kalerkantho

রবিবার। ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


সৎকারের প্রস্তুতির সময় জেগে উঠলেন মৃত ব্যক্তি!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৩:৫৪



সৎকারের প্রস্তুতির সময় জেগে উঠলেন মৃত ব্যক্তি!

পরিবারকে পুরোপুরি চমকে দিয়ে ৫৫ বছর বয়সী ফাংশন হল ওয়ার্কার আনজাইয়াহ বেঁচে উঠলেন। অথচ তার পরিবার তার সৎকারের প্রস্তুতি গ্রহণ করছিল।

গত রবিবার ভারতের অ্যাম্বারপেটে ঘটে এই অলৌকিক ঘটনা।
অ্যাম্বারপেটের গোলনাকার হনুমান নগরের বাসিন্দা আনজাইয়াহ (৫৫) মালাকপেটের একটি ফাংশন হলে কাজ করতেন। গত ১ সেপ্টেম্বরের সন্ধ্যায় অ্যালোকোহল আসক্ত আনজাইয়াহ কাজের উদ্দেশে বাড়ি ছেড়ে যান। পরদিনও আনজাইয়াহ বাড়ি না ফেরায় তার ছেলে কৃষ্ণা তার খোঁজ শুরু করেন।
৪ সেপ্টেম্বর কৃষ্ণা তার বাবা আনজাইয়াহর একটি ছবি দেখান মির চক পুলিশ স্টেশনের কয়েকজন কনস্টেবলকে। ওই কনস্টেবলরা মহাত্মা গান্ধী বাস স্টেশনের (এমজিবিএস) বাহির পথের গেটের দায়িত্বে নিযুক্ত ছিলেন।
এক কনস্টেবল আনজাইয়াহকে দেখে চিনতে পারেন। এবং কৃষ্ণাকে বলেন, তার বাবাকে মহাত্মা গান্ধী বাস স্টেশনের কাছের একটি রাস্তায় মাতাল হয়ে শুয়ে থাকা অবস্থায় পাওয়া গেছে। সেখান থেকে তাকে উদ্ধার করে ওসমানিয়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এরপর কৃষ্ণা হাসপাতালে ছুটে যান। কিন্তু তার বাবাকে খুঁজে বের করতে পারছিলেন না।
৫ সেপ্টেম্বর কৃষ্ণা আফজালগঞ্জ পুলিশ স্টেশনে যান এবং সেখনকার কনস্টেবলদেরকেও তার বাবার ছবিটি দেখান। আফজালগঞ্জের পুলিশরা কৃষ্ণাকে বলেন, তারা স্টেট লাইব্রেরির কাছের একটি রাস্তায় ৫৫ বছর বয়সী এক ব্যক্তিতে মাতাল ও জখমসহ আহতাবস্থায় উদ্ধার করেছেন। এরপর তাকে ওসমানিয়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
ডাক্তাররা তার মাথায় একটি সার্জারি করেছেন। কৃষ্ণা এবং তার মা আনজাইয়াহকে শনাক্ত করতে সক্ষম হন। এরপর মা ছেলে মিলে তিনদিন হাসপাতালে বাবার সেবা করেন। কিন্তু ৮ সেপ্টেম্বর আনজাইয়াহ মারা যান।
এরপর আনজাইয়াহকে বাড়িতে নেওয়া হয়। ১০ সেপ্টেম্বর তার পরিবার যখন তার সৎকারের প্রস্তুতি গ্রহণ করছিল তখন হঠাৎ করেই আনজাইয়াহ বেঁচে উঠেন।
সূত্র: টাইমস অফ ইন্ডিয়া


মন্তব্য