kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ড্রাগন ও হাতি এক সঙ্গে মিলে বিশ্ব শাসন করতে পারে: চীন

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৩ অক্টোবর, ২০১৬ ২৩:৪১



ড্রাগন ও হাতি এক সঙ্গে মিলে বিশ্ব শাসন করতে পারে: চীন

চীনের সর্বক্ষণের মিত্র পাকিস্তানের সঙ্গে ভারতের তুমুল টানাপড়েনের মাঝেই ভারতের সঙ্গে সুসম্পর্কের উপর জোর দিল চীন। নয়াদিল্লির চীনা দূতাবাসে নিযুক্ত এক শীর্ষ কূটনীতিক বললেন, গত কয়েক বছর ধরে ভারত-চীন দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কে উল্লেখযোগ্য উন্নতি হয়েছে।

চীন-ভারত হাত মিলিয়ে চললে এশিয়া মহাদেশ গোটা বিশ্বকে শাসন করার ক্ষমতা রাখে, ইঙ্গিত চীনা কূটনীতিকের মন্তব্যে।

বৃহস্পতিবার দিল্লিতে চীন সংক্রান্ত বিভিন্ন বইয়ের একটি সম্পাদকীয় দফতরের উদ্বোধন করেছেন নয়াদিল্লির চীনা দূতাবাসের মিনিস্টার কাউন্সেলর চেং গুয়াংঝং। সেই অনুষ্ঠানে ভাষণ দিতে গিয়ে চেং বলেন, ‘ড্রাগন’ এবং ‘হাতি’ এক সঙ্গে হাতে হাত রেখে নাচতে পারে। চেং বলেন, ‘নিজস্ব বৈশিষ্ট্যগুলি ধরে রেখেও সহযোগিতার সাধারণ ক্ষেত্র খুঁজে নিতে ভারত ও চীনের মধ্যে সাংস্কৃতিক আদান-প্রদান ও আলোচনা অত্যন্ত জরুরি বিষয়। পৃথিবীর দুই প্রাচীনতম সভ্যতা ভারত ও চীন পরস্পরের দৈত্যাকার প্রতিবেশী হিসেবেও শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানের পথ খুঁজে নিতে দারুণভাবে সক্ষম। ’

চেং-এর কথায়, যে নেতারা ভারত-চীন মৈত্রীর উপর জোর দিয়ে এসেছেন, তাঁরা বার বারই বলেছেন, ভারত এবং চীন, দু’দেশই যখন উন্নত হয়ে উঠবে এবং পরস্পরের সঙ্গে হাত মিলিয়ে চলবে, তখনই প্রকৃত ‘এশীয় যুগ’ শুরু হবে। ভারত-চীন মৈত্রী শুধু এশিয়াকে নয়, গোটা বিশ্বকে নেতৃত্ব দেয়ার ক্ষমতা রাখে বলেও চীনা কূটনীতিক এ দিন মন্তব্য করেন। গোটা এশিয়ায় শান্তি ও স্থিতিশীলতা ধরে রাখার এবং এশিয়ার সমৃদ্ধি ফিরিয়ে আনার ঐতিহাসিক দায়িত্ব ভারত এবং চীনেরই, মন্তব্য চেং‌ গুয়াংঝং-এর।

চীন-ভারত দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কে টানাপড়েনের বিষয় একাধিক। তবে সাম্প্রতিক সময়ে পাকিস্তানই চীন-ভারত সুসম্পর্কের পথে সবচেয়ে বড় কাঁটা। পাকিস্তানের আবদার মেনে ভারতের এনএসজি-প্রবেশের পথে কাঁটা বিছিয়েছে চীন। জইশ-প্রধান মাসুদ আজহারের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞা আদায় করার যে চেষ্টা ভারত চালাচ্ছে, তাও একাধিক বার আটকে দিয়েছে চীন। ভারত-পাকিস্তানের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কে এখন যে তুমুল উত্তপ্ত পরিস্থিতি, তার প্রেক্ষিতেও চীন পাকিস্তানের দিকেই ঝুঁকে থাকার ইঙ্গিত দিয়েছে। কিন্তু সে সবের মাঝেই চীনা কূটনীতিক বৃহস্পতিবার যে ভাবে ড্রাগন আর হাতির মৈত্রীর প্রশ্নে বার বার জোর দিলেন, তাকে বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করছেন ভারতীয় কূটনীতিকরা।

সূত্র: আনন্দবাজার


মন্তব্য