kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০১৬। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


যুদ্ধ হলে প্রাণ যাবে ২ কোটির, অনাহারে ভুগবে ২০০ কোটি!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৩০ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২১:২০



যুদ্ধ হলে প্রাণ যাবে ২ কোটির, অনাহারে ভুগবে ২০০ কোটি!

উরি হামলার বদলা নিতে নিয়ন্ত্রণরেখা পেরিয়ে আঘাত হেনেছে ভারতীয় সেনা। পাল্টা প্রত্যাঘাতের হুমকি দিয়ে রেখেছে পাকিস্তানও।

তারা আবার পরমাণু অস্ত্র প্রয়োগের হুঁশিয়ারি দিয়েছে। যে কোনও মুহূর্তে যুদ্ধ লেগে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। সেই আশঙ্কায় সীমান্ত এলাকা ছেড়ে পালাতে শুরু করেছেন লাখো লাখো মানুষ। এই মুহূর্তে যদি দুই প্রতিবেশী দেশের যুদ্ধ লাগে, তবে ঠিক কী হতে পারে?

পরমাণু শক্তিধর রাষ্ট্র ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে যুদ্ধ বাধলে পরমাণু অস্ত্রের ব্যবহার হওয়াটা অস্বাভাবিক কিছু নয়। LOC পেরিয়ে সেনা অভিযানের পর পরমাণু যুদ্ধের আর্জি জানিয়েছেন শাসক দলের এক সংসদ সদস্য। পাকিস্তানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রীও ভারতকে জবাব দিতে পরমাণু হামলার হুমকি দিয়েছেন। এই অবস্থায় ২০০৭ সালে তিনটি মার্কিন বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষজ্ঞদের আগাম সতর্কতার কথা ফের স্মরণে চলে আসছে। তাঁরা বলেছিলেন, দু দেশের মিলিত পরমাণু অস্ত্রসম্ভারের অর্ধেক অর্থাৎ‌ ১০০টি অস্ত্রের প্রয়োগ করা হলে প্রাণ যাবে অন্ততপক্ষে দু কোটিরও বেশি মানুষের। মিলিয়ে যাবে গোটা বিশ্বের প্রায় অর্ধেক ওজোন স্তর। আর 'পারমাণবিক শৈত্য'-এর প্রভাবে বিশ্বজুড়ে ক্ষতিগ্রস্ত হবে মৌসুমী আবহাওয়া, মার খাবে কৃষিকাজ।

দিন কয়েক আগেই রাজ্যসভায় বিজেপি সাংসদ সুব্রহ্মণ্যম স্বামী বলেছিলেন, যদি পাকিস্তানের পরমাণু হামলায় ১০ কোটি মানুষের মৃত্যু হয়, তাহলে ভারতের হামলায় ধুয়ে মুছে যাবে পাকিস্তান। তবে বাস্তবক্ষেত্রে ক্ষয়ক্ষতিটা আরও অনেক ব্যাপক ও বৃহত্তর হবে বলে মনে করছেন বিশেজ্ঞরা এবং তার প্রভাব শুধু ভারত বা পাকিস্তানেই নয়, পুরো গ্রহের ওপরই পড়বে বলে তাঁদের আশঙ্কা।

রাটগারস বিশ্ববিদ্যালয়, কলোরাডো-বোল্ডার বিশ্ববিদ্যালয় ও ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা ২০০৭ সালে বলেছিলেন, ভারত-পাক পরমাণু যুদ্ধ হলে বিস্ফোরণের তীব্রতা ও রেডিয়েশনের জেরে প্রথম সপ্তাহেই মৃত্যু হবে ২.১ কোটি মানুষের। গোটা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে যে পরিমাণ প্রাণহানি হয়েছিল, এই সংখ্যাটা তার অর্ধেক। ২০১৫ সাল পর্যন্ত গত নয় বছরে নাশকতার কারণে ভারতে যত লোক মারা গিয়েছেন, এই সংখ্যাটা তার থেকে ২,২২১ গুণ বেশি। এ ছাড়াও এই যুদ্ধের প্রভাবে আবহাওয়ার যে পরিবর্তন হবে, তার জেরে বিশ্বজুড়ে প্রায় ২০০ কোটি মানুষ অনাহারে ভুগবেন।
সূত্র-এই সময়


মন্তব্য