kalerkantho

রবিবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


আপনি যখন কন্যাসন্তানের সিঙ্গল ফাদার

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১০:০৩



আপনি যখন কন্যাসন্তানের সিঙ্গল ফাদার

হতেই পারে সন্তান প্রসবের সময় মারা গেছেন মা। একান্নবর্তী পরিবার এখন কল্পনার শামিল।

তাই সদ্যোজাতকে নিয়ে বাড়িতে একমাত্র বাবা। কিন্তু সন্তানের আবেগে সমস্ত কিছু ভুলে একদিন একদিন করে বড় করে তুলছেন সদ্যোজাতর পিতা। সমস্যাটা ঠিক এখানে নয়। মাতৃদুগ্ধ পান না করে বড় হওয়ার নজির অসংখ্য। কিন্তু সমস্যা হলো সেই সদ্যোজাত যদি হয় আপনার কন্যাসন্তান। বয়ঃসন্ধিকালে কীভাবে সামলাবেন তাকে? যে ভূমিকা পালন করে থাকেন মায়েরা সেই ভূমিকা কীভাবে পালন করবেন আপনি।

যুগ বদলেছে। স্কুলের সিলেবাসে সুন্দরভাবে ঢুকে পড়ছে সেক্স এডুকেশনের বিষয়টি। কথাতেই তো বলে পিতামাতাই প্রথম গুরু। তাহলে তো কোনো দুশ্চিন্তা নেই আপনিই তো তার মাতা। সেটা ভেবেই শিখিয়ে নিন বয়ঃসন্ধিকালে দাঁড়িয়ে থাকা আপনার কন্যাসন্তানটিকে। সরাসরিভাবে অনেক কথা বলা যায় না। আবার কথাতেই আছে একটু ভাবলেই হয়। আর সেই ভাবনাকে সহজতর করে তুললাম আমরা।

১. মেয়ে বলে তাকে কখনোই একা থাকতে দেবেন না। তাহলে একাকিত্ব তৈরি হবে। লেখাপড়া, খেলাধুলো, বেড়াতে যাওয়া, খাওয়া-দাওয়া সবেতেই সঙ্গ দিন।

২. বন্ধুর মতো মিশতে চেষ্টা করুন। তাহলে তাকে কোনোকিছু বোঝাতে আসুবিধে হবে না। হবে না সংকোচও।

৩. যেকোনো সমস্যার সমাধান কীভাবে করা যায় তাও শেখান।

৪. আপনাকে বুঝতে হবে যে মেয়ে তার মাকে মিস করে। তাই মায়ের জায়গায় নিজেকে দাঁড় করাতে হবে। সেইভাবে সঙ্গ দিতে হবে তাকে। তবেই আপনার কাছে সহজ হয়ে যেকোনো কথা বলতে পারবে মেয়ে। মায়ের কথা তারও জানার ইচ্ছে হওয়াটা স্বাভাবিক। তাই তার মায়ের সম্পর্কে আপনার অনেক ভালো ভালো স্মৃতি শেয়ার করতে পারেন।

৫. মেয়ের বয়ঃসন্ধির সময়টাই আপনার কাছে সবচেয়ে বড় এবং আবেগপূর্ণ চ্যালেঞ্জ। তাই ওই সময় কথা বলুন বুঝে সুঝে। বয়ঃসন্ধির সময় মেয়েদের যে শারীরিক পরিবর্তন আসে তা তাকে বুঝিয়ে দিন। প্রতিমাসের বিশেষ দিনগুলিতেও পাশে থাকুন মায়েরই মতো।

৬. পোশাক নির্বাচনেও গাইড করুন মেয়েকে। কোন বয়সে কী ধরনের পোশাক পরতে হয় সেটাও আপনিই বলে দিতে পারেন।

৭. একান্তই অসুবিধে হলে বিশ্বস্ত মহিলা মেন্টরের সাহায্য নিতে পারেন।


মন্তব্য