kalerkantho


সেখানে মুসলমানদের প্রবেশ নিষেধ

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১৩:১০



সেখানে মুসলমানদের প্রবেশ নিষেধ

ছবি: দাঁড়িয়ে আছেন মেয়র (মাঝখানে)

'মুসলিম সংস্কৃতি'র বিরুদ্ধে লড়াইয়ে নেমেছে একটি গ্রাম। সেইসঙ্গে বহু সংস্কৃতির মিশ্রণও রুখতে চায় তারা। এ কারণেই হাঙ্গেরির অ্যাজোথালোম নামের প্রত্যন্ত এক গ্রামে মুসলিম পোশাক পরা, আজান দেয়া, এবং সমকামীদের নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

ওই গ্রামের মেয়র লাৎসলো টোরোৎস্কাই জানান, সাংস্কৃতিক বহুত্ববাদে যারা বিশ্বাসী নন তাদের জন্য এ গ্রামে বসতি স্থাপনের সুযোগ রয়েছে। তারা চান, পশ্চিম ইউরোপ থেকে খ্রিস্টান এবং সাংস্কৃতিক বহুত্ববাদে বিরোধীরা এখানে এসে বসতি স্থাপন করুক।

গ্রামটিতে স্থানীয় আইন জারি করা হয়েছে। এর মাধ্যমে হিজাব, আজান ও সমকামীদের প্রকাশ্য কর্মকাণ্ড নিষিদ্ধ করা হয়। মসজিদ নির্মাণ নিষিদ্ধ করার জন্য আইনে পরিবর্তন আনা হচ্ছে। স্থানীয়দের অনেকেই এই আইনে সমর্থন জানালেও একাধিক আইনজীবী বলেছেন, এসব আইন হাঙ্গেরির সংবিধানের সঙ্গে খাপ খায় না।

রাজধানী বুদাপেস্ট থেকে গ্রামটি দুই ঘন্টার পথ। এখান থেকে হাঙ্গেরি-সার্বিয়া সীমান্ত খুব কাছে।

ইউরোপে অভিবাসী সংকটের সময় ওই সীমান্ত দিয়ে মধ্যপ্রাচ্য থেকে অন্তত ১০ হাজার লোক ইউরোপে ঢুকেছে। সীমান্তের পথে দেখা হাজার হাজার অভিবাসীর কাফেলা এই গ্রামের লোকদের মনে ভয় ধরিয়ে দিয়েছে। তাই অভিবাসী-বিরোধী মানসিকতা গড়ে উঠেছে তাদের। তাই গ্রামের লোকেরা এখন পালা করে সীমান্তে ২৪ ঘণ্টা পাহারা দিচ্ছেন।

এ গ্রামে রয়েছেন মাত্র দুই জন মুসলিম। এসব বিষয়ে সাংবাদিকদের সাথে কথা বলতে চান না। তারা নিকাব পরেন না এবং গ্রামের অন্য লোকদের সাথে তারা মিলেমিশে আছেন বলেই দাবি তাদের।

মেয়র লাৎসলো টোরোৎস্কাইয়ের বক্তব্য হলো, তারা গ্রামের ঐতিহ্য বজায় রাখতে চান। মুসলিমরা এখানে এসে বসতি স্থাপন করলে হবে না। সূত্র: বিবিসি

 


মন্তব্য