kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০১৬। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


১২বার সাপে কাটার পরও বেঁচে আছেন!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৫:০৭



১২বার সাপে কাটার পরও বেঁচে আছেন!

১২বার সাপে কাটার পরও বেঁচে থেকে ইতিহাস গড়লেন ভারতের এক ব্যক্তি। ২০ বছর বয়সী লিঙ্গারাজু নামের ওই ব্যক্তিকে গত এক মাসেই চারবার সাপে কামড়েছে।

এর মধ্যে দুবারই কামড়িয়েছে কিং কোবরা। এরপরও তিনি বেঁচে আছেন! বিজয়পুরের একটি গরিব পরিবারের সদস্য এই বিস্ময় তরুণ।

তাকে প্রথমবার সাপে কাটে পাঁচ বছর আগে সোলাপুরে। সেখানেই তিনি তার পরিবারের সঙ্গে বসবাস করতেন। এরপর তাকে আরো সাতবার সাপে কাটে। তার উদ্বিগ্ন বাবা-মা তাকে ডাক্তারের পরামর্শে ছয় মাসেরও বেশি সময় ধরে হাসপাতালে রেখে চিকিৎসা করান।

তার চিকিৎসা বাবদ ৪০ হাজার রুপি খরচ করে আর্থিক সংকটে পড়ে যায় তার কৃষক পরিবার। এরপর তার পরিবার বিজয়পুরে স্থানান্তরিত হওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়।
তাদের বিশ্বাস ছিল কোনো অভিশাপের কারণেই হয়ত সোলাপুরে তাদের ছেলেকে বারবার সাপে কাটছিল। কিন্তু নতুন জায়গায় বসতি গড়ার পরও সাপ তাদের সন্তানের পিছু ছাড়েনি। এতে তারা প্রচণ্ড ধাক্কা খান ও হতাশ হয়ে পড়েন। নতুন স্থানেও তাদের সন্তানকে গত একমাসে চারবার সাপে কেটেছে!

এতে বিচলিত হয়ে তারা বাবা-মা তাকে কাজে পাঠানো বন্ধ করে ঘরে বসিয়ে রাখতে শুরু করেন।

লিঙ্গারাজুর পরিবারের বিশ্বাস অজানা কোনো অভিশাপের কারণেই হয়ত তাদের সন্তানকে বারবার সাপে কাটছে। তবে ডাক্তাররাও এর কোনো ব্যাখ্যা দিতে পারছেন না। তাদের কাছেও বিষয়টি বেশ রহস্যময়।

গ্রামের আয়ুর্বেদিক ডাক্তার সোমশেকার বলেন, তিনি যে দুবার লিঙ্গারাজুর চিকিৎসা করেছেন, সে দুবারই তাকে কিং কোবরা সাপে কেটেছে। তিনি বলেন, ১২বার বিভিন্ন ধরনের বিষাক্ত সাপের কামড় খাওয়ার পরও লিঙ্গারাজুর বেঁচে থাকার বিষয়টি অলৌকিকই মনে হচ্ছে।

রাজুর পরিবার যে ক'জন ডাক্তারের কাছে গিয়েছেন তাদের কেউই এই রহস্যের কোনো সমাধান করতে পারেননি। বেঙ্গালুরুতে গিয়ে চিকিৎসা করানোর এবং তাদের সন্তানের ওই রহস্যের সমাধানের জন্য অর্থ খরচ করার মতো সামর্থ্য নেই লিঙ্গারাজুর পরিবারের। ফলে রাজুর পরিবার এখন তাদের সন্তানের ওপর এই অজানা 'অভিশাপ' নিয়েই দিন পার করছেন।
সূত্র : টাইমস অফ ইন্ডিয়া


মন্তব্য