kalerkantho

রবিবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


পাকিস্তানে অনার কিলিং ও ধর্ষণবিরোধী আইন পাস

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৭ অক্টোবর, ২০১৬ ১১:৫৩



পাকিস্তানে অনার কিলিং ও ধর্ষণবিরোধী আইন পাস

'অনার কিলিং' তথা পরিবারের সম্মান রক্ষার নামে হত্যা ও ধর্ষণবিরোধী বিল পাস করল পাকিস্তান। বৃহস্পতিবার পাকিস্তানের পার্লামেন্টের এক যৌথ অধিবেশনে সর্বসম্মতিক্রমে বিলগুলো পাস হয়।

আর এর মধ্য দিয়ে বিলগুলো আইনে পরিণত হতে আর বাধা থাকল না। পরিবারের সম্মান রক্ষার নামে ভাইয়ের হাতে দেশটির এক ফেসবুক তারকা খুন হওয়ার তিন মাস পর পাকিস্তানে এমন আইন পাস হলো।

উল্লেখ্য, পাকিস্তানে তথাকথিত 'অনার কিলিং' বা সম্মানহানির ঘটনায় হত্যাকাণ্ড প্রায়ই ঘটছে। প্রতিবছর দেশটিতে কয়েক শ নারী তথাকথিত অনার কিলিংয়ের শিকার হন।

গত জুনের শুরুর দিকে লাহোরে জিনাত বিবি নামের ১৬ বছর বয়সী এক তরুণী প্রেম করে বিয়ে করায় তাকে হত্যা করে তার মা। এর পরপর লাহোরে আরেক দম্পতি খুন হন বাড়ির অমতে বিয়ে করায়। এ ধরনের ঘটনায় আইনের ফাঁক গলে অর্থাৎ পরিবারের সদস্যরা ক্ষমা করে দিলে অপরাধীরা পার পেয়ে যেত। গত বছরেই ফৌজদারি আইনে সংশোধনী এনে সিনেটে অ্যান্টি অনার কিলিং আইন ২০১৫ এবং অ্যান্টি রেপ বিল ২০১৫ উত্থাপন করা হয়। তবে সে সময় জাতীয় পরিষদে আইন দুটি পাস করতে ব্যর্থ হয় সে দেশের সরকার।

তবে সে ব্যর্থতা ঘুচিয়ে বৃহস্পতিবার দেশটির জাতীয় পরিষদে দীর্ঘ প্রতীক্ষিত এই আইন পাস হয়েছে। এতে হত্যাকারীর যাবজ্জীবন সাজার বিধান রাখা হয়েছে। হত্যার শিকার হওয়া ব্যক্তির পরিবার ক্ষমা করে দিলেও হত্যাকারী ওই সাজা থেকে মুক্তি পাবে না। অপরাধীকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হলে সে ক্ষেত্রে ভুক্তভোগীর পরিবার যদি ক্ষমা করে তবে তার দণ্ড মওকুফ হতে পারে। কিন্তু সে ক্ষেত্রেও অপরাধীকে বাধ্যতামূলকভাবে সাড়ে ১২ বছরের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ভোগ করতে হবে।

ধর্ষণবিরোধী আইনে মামলার রায় তিন মাসের মধ্যে দেওয়ার বিধান রাখা হয়েছে এবং ছয় মাসের মধ্যে আপিল করার সুযোগ থাকবে। এ ক্ষেত্রে অপরাধীর জন্য ২৫ বছরের কারাদণ্ড বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।


মন্তব্য