kalerkantho

26th march banner

ট্রাম্পের পতন শুরু কি উইসকনসিন থেকেই?

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২ এপ্রিল, ২০১৬ ০৯:৩৬



ট্রাম্পের পতন শুরু কি উইসকনসিন থেকেই?

বড় ধরনের দুঃসংবাদ নিয়ে মঙ্গলবার উইসকনসিন অঙ্গরাজ্যে রিপাবলিকান পার্টির প্রাইমারি নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। সর্বশেষ জনমত জরিপ বলছে, তাঁকে অপছন্দ করে এমন মার্কিনের সংখ্যা ৬৭ শতাংশ। শুধু নারীদের হিসাব নিলে অঙ্কটা বেড়ে দাঁড়ায় ৮০ শতাংশ। হিস্পানিক অর্থাৎ লাতিন বংশোদ্ভূত স্প্যানিশভাষী ভোটাররা তাঁকে অপছন্দ করেন ৮৫ শতাংশ। ওয়াশিংটন পোস্ট ও এবিসি টিভির এই জরিপ সঠিক হলে গত ৩২ বছরে যুক্তরাষ্ট্রের দুই প্রধান দল রিপাবলিকান ও ডেমোক্রেটিক পার্টির মধ্যে ট্রাম্পের মতো এমন অজনপ্রিয় প্রেসিডেন্ট প্রার্থী আর দেখা যায়নি।

ট্রাম্পের জন্য খারাপ খবর রয়েছে আরও। জরিপ অনুসারে, এখনই নির্বাচন হলে দুই ডেমোক্রেটিক প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী হিলারি ক্লিনটন ও বার্নি স্যান্ডার্স উভয়েই তাঁকে ১০ শতাংশ বা তার চেয়ে বেশি পয়েন্টে অনায়াসে পরাস্ত করবেন। সার্বিক পরিস্থিতিতে মনে হচ্ছে, ট্রাম্পের ভবিষ্যৎ অনেকাংশেই নির্ভর করছে উইসকনসিনের প্রাইমারি নির্বাচনের ওপর। ট্রাম্প আশা করেছিলেন, এই রাজ্যের শ্বেতকায় মধ্যবিত্ত ও কর্মজীবীদের ভোটে তিনি তাঁর দলীয় প্রতিদ্বন্দ্বী সিনেটর টেড ক্রুজ ও গভর্নর জন কেইসিককে সহজেই হারিয়ে দেবেন। কিন্তু সর্বশেষ জনমত জরিপে দেখা যাচ্ছে, ক্রুজ তাঁর চেয়ে ১০ শতাংশ বা তার চেয়ে বেশি পয়েন্টে এগিয়ে আছেন।

রিপাবলিকান নেতৃত্বের সংঘবদ্ধ প্রতিরোধের মুখে বিতর্কিত ট্রাম্প তাঁর দলের মনোনয়ন না-ও পেতে পারেন, এ সম্ভাবনা সম্প্রতি জোরালো হয়ে উঠেছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে ট্রাম্প গত সপ্তাহে ইঙ্গিত করেছেন, জুলাই মাসে দলের কনভেনশনে অন্য কেউ মনোনয়ন পেলে তাঁকে সমর্থন করতে না-ও পারেন তিনি। অধিকাংশ বিশ্লেষক একমত, গত দুই সপ্তাহ ট্রাম্প একের পর এক কৌশলগত ভুল করেছেন।

ভোটারদের নেতিবাচক মনোভাবে আক্রান্ত ট্রাম্প একা নন। ডেমোক্রেটিক পার্টির প্রার্থী হিলারি ক্লিনটনও ৫২ শতাংশ ভোটারের চোখে গ্রহণযোগ্য নন। শুধু রিপাবলিকান বা স্বতন্ত্র ভোটাররাই নন, তাঁর বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়ে ডেমোক্রেটিক পার্টির অভ্যন্তরেও অধিকাংশ মানুষ সন্দিহান। তিনি উইসকনসিনে জিতবেন না, এই সিদ্ধান্তে পৌঁছানোর পরে হিলারি প্রচারণার নজর সরিয়ে এনেছেন নিউইয়র্কসহ পূর্বাঞ্চলে। এ সপ্তাহে হিলারি ও বার্নি উভয়েই নিউইয়র্কের কৃষ্ণাঙ্গ অধ্যুষিত ব্রঙ্কসে জোর প্রচারণা চালান।

 


মন্তব্য