kalerkantho

রবিবার। ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ইউরোপজুড়ে সহিংস অপরাধী এবং ডাকাতদের দলে ভেঁড়াচ্ছে আইএস

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১১ অক্টোবর, ২০১৬ ১৭:১৫



ইউরোপজুড়ে সহিংস অপরাধী এবং ডাকাতদের দলে ভেঁড়াচ্ছে আইএস

“অনেক সময় বাজে অতীত সম্বলিত লোকেরা সবচেয়ে সুন্দর ভবিষ্যত তৈরি করে”, এমনই স্লোগান লেখা ছিল কালাশনিকভ রাইফেল হাতে মুখোশ পরিহিত এক জঙ্গীর ছবিতে। ছবিটি ফেসবুকে ছড়িয়ে দিয়েছে ইরাক ও সিরিয়া ভিত্তিক ইসলামি জঙ্গি সংগঠন আইএস এর ব্রিটেন শাখা।

রায়াত আল-তাওহীদ নামের ওই সংগঠনটি লন্ডন থেকে “ব্যানার অফ গড” নামে এই প্রচারণা চালাচ্ছে।
অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড, মাদক বা ডাকাত দল থেকে মুক্ত হয়ে নিজেদের আত্মার সংরক্ষণ করতে চাইছে এমন যুবাদের টার্গেট করে এই প্রচারণা চালাচ্ছে জঙ্গি সংগঠনটি।
নতুন এক গবেষণায় দেখা গেছে, আইএস জঙ্গি গোষ্ঠীর সদস্যদের বেশিরভাগেরই ভয়ানক অপরাধমূলক অতীত রয়েছে।
ইন্টারন্যাশনাল সেন্টার ফর দ্য স্টাডি অফ র‌্যঅডিকালাইজেশন (আইসিএসআর) এর এক প্রতিবেদনে দেখা গেছে, ইউরোপজুড়ে বিস্তৃত অপরাধী আর সন্ত্রাসী নেটওয়ার্কগুলোর সদস্যরা মিলে বিপজ্জনক একটি জিহাদি দল তৈরি করছে। এদের কাছে সহিংসতা শুধু পবিত্রতা অর্জনের উপায়ই নয় বরং জীবন-যাপনের একটি ধরনও বটে।
আইসিএসআর এর পরিচালক লন্ডনের কিংস কলেজের অধ্যাপক পিটার নিউম্যান বলেন, নতুন এই “অপরাধ-সন্ত্রাস নেক্সাস” ইউরোপীয় নিরাপত্তা সংস্থাগুলোর জন্য চরমপন্থাকে মোকাবিলার বিষয়টিকে আরো কঠিন করে তুলছে।
গবেষণায় দেখা গেছে, ইউরোপের আইএস সদস্যদের শুধু অপরাধমূলক অতীতই নয় বরং ভয়ানক সহিংস অতীত রয়েছে। আর ইউরোপীয় আইএস যোদ্ধাদের এক তৃতীয়াংশই পুলিশের পূর্ব-পরিচিত মুখ।
আইএসএ যোগ দিয়ে এরা আগে যা করত তাই করছে। ব্যাতিক্রম শুধু এতোটুকুই, এখন তারা তাদের কাজের বিনিময়ে বেহেশতে যাওয়ার প্রতিশ্রুতি পাচ্ছে।
আইএস সদস্য সংগ্রহের ক্ষেত্রে আল কায়েদাসহ আগের সব ইসলামি জঙ্গি সংগঠনকে ছাপিয়ে গেছে। ইসলাম জঙ্গি সংগঠনগুলো সদস্য সংগ্রহের ক্ষেত্রে ধর্মীয় জ্ঞানকেই প্রাধান্য দিত। কিন্তু আইএস শুধু সংগঠনের প্রতি সদস্যদের আনুগত্য চায়।
আইএস এই পদ্ধতির মাধ্যমে মূলধারার ইসলাম এবং এমনকি সালাফীপন্থীদেরকেও প্রত্যাখ্যান করছে। এরা ইসলামের সম্পূর্ণতই এক নতুন ও বিকৃত ব্যাখ্যা হাজির করছে।
“আইএস বলতে চায়, তুমি আমাদের সঙ্গে অনায়াসেই যোগ দিতে পার যদি তুমি আমাদের মিশনের সঙ্গে একমত পোষণ কর। সত্যিকার ইসলাম ধর্ম কী সে সম্পর্কে তুমি কিছু জান কিনা তাতে আমাদের কিছুই যায় আসে না। কারণ আমরাই সত্যিকার ইসলাম”।
বেলজিয়ামের সন্ত্রাসবিরোধী সংস্থার সিনিয়র সদস্য অ্যালাইন গ্রিগনার্ড বলেন, “আগে আমরা ‘চরমপন্থী ইসলামবাদি’দের মোকাবেলা করতাম। আর এখন আমাদেরকে ‘ইসলামিকৃত চরমপন্থী’দের মোকাবিলা করতে হচ্ছে। অর্থাৎ আগে ইসলামের ভুল ব্যাখ্যা দিয়ে লোককে চরমপন্থী বানানো হত। আর এখন আগে থেকে চরমপন্থী ও সহিংস হয়ে থাকা লোকদেরকে ইসলামি সন্ত্রাসবাদে যুক্ত করা হচ্ছে।
সূত্র: দ্য ইন্ডিপেন্ডেন্ট


মন্তব্য