kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০১৬। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ভুল অস্ত্রোপচার, ৪ লাখ টাকা জরিমানা চিকিৎসকের

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০৮:২৯



ভুল অস্ত্রোপচার, ৪ লাখ টাকা জরিমানা চিকিৎসকের

তাঁর সংস্থার করা ভুল অস্ত্রোপচার আংশিক প্রতিবন্ধী করেছে রোগীকে। অভিযুক্ত চিকিৎসককে তাই চার লাখ টাকা জরিমানা দেওয়ার নির্দেশ দিল ভারতের ডিস্ট্রিক্ট কনজিউমার রিড্রেসাল ফোরাম।

চিকিৎসকের নাম বিবেক মালভি। আক্রান্ত রোগী দিগম্বর ভিত্তাল রাঠোর। রোগীর আইনি খরচের জন্য অতিরিক্ত পাঁচ হাজার টাকা দেওয়ার নির্দেশও দেওয়া হয়েছে বিবেক মালভিকে। ঘটনাটি ভারতের মহারাষ্ট্রের থানে জেলার।

আক্রান্ত ব্যক্তি দিগম্বর কল্যাণের আম্বিভিলির বাসিন্দা। তিনি জানান, ২০১৩ সালের ৩১ জুলাই ভিত্তালওয়াদি রেলস্টেশনে এক দুর্ঘটনায় ডান পায়ে আঘাত পান তিনি। উল্লাসনগর কেন্দ্রীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাঁকে। ওই হাসপাতালের চিকিৎসকরাই বিবেক মালভির হাসপাতালে অস্ত্রোপচারের জন্য রেফার করে।

ফোরামের কাছে দিগম্বর জানান, রেফারের পর মালভির মাথোশ্রি কিসারবেন মোহন হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাঁকে। সেখানে অস্ত্রোপচারের পর ১৩ আগস্ট ছেড়ে দেওয়া হয়। তারপর থেকেই ডান পায়ের যন্ত্রণা শুরু হয় দিগম্বরের। চিকিৎকদের কাছে গেলে তাঁকে ব্যথানাশক খাওয়ার পরামর্শ দেন তাঁরা। কিন্তু, যন্ত্রণা কমেনি। ফের হাসপাতালে গেলে চিকিৎসকরা জানান, আগেরবার ঠিকঠাক অস্ত্রোপচার হয়নি তাই ফের তা করতে হবে।    

দিগম্বর বলেন, চিকিৎসকরা তাঁকে আগের হওয়া অস্ত্রোপচারের স্ক্রু খুলে হাড়ে নতুন স্ক্রু লাগানোর পরামর্শ দেন। যার জন্য আড়াই থেকে তিন লাখ টাকা লাগবে। এরপর তাঁকে আংশিক প্রতিবন্ধীর সার্টিফিকেট দিয়ে চিকিৎসা চালাতে থাকেন চিকিৎসকরা। দিগম্বর জানান, ডান পায়ে অত্যধিক যন্ত্রণা অনুভব করেন তিনি। নড়াচড়াও বন্ধ হয়ে যায়। চাকরিটাও হারান তিনি। এরপর কনজিউমার ফোরামের কাছে যান দিগম্বর। ফোরামের বক্তব্য, অভিযুক্ত চিকিৎসককে নোটিস পাঠালেও তার কোনও জবাব আসেনি। তাই আইনি পথেই যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন ফোরামের সদস্যরা।

যদিও চিকিৎসক বিবেক মালভি তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তবে তাতে কাজ হয়নি। দিগম্বরের দ্বিতীয় অস্ত্রোপচারের আগে পর্যন্ত ওই চিকিৎসককে ওষুধের খরচ দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে ফোরাম।  


মন্তব্য