kalerkantho


শিশুকে চাপা দেওয়ার পর চিকিৎসা নিতে দিল না ক্যাবচালক!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১৩:০৬



শিশুকে চাপা দেওয়ার পর চিকিৎসা নিতে দিল না ক্যাবচালক!

অপরাধের পর নিজেকে বাঁচাতে গিয়ে যে মানুষ কতটা মরিয়া, কতটা নৃশংস হয়ে উঠতে পারে, তারই নজির রাখল এক ক্যাবচালক। দিল্লিতে এক চার বছরের শিশুকে প্রথমে পিষে দেয় সে। তারপর রক্তাক্ত শিশু ও তার মাকে নিয়েই ওই ক্যাবচালক ৫ ঘণ্টা ধরে রাজধানীর আনাচে-কানাচে ঘুরে বেড়াল। আর এই গোটা সময়টা ধরে সে শিশুটির মাকে কখনও বুঝিয়ে কখনও শাসিয়ে বলে গেল, তার বিরুদ্ধে যেন কোনো অভিযোগ দায়ের না করা হয়।

দক্ষিণ-পশ্চিম দিল্লির মুখার্জি নগরের বাসিন্দা চার বছরের রোহিত কুমার ওই ৫ ঘণ্টা ধরে যন্ত্রণায় কাতরাতে থাকে। তার মা বাসন্তী কুমারী ৩২ বছরের ক্যাবচালক রাহুলের কাছে আকুতি জানাতে থাকেন, "ছেলেটাকে কোনো একটা হাসপাতালে নিয়ে চলো। ও কষ্ট পাচ্ছে। " কিন্তু ওই অবস্থায় কিছুতেই রোহিত ও তার মাকে হাতছাড়া করতে চায়নি ক্যাবচালক। কারণ এতে তার ধরা পড়ার ভয় আছে। সে বলতে থাকে, "কোনো হাসপাতালই শিশুটিকে ভর্তি করতে চাইছে না। " দীর্ঘক্ষণ কোনো চিকিৎসা না পেয়ে মৃত্যু মুখে ঢলে পড়ে রোহিত।

রোহিতের মা গৃহকর্মীর কাজ করেন। এভাবে ছেলের মৃত্যু হওয়ায় কাঁদতে কাঁদতে তিনি বললেন, "পাঁচ ঘণ্টা ভয়ংকর সময় কেটেছে। আমার আরও তিনটি সন্তান রয়েছে। তারা বারবার রোহিতের কথা জিজ্ঞেস করছে। ওদের কীভাবে বলব যে, ওরা আর কখনও তাদের ভাইকে দেখতে পাবে না। "

পুলিশ জানিয়েছে, শুক্রবার বিকেলে তাদের কাছে অভিযোগ দায়ের করা হয়। ইন্দিরা বিকাশ কলোনির বাইরে খেলছিল বাচ্চাটা। তখনই গাড়ি ঘোরাতে গিয়ে তাকে পিষে দেয় ক্যাবচালক রাহুল। লোকজন জড়ো হয়ে গেলে সে আহত শিশু ও তার মাকে সাহায্যের অছিলায় গাড়িতে তুলে নেয়। এজন্য প্রথমে তাকে ধন্যবাদও জানিয়েছিলেন রোহিতের মা। তবে, তিনি বুঝতে পারেননি তার সামনে কী ভয়ংকর সময় আসতে চলেছে। তাদের নিয়ে এইমস সহ ৪টি হাসপাতালে যায় ক্যাবচালক। তবে, প্রত্যেক জায়গা থেকে ফিরেই সেই একই কথা শোনাতে থাকে, 'ভর্তি নেবে না'। সেই সঙ্গে রাস্তায় গাড়ি চালানোর পাশাপাশি চলতে থাকে হুমকি। বাসন্তী দেবীকে পুড়িয়ে মারারও হুমকি দেয় রাহুল।

অভিযোগ পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই পুলিশ অপরাধীর খোঁজে তদন্ত শুরু করে। পরে নিজের বাড়ি থেকেই তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।


মন্তব্য