিসিকে বলেন, বিমানবন্দরে চেক ইন করার সময় তার পাসপোর্ট দেখে কর্তৃপক্ষ। জানানো হয়, নিরাপত্তার স্বার্থে তল্লাশি করা হবে তাকে। এরপর আলাদা একটি কক্ষে নিয়ে তাঁর জিনিসপত্র ও পুরো শরীর তল্লাশি করা হয়। প্রায় পাঁচ মিনিট ধরে। এরপর তাকে বিমানে ওঠার অনুমতি দেওয়া হয়। শিক্ষার্থী ও সহকর্মীদের নিয়ে বিমানে ওঠেন জুহেল। তবে বিমান ওড়ার কিছুক্ষণ আগে কয়েকজন নিরাপত্তারক্ষী গিয়ে তাঁকে বিমান থেকে নামিয়ে আনে। কোনও কারণ না জানিয়ে তাকে শুধু বলা হয়, তিনি যুক্তরাষ্ট্রে যেতে পারবেন না।
বিবিসিকে জুহেল বলেন, ‘আমি কেবল কারণটা জানতে চাই। জানতে চাই কেন তারা আমাকে যেতে দিলো না’। তবে এখনও পর্যন্ত কারণ জানতে সমর্থ হননি তিনি। বিমান থেকে নামিয়ে জুহেল মিয়াকে একটি হোটেলে কক্ষে দু’ঘণ্টা বসিয়ে রাখা হয়েছিল। এরপর যুক্তরাজ্যে ফিরে যান তিনি।


মন্তব্য