kalerkantho

সোমবার । ৫ ডিসেম্বর ২০১৬। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


'প্রতিবন্ধী' শব্দটাকে থাপ্পড় মেরে শ্রদ্ধা 'সক্ষম'দের ক্রিকেট টিমে

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৫ অক্টোবর, ২০১৬ ২১:৩১



'প্রতিবন্ধী' শব্দটাকে থাপ্পড় মেরে শ্রদ্ধা 'সক্ষম'দের ক্রিকেট টিমে

এ যেন হুবহু সেলুলয়েডের 'ইকবাল' ছবির বাস্তব কোনও গল্প! জন্ম থেকেই সে মূক ও বধির। তবু সে কথা বলে।

তার ভাষা হল ক্রিকেট। তার বলের দুরন্ত গতিই জানান দেয়, প্রতিভার ভাষা আসলে প্রতিভাই। স্রেফ দুর্দান্ত বোলিংকেই হাতিয়ার করে ভারতের ছত্তিশগড় মহিলা ক্রিকেট দলে জায়গা করে নিলেন মূক ও বধির শ্রদ্ধা বৈষ্ণব। শ্রদ্ধাই ভারতের প্রথম মহিলা প্রতিবন্ধী ক্রিকেটার, যিনি একটি রেগুলার মহিলা ক্রিকেট দলের সদস্য।
ছত্তিশগড়ের বিলাসপুর শহরের মেয়ে শ্রদ্ধা জন্ম থেকেই মূক ও বধির। কিন্তু প্রতিভা এক সময় প্রকাশ পাবেই। মেয়ের ক্রিকেট-প্রেম দেখে বাবা রমেশ বৈষ্ণব শ্রদ্ধাকে ভর্তি স্থানীয় ক্রিকেট কোচিং সেন্টারে। সেই গল্প শোনালেন তাঁর বাবা। রমেশের কথায়, 'তখন শ্রদ্ধার বয়স ১৩। ভাইয়ের সঙ্গে ক্রিকেট দেখত খুব। একদিন আমায় জানাল, আমি বল করব। আমি স্থানীয় একটি ক্রিকেট কোচিং সেন্টারে ভর্তি করে দিলাম। কয়েক মাসের মধ্যেই শ্রদ্ধা হয়ে উঠল দুর্দান্ত স্পিনার। '
ধীরে ধীরে মিডিয়াম পেস বোলিংয়েও নিজের প্রতিভা দেখাতে শুরু করে শ্রদ্ধা। শ্রদ্ধার কোচ মোহন সিং ঠাকুরের কথায়, 'প্রতিবন্ধকতাকেই শক্তি বানিয়ে ফেলেছে। ও শুরু করেছিল স্পিনার হিসেবে, এখন দারুণ ফাস্ট বোলার। '
ছত্তিশগড় মহিলা ক্রিকেট দলে এখন সবচেয়ে ভালো বোলারের তকমা পেয়ে গিয়েছেন শ্রদ্ধা। 'প্রথম প্রথম বক্তব্য বুঝতে অন্যান্য প্লেয়ারদের একটু অসুবিধে হচ্ছিল। শ্রদ্ধারও অসুবিধে হত। কিন্তু এখন মাঠে ওর বল-ই কথা বলে। ', বললেন ছত্তিশগড় স্টেট ক্রিকেট-এর প্রেসিডেন্ট বলদেও সিং।
এর আগে ভারতের প্রথম প্রতিবন্ধী ক্রিকেটার হিসেবে বিহারের হয়ে রঞ্জি খেলেছিলেন অঞ্জন ভট্টাচার্য। ১৯৭০ সালে রঞ্জির ডেবিউ ম্যাচেই ২৪ রান দিয়ে ৭ উইকেট তুলেছিলেন অঞ্জন। - সূত্র : এই সময়


মন্তব্য