kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ভারত-পাকিস্তানকে আলোচনায় বসার আহ্বান চীনের

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৩০ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২৩:২৮



ভারত-পাকিস্তানকে আলোচনায় বসার আহ্বান চীনের

হ্যাঁ, চীনও বলছে কাশ্মীর নিয়ে ঝগড়াটা কামানের গোলায় না উড়িয়ে আলোচনার টেবিলে বসেই মেটাক ভারত ও পাকিস্তান। কাশ্মীর ইস্যুতে তার সমর্থনের পাল্লাটা যে ইসলামাবাদের দিকেই কিছুটা ঝুঁকে, তা বোঝাতে দ্বিধা না করলেও, উরি হামলা আর সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের পর গুলিযুদ্ধ যাতে আর বেশি দূর না গড়ায়, ভারত আর পাকিস্তান, দু’টি দেশকেই তার ওপর নজর রাখতে বলেছে বেজিং।

বিষয়টা আলোচনার টেবিলেই দু’টি দেশকে মেটানোর আর্জি জানিয়েছে ব্রিটেন, বাংলাদেশ, আফগানিস্তানও।

বেজিংয়ে চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র গেঙ শুয়াঙ বলেছেন, ‘আলাদা আলাদাভাবে বিভিন্ন দিক দিয়ে ভারত ও পাকিস্তান, দু’টি দেশের সঙ্গেই আমরা আলাপ-আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছি, যাতে বিষয়টা ভালয়-ভালয় মিটে যায়। দু’টি দেশকেই সংযত হওয়ার অনুরোধ জানানো হয়েছে। আমাদের আশা, দু’টি দেশই আবার নিজেদের মধ্যে যোগাযোগ গড়ে তুলে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব মতবিরোধগুলি মিটিয়ে ফেলার চেষ্টা করবে। কাশ্মীর ইস্যুতে পাকিস্তানের অবস্থানকে আমরা মর্যাদা দিলেও চাইব, উপমহাদেশে শান্তি ও নিরাপত্তার স্বার্থে আবার হাত মিলিয়ে নেবে দু’টি দেশ। ’

চীনের মন্তব্যে কাশ্মীর প্রশ্নে পাকিস্তানের দিনে সমর্থনের পাল্লাটা ঝুঁকিয়ে রাখার আপাত চেষ্টা থাকলেও, ব্রিটেন কোনো পক্ষপাত দেখায়নি। ব্রিটিশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বলেছেন, ‘আমরা দু’টি দেশের কাছেই সংযত থাকার আর্জি জানিয়েছি। দু’টি দেশের সঙ্গেই আলাদা আলাদাভাবে কথাবার্তা চালিয়েও যাচ্ছি। ’

অন্যদিকে, বাংলাদেশের সমর্থনের পাল্লাটা প্রত্যাশিতভাবেই, একটু বেশি ঝুঁকে রয়েছে ভারতের দিকে। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী ভারতের সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের প্রেক্ষিতে বলেছেন, ‘ভারত আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত অধিকারেরই সদ্ব্যবহার করেছে। কোনো অনৈতিক কাজ করেনি। বরং অন্য দেশটি (পাকিস্তান) আইন ভেঙে ভারতে ঢোকার চেষ্টা করেছিল। ভারতের সার্বভৌমত্বের ওপর আঘাত হেনেছিল অনৈতিকভাবে। ’

ওদিকে, শ্রীলঙ্কা জানাল, সার্ক শীর্ষ সম্মেলনের পরিস্থিতি এখন নেই। এর জন্য সব রকমের সন্ত্রাসবাদই দায়ী।

আলাদাভাবে আমেরিকার তরফে কোনো সরকারি প্রতিক্রিয়া না জানানো হলেও ভারত সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের কথা আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা করার কয়েক ঘণ্টা আগে মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা সুসান রাইস ইসলামাবাদে টেলিফোন করে শরিফ প্রশাসনকে জঙ্গি দমনে তড়িঘড়ি আরও কড়া ব্যবস্থা নিতে বলেছিলেন।

সূত্র: আনন্দবাজার


মন্তব্য