kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৭ জানুয়ারি ২০১৭ । ৪ মাঘ ১৪২৩। ১৮ রবিউস সানি ১৪৩৮।


মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে হস্তক্ষেপ

রাশিয়ার বিরুদ্ধে তদন্ত কমিশন গঠনের দাবি ডেমোক্র্যাটদের

নিউ ইয়র্ক প্রতিনিধি    

১১ জানুয়ারি, ২০১৭ ১৬:০৪



রাশিয়ার বিরুদ্ধে তদন্ত কমিশন গঠনের দাবি ডেমোক্র্যাটদের

গত বছর নভেম্বরে মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে সম্ভাব্য রুশ হস্তক্ষেপের বিরুদ্ধে তদন্তের জন্য একটি স্বাধীন কমিশন গঠনের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসে দাবি জানিয়েছেন ডেমোক্র্যাট সদস্যরা। ২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর যুক্তরাষ্ট্রে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা তদন্তে যে ধরনের কমিশন গঠন করা হয়েছিল তেমন একটি কমিশন চান তারা। স্থানীয় সময় গত সোমবার ডেমোক্র্যাটদের পক্ষ থেকে একটি বিলও উত্থাপন করা হয়েছে। অবশ্য এখনও কোনো রিপাবলিকান কংগ্রেস সদস্য ওই বিলে সমর্থন দেননি।

উল্লেখ্য, ২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বরের হামলার পর ওই ঘটনা খতিয়ে দেখতে ও ভবিষ্যতে কী করে একই ধরনের হামলা ঠেকানো যাবে- সে ব্যাপারে সুপারিশ চেয়ে একটি স্বাধীন কমিশন প্রতিষ্ঠা করেছিল কংগ্রেস। ওই কমিশনের অনেক সুপারিশই আইনে পরিণত হয়েছে। মার্কিন নির্বাচনে রুশ হস্তক্ষেপের অভিযোগ খতিয়ে দেখতে এবার তেমনই একটি কমিশন চান ডেমোক্র্যাটরা। সোমবার কংগ্রেসের দুই কক্ষ সিনেট ও হাউসে বিলটি উত্থাপন করা হয়। সিনেটে এর প্রতি সমর্থন দিয়েছেন ১০ জন। আর হাউসে বিলটির প্রতি ডেমোক্র্যাট ককাসের সব সদস্যই সমর্থন দিয়েছেন।

ডেমোক্র্যাটদের প্রস্তাব অনুযায়ী 'প্রটেক্টিং আওয়ার ডেমোক্র্যাসি অ্যাক্ট'র আওতায় ১২ সদস্যের একটি নির্দলীয় ও স্বাধীন ধারার প্যানেল গঠন করতে হবে। সাক্ষীদের জবানবন্দি নেওয়া, কাগজপত্র সংগ্রহ করা, সমন জারি করা, নির্বাচন প্রভাবিত করার ক্ষেত্রে মস্কো এবং অন্যদের প্রচেষ্টার বিষয়টি খতিয়ে দেখতে সরকারি পর্যায়ে সাক্ষ্যগ্রহণের কাজ করবে এ কমিশন। কংগ্রেস সদস্যরা এ প্যানেলের সদস্য হতে পারবেন না। অবশ্য এখন পর্যন্ত বিলটিকে কোনো রিপাবলিকানই সমর্থন না দেওয়ায় তা পাসের সম্ভাবনা খুব ক্ষীণ বলে মনে করা হচ্ছে। কেননা, কংগ্রেসের দুই কক্ষেই রিপাবলিকানদের আধিপত্য রয়েছে।

এদিকে, রুশ প্রেসিডেন্টের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ মস্কোতে সাংবাদিকদের বলেন, "সদ্য সমাপ্ত মার্কিন নির্বাচনকে প্রভাবিত করতে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের নির্দেশে রাশিয়া হ্যাকিং ঘটিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের এ অভিযোগ শুনতে শুনতে রাশিয়া 'ক্লান্ত'। পেসকভ যুক্তরাষ্ট্রের এ অভিযোগকে 'উইচ-হান্ট' হিসেবে উল্লেখ করেছেন। " তিনি জানান, যুক্তরাষ্ট্রের এ অভিযোগ ভিত্তিহীন। মার্কিন নির্বাচনে ঘটা হ্যাকিংয়ে রাশিয়া কোনওভাবেই জড়িত ছিল না।

গত সপ্তাহে নিউ ইয়র্ক টাইমসকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ট্রাম্পও হ্যাকিংয়ের ঘটনাকে উইচ-হান্ট হিসেবে আখ্যায়িত করেছিলেন। অভিযোগ ওঠার পর থেকেই ট্রাম্প হ্যাকিংয়ে রুশ সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ অস্বীকার করে আসছিলেন। তবে রবিবার ট্রাম্পের সম্ভাব্য চিফ অব স্টাফ রেইন্স প্রিয়েবাস জানান, হ্যাকিং নিয়ে মার্কিন গোয়েন্দাদের প্রতিবেদন মেনে নিয়েছেন তিনি। তবে তিনি এটা জানাননি যে, ট্রাম্প হ্যাকিংয়ে রাশিয়ার জড়িত থাকার বিষয়টি মেনে নিয়েছেন কিনা।


মন্তব্য