kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


আনন্দবাজার পত্রিকার খবর

বাংলাদেশের পাশে দাঁড়াতে বিশ্বের সমর্থন চাইল ভারত

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২২:০৫



বাংলাদেশের পাশে দাঁড়াতে বিশ্বের সমর্থন চাইল ভারত

জঙ্গিবাদ মোকাবিলার পাশাপাশি ধর্মনিরপেক্ষতা এবং বহুত্ববাদ বজায় রাখার লড়াইয়ে বাংলাদেশের পাশে থাকার জন্য বিশ্বের সমর্থন চাইল ভারত।  
নয়াদিল্লিতে ইস্ট ওয়েস্ট সেন্টারের একটি আন্তর্জাতিক সম্মেলনের প্রারম্ভিক বক্তৃতায় বিদেশসচিব এস জয়শঙ্কর শুক্রবার বলেন, কঠিন সময়ের মধ্যে দিয়ে চলেছে বাংলাদেশের সরকার।

এই মুহূর্তে সমালোচনার চেয়ে সমর্থন পাওয়াটা তাদের বেশি প্রয়োজন। ভারত বরাবর তাদের পাশে থেকেছে। আন্তর্জাতিক মহলেরও উচিত ঢাকার পাশে দাঁড়ানো।
সাম্প্রতিক সময়ে আইএস-এর নাম করে সে দেশে জঙ্গিদের হামলার উল্লেখ করে বিদেশসচিব বলেন, খুবই উদ্বেগের বিষয়। বাংলাদেশে ধর্মনিরপেক্ষতা ও বহুত্ববাদকে রক্ষা করা না-গেলে সেখানে জঙ্গিপনা আরও বাড়বে। জয়শঙ্কর বলেন, এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পদক্ষেপগুলি সমর্থনযোগ্য, বিরোধিতা করার প্রশ্নই নেই। বিশ্বেরও উচিত তাঁর পাশে দাঁড়ানো।  
জয়শঙ্কর বলেন, সন্ত্রাসবাদ কোনও একটি দেশের সমস্যা নয়। যাঁরা হাত গুটিয়ে থাকবেন, তাঁদের জানা উচিত— সন্ত্রাস তাঁদের দেশেও পৌঁছতে সময় লাগবে না। চিনকে খোঁচা দিয়ে বিদেশসচিব বলেন, বেজিংয়ের সঙ্গে দিল্লির সম্পর্ক বহুমাত্রিক। বহু বিষয়ে দু’দেশ সহমত। কিন্তু অন্য দেশের সন্ত্রাসবাদীর মোকাবিলায় চীনের বাধা দেওয়া উচিত নয়। সম্প্রতি মাসুদ আজহারকে আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদী ঘোষণার প্রশ্নে রাষ্ট্রসংঘের উদ্যোগে চিন বাধা দিয়েছে। জয়শঙ্কর সেই প্রসঙ্গটিরই উল্লেখ করেছেন।  
কাশ্মীরে সাম্প্রতিক অশান্তি ও পাঠানকোটের হামলায় পাকিস্তানের ভূমিকা নিয়েও এ দিন বলেন জয়শঙ্কর। বলেন, এটা শুধু ভারতের সমস্যা নয়। বিশ্বের বড় শক্তিগুলো বিষয়টা না বুঝলে সন্ত্রাসের আগুনে তাদেরও পুড়তে হবে। ভাল সন্ত্রাস বা খারাপ সন্ত্রাস বলে কিছু হয় না।
পরে বিদেশসচিবের মন্তব্য নিয়ে আমেরিকার ডেপুটি অ্যাসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারি অব পাবলিক অ্যাফেয়ার্স অব সাউথ এবং সেন্ট্রাল এশিয়া অ্যাঞ্জেলা অ্যাগিলার বলেন, বাংলাদেশ নিয়ে আমরাও জয়শঙ্করের সঙ্গে সহমত। বিদেশসচিব জন কেরি কয়েক দিন আগেই ঢাকা সফরে গিয়ে হাসিনা সরকারের পাশে দাঁড়িয়েছেন। ঘোষণা করেছেন, সন্ত্রাসের একটিও ভাল দিক নেই। সেটা সব সময়েই খারাপ। তবে হাসিনা প্রশাসন যে ভাবে জামাতে ইসলামি নেতা মির কাশিম আলির ফাঁসি দিয়েছে, সে বিষয়ে আমেরিকার প্রশ্ন রয়েছে বলে তিনি জানান। অ্যাঞ্জেলা বলেন, বিচার প্রক্রিয়া সব সময় স্বাধীন এবং স্বচ্ছ হওয়া দরকার বলে তাঁরা মনে করেন।


মন্তব্য