kalerkantho

সোমবার । ৫ ডিসেম্বর ২০১৬। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ডয়চে ভেলের প্রতিবেদন

সেল্ফি তুলতে গিয়ে বাড়ছে মৃত্যুর ঘটনা

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২ অক্টোবর, ২০১৬ ১৭:১৬



সেল্ফি তুলতে গিয়ে বাড়ছে মৃত্যুর ঘটনা

স্মার্টফোনের এই যুগে সেল্ফি তোলাটা যেন একটা আসক্তি৷ আর এই আসক্তি হতে পারে বিপজ্জনক৷ ভারতে গত কয়েক বছরে সেল্ফি তুলতে গিয়ে মৃত্যুর ঘটনা বেড়েই চলেছে৷
গত সপ্তাহে ভারতের রাজস্থানে বিশাল এক সাপের সঙ্গে সেল্ফি তোলার শখ হয়েছিল এক ব্যক্তির৷ সেল্ফি তোলার সময় সাপটা ঐ ব্যক্তির কাঁধে ছোবল মারে৷ ঐ ব্যক্তির ভাগ্য ভালো থাকায় বেঁচে যান৷ কিন্তু সবার ভাগ্য কি এত সুপ্রসন্ন হয়! ভারত জুড়ে এমন মৃত্যুর বেশ কিছু ঘটনা ঘটেছে৷ তবে কেবল ভারত নয়, দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোতে সেল্ফি তুলতে গিয়ে মৃত্যুর ঘটনা বাড়ছে৷
সেল্ফি যাতে খুব সুন্দর হয় সেজন্য অনেক মানুষ বিপদকে উপেক্ষা করে অনেক জায়গায় বা পরিস্থিতে চলে যায়৷ যেমন রেল লাইনের উপর দাঁড়িয়ে চলন্ত ট্রেনের সঙ্গে সেল্ফি অথবা সমুদ্রের একেবারে গভীরে গিয়ে সেল্ফি বা পর্বতের চূড়ায় উঠে সেল্ফি৷ চলতি বছরের মে মাসে পাঞ্জাবে মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে সেল্ফি তুলতে গিয়ে এক কিশোর ছবির বোতাম টিপতে গিয়ে ভুল করে ট্রিগার টিপে দেয়৷ ফলাফল মৃত্যু৷
জুলাই মাসে এক ব্যক্তি গঙ্গা নদীতে সেল্ফি তুলতে গিয়ে ডুবে যায়, আর তাঁকে বাঁচাতে গিয়ে সাত বন্ধু নদীতে ডুবে প্রাণ হারায়৷ সেপ্টেম্বরের প্রথম সপ্তাহে তেলেঙ্গানায় একটি পাথরের উপর দাঁড়িয়ে সেল্ফি তোলার চেষ্টা করছিল ছয় ছাত্রী৷ এক ছাত্রী সেখান থেকে লেকে পড়ে যায়, বাকিরা তাকে বাঁচাতে গিয়ে মারা যায়৷
নতুন দিল্লির সমাজবিজ্ঞানের অধ্যাপক সঞ্জয় শ্রীবাস্তব ডয়চে ভেলেকে জানান, ‘‘ভারতে সেল্ফি তোলার যেন হিড়িক পড়েছে৷ তরুণ প্রজন্ম একে অপরকে ‘ইমপ্রেস', মানে মুগ্ধ করতে সেল্ফি তোলে৷ এমনকি বিপদেরও পরোয়া করে না তারা৷'
সবাই বিখ্যাত হতে চায়
সাম্প্রতিক এক গবেষণা বলছে, ১৮ থেকে ২৪ বছর বয়সিদের মধ্যে সেল্ফি তোলার প্রবণতা বেশি৷ মানুষের আচার-আচরণ নিয়ে কাজ করেন কুলদ্বীপ সিং৷ তিনি ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘বর্তমানে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম আমাদের জীবনকে নিয়ন্ত্রণ করছে৷ বড় বড় শহরগুলোতে তরুণ প্রজন্ম মানুষের মনোযোগ আকর্ষণ করতে আগ্রহী৷ তারা প্রত্যেকেই বিখ্যাত হতে চায়৷ আর সে কারণেই সেল্ফি তোলে৷''
যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক মিডিয়া সংস্থা নিউজগ্রাম বলছে, সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে মানুষের দৃষ্টি আকর্ষণ করতেই বিপজ্জনক স্থানে সেল্ফি তোলার হিড়িক বাড়ছে৷ তাই কেবল বিপজ্জনক স্থানে বা পরিস্থিতিতেই নয়, বিষধর সাপ এমনকি প্রাণীর সঙ্গে সেল্ফি তুলতে আগ্রহী তারা৷
সংস্থাটি বলছে, ‘এর ফলে প্রায়ই ভয়াবহ দুর্ঘটনা ঘটছে, আহতও হচ্ছে অনেকে৷ সবচেয়ে দুঃখজনক হলো এই ধরনের সেল্ফি মৃত্যু ডেকে আনছে৷'
নিরাপদ সেল্ফি
ভারতে, সেল্ফি তোলার জন্য স্মার্টফোনের বিক্রি হু হু করে বেড়েই চলেছে৷ আগামী বছরে এই বিক্রি যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে স্মার্টফোনের বিক্রিকে ছাড়িয়ে যাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে৷ ২০১৬ সালের শেষ নাগাদ ভারতে স্মার্টফোন ব্যবহারকারীর সংখ্যা দাঁড়াবে ২২ কোটিরও বেশি৷ তাই সরকার জনসাধারণকে স্মার্টফোন ব্যবহারে সচেতন করে তুলতে বেশ কিছু পদক্ষেপ নিয়েছে৷ বিশেষ করে পর্যটন এলাকাগুলোতে স্মার্টফোন ব্যবহারে বিশেষ বিশেষ দিক নির্দেশনা দেয়ার পরিকল্পনা করছে সরকার৷


মন্তব্য