kalerkantho

সোমবার । ৫ ডিসেম্বর ২০১৬। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ক্লিনটনের জীবনকে নরক বানিয়ে দেবেন ট্রাম্প

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১০ অক্টোবর, ২০১৬ ২০:৩৮



ক্লিনটনের জীবনকে নরক বানিয়ে দেবেন ট্রাম্প

যুক্তরাষ্ট্রের আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রিপাবলিকান দলের প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প সম্প্রতি প্রকাশিত নারীদের নিয়ে তার বেফাঁস মন্তব্যের পক্ষে সাফাই গেয়েছেন। তিনি ডেমোক্রেটিক দলের প্রার্থী হিলারি ক্লিনটন ও তার স্বামী বিল ক্লিনটনকেও তীব্র ভাষায় আক্রমণ করেছেন।

রিপাবলিকান প্রার্থী এমনকি নারীদের যৌন হয়রানির কথা অস্বীকার করেছেন। তবে তিনি এ ব্যাপারে সাবেক প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটনের দিকে অগ্নিবাক্য ছুঁড়ে দেন। এছাড়াও ক্লিনটনের জীবন অতিষ্ঠ করে দেবেন, নরক বানিয়ে দেবেন এটাই তাঁর মিশন বলে জানিয়েছেন।   খবর সিএনএন-এর।
হিলারির সঙ্গে দ্বিতীয় নির্বাচনী বিতর্কে তিনি বলেন, রাজনীতির ইতিহাসে তার মতো আর কোনও ব্যক্তি নেই যিনি নারীদের এত অপব্যবহার করেছেন।
এ সময় হিলারি ক্লিনটন তার স্বামীর ব্যাপারে ট্রাম্পের মন্তব্যের জবাব দিতে অস্বীকৃতি জানান।
স্থানীয় সময় রোববার সন্ধ্যায় (বাংলাদেশ সময় সোমবার সকাল) সেন্ট লুইসের ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয়ে দুই প্রার্থীর মধ্যে পূর্বনির্ধারিত এ বিতর্ক অনুষ্ঠিত হয়।
সিএনএনসহ অধিকাংশ মার্কিন টিভি নেটওয়ার্ক ও ইন্টারনেটে ৯০ মিনিট স্থায়ী এই বিতর্ক সম্প্রচার করা হয়। এই বিতর্ক ছিল ট্রাম্পের জন্য অনেকটা বাঁচা-মরার লড়াই।
বিতর্ক অনুষ্ঠানের সঞ্চালক অ্যান্ডারসন কুপার ২০০৫ সালে ধারণ করা নারীদের নিয়ে ট্রাম্পের মন্তব্যের বিষয়টি উত্থাপন করলে রিপাবলিকান এ প্রার্থী ক্লিনটন দম্পতিকে তীব্র ভাষায় আক্রমণ করেন।
শুক্রবার ওয়াশিংটন পোস্টে প্রচারিত ওই ভিডিও টেপে দেখা গেছে ট্রাম্প সগর্বে এক বিবাহিত নারীর সঙ্গে যৌন সম্পর্ক স্থাপনের চেষ্টার বর্ণনা দিচ্ছেন। সুন্দরী নারী দেখলেই তিনি চুমু খাওয়ার চেষ্টা করেন বলেও জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘তারকা হলে পুরুষ নারীর সঙ্গে যা ইচ্ছা তা-ই করতে পারে। ’
তবে কোন নারীর সঙ্গে অসদাচরণ করেছেন কিনা সঞ্চালকের এমন প্রশ্নের জবাবে ট্রাম্প এমন আচরণের কথা প্রত্যাখান করেন। এর পরিবর্তে তিনি হিলারি ক্লিনটনের স্বামী সাবেক প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটনের যৌন কেলেঙ্কারি এবং হিলারি ক্লিনটনের ব্যক্তিগত ই-মেইল নিয়ে আক্রমণাত্মক হয়ে ওঠেন।
হিলারি ক্লিনটনও জোরালো ভাষায় এর জবাব দেন। সম্প্রতি ডোনাল্ড ট্রাম্প নারীদের সম্পর্কে যে মন্তব্য করেছেন তার উল্লেখ করে হিলারি ক্লিনটন বলেন, ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট হওয়ার যোগ্য নন।
তিনি বলেন, নারীদের নিয়ে তার মন্তব্য প্রমাণ করে ট্রাম্প কেমন ব্যক্তি।
ট্রাম্প বলেন, তিনি নির্বাচিত হলে হিলারির ঘটনা তদন্তে একজন বিশেষ প্রসিকিউটর নিয়োগ দেবেন এবং ব্যক্তিগত ই-মেইল চালাচালির জন্য তাকে কারাগারে যেতে হবে।
জবাবে হিলারি বলেন, ট্রাম্প এতক্ষণ যা বলেছেন তা সম্পূর্ণ মিথ্যা। তবে আমি বিস্মিত নই। কারণ ট্রাম্পের মত স্বভাবের একজন মানুষ দেশের আইনসভার ভার নিতে পারেন না।
জবাবে ট্রাম্প বলেন, তাতো বটেই, কারণ আপনাকে তো তাহলে জেলে যেতে হবে। তিনি আরো বলেন, হিলারির হৃদয় ঘৃণা ও বিদ্বেষপূর্ণ।
দুই প্রার্থী সিরিয়া ও রাশিয়ার আগ্রাসন নিয়েও বিতর্কে জড়ান। ডেমোক্রেটিক দলের প্রার্থী হিলারি ক্লিনটন এবং রিপাবলিকান দলের প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প পরস্পরের প্রতি যেভাবে ব্যক্তিগত বিদ্বেষপূর্ণ এবং আক্রমণাত্মক ভাষা ব্যবহার করেছেন, সেটি অনেকটা নজিরবিহীন।
মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ইতিহাসে এতটা বিদ্বেষপূর্ণ টেলিভিশন বিতর্ক অনেকেই এর আগে কখনো দেখেননি।
পুরো বিতর্ক এতোটাই আক্রমণাত্মক এবং পরস্পরের প্রতি বিদ্বেষপূর্ণ ছিল যে, শেষ পর্যন্ত একজন দর্শক দু'জন প্রার্থীকে পরস্পরের ভালো দিক কী আছে সে সম্পর্কে প্রশ্ন করেন।
তখন ট্রাম্প বলেন , ‘তিনি (হিলারি ক্লিনটন) কখনো হাল ছাড়েন না। তিনি শেষ পর্যন্ত লড়াই করে যান। তিনি বেশ লড়াকু একজন মানুষ।
হিলারি ক্লিনটন বলেন, তিনি ডোনাল্ড ট্রাম্পের সন্তানদের পছন্দ করেন। তিনি বলেন, ট্রাম্প যা কিছু করেন, আমি তার প্রায় সবগুলোর সাথেই একমত না। কিন্তু তার সন্তানরা অসাধারণ।
প্রায় দেড় ঘণ্টার এ বিতর্কে উভয় প্রার্থী প্রায় ৪০ মিনিট করে সময় পান।


মন্তব্য