kalerkantho


কলকাতার ফ্লাইওভার ট্রাজেডি, চলছে টানা উদ্ধার অভিযান

সুব্রত আচার্য্য, কলকাতা   

১ এপ্রিল, ২০১৬ ০৯:৫০



কলকাতার ফ্লাইওভার ট্রাজেডি, চলছে টানা উদ্ধার অভিযান

কলকাতার বিবেকানন্দ উড়ালপুলের ভেঙে পড়া এক অংশের নিচ থেকে বৃহস্পতিবার রাত ও শুক্রবার সকালে আরো লাশ উদ্ধার করেছে উদ্ধারকারী সেনাবাহিনী সদস্যরা। এখনও পর্যন্ত নিহতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২৫এ।

ভোরে বৃষ্টি হওয়ায় উদ্ধারকাজ কিছু সময়ের জন্য বন্ধ রাখা হলেও আজ শুক্রবার সকাল থেকে ফের শুরু হয়েছে উদ্ধার তৎপরতা।

বিবেকান্দ উড়ালপুলের গণেশ স্টকিজ মোড়ের ওপর ভেঙে পড়া স্ল্যাবের বড় অংশের মধ্যে মোটামুটি অনেকটাই কেটে সরিয়ে ফেলা হয়েছে। তবে কংক্রিটের কিছু অংশ এখনও সরানো সম্ভব হয়নি। ওই অংশের নিচে নতুন করে কারো চাপা পড়ে থাকার সম্ভাবনা নেই বলে মনে করছেন উদ্ধারকারীরা। অন্য স্ল্যাবটির সরানোর কাজে এখনও হাত লাগায়নি উদ্ধারকারি দল। ওই স্ল্যাবটি বিশেষ কৌশল প্রয়োগ করে সরাতে হবে। কারণ ওই স্ল্যাবটির একটি অংশ মূল ফ্লাইওভারের সঙ্গে ঝুলে রয়েছে। ওই স্ল্যাব সরানোর সময় কোনোরকম ঝাঁকুনি লাগলে বাকি স্ল্যাবগুলোও পড়ে যেতে পারে এবং তখন উদ্ধারকারী দলের সদস্যদের প্রাণহানি ঘটতে পারে। ফলে দ্বিতীয় স্ল্যাবটি উদ্ধারে বিশেষ সতর্কতা নিতে হবে বলেই সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হচ্ছে।

এদিকে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি জানিয়েছেন, ফ্লাইওভার ভেঙে পড়ার ঘটনায় দুটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিতে খড়গপুর আইআইটির ইঞ্জিনিয়ারাও থাকবেন। ২০০৯ সালে বামফ্রন্টের সময় থেকেই ফ্লাইওভারের কাজ শুরু হয়। চার বছর পর ২০১২ সালে উড়ালপুলের কাজ শেষ হওয়ার কথা থাকলেও জনবহুল অঞ্চল বলে নির্মাণ কাজ শেষ করা সম্ভব হয়নি। তাই এখনও কাজ চলছে। দক্ষিণ ভারতের আইভিআরসিএল নামের একটি সংস্থা বিবেকানন্দ উড়ালপুলের নির্মাণ কাজ করছে। তবে এর পুরোটাই দেখভাল করছে রাজ্য সরকারের কলকাতা মেট্রোপলিটন ডেভেলপম্যান্ট বা কেএমডি।

যদিও মমতা তার নিজের সরকারের কাঁধ থেকে ফ্লাইওভার ভেঙে পড়ার দায় এড়ানোর চেষ্টা করেছেন। তিনি বলেছেন, এই উড়ালপুলের কাজ শুরু হয়েছিল বামফ্রন্টের সময়। ফলে তারাই এটা ভালো বলতে পারবেন।

যদিও বামফ্রন্ট সরকারের নগর উন্নয়নমন্ত্রী অশোক ভট্টাচার্য বলেছেন, বামফ্রন্ট এই কাজের বরাত দিয়েছিল। কিন্তু কাজটি তৃণমূল সরকারের সময়ই চলেছে। তবে বর্তমান নগর উন্নয়নমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম এই বির্তকে জড়াতে চাননি। তিনি বলেন, যে কারণেই হোক কিংবা যার গাফিলতিতেই হোক না কেন এই ধরনের ঘটনার যথাযথ তদন্ত এবং দোষীদের শাস্তি হবেই।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সফররত ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি শুক্রবার সকালে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জিকে ফোন করে দুর্ঘটনার খোঁজখবর করেন। মোদি এই বিপর্যয় মোকাবিলায় সব ধরনের সাহায্যের আশ্বাস দেন।

রাজ্যপাল কিশোরী ত্রিপাঠি বৃহস্পতিবার রাতেই রাজ্য সরকারের কাছে কলকাতার অন্য ফ্লাইওভারগুলোর অবস্থা খতিয়ে দেখে দ্রুত তার কাছে রিপোর্ট পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন।

এদিকে বিবেকানন্দ ফ্লাইওভারের ঠিকাদারি সংস্থা আইভিআরসিএলের কলকাতার মানিকতলা অফিস সিল করে দিয়েছে পুলিশ। বৃহস্পতিবারই ওই সংস্থার বিরুদ্ধে অনিচ্ছাকৃত খুনের দুটি মামলা করা হয়। পাশাপাশি কলকাতা সহ দক্ষিণ ভারতের তাদের প্রধান অফিসেও পুলিশ তল্লাশি চালিয়ে অফিস সিল করে দিয়েছে বলে ভারতীয় গণমাধ্যম দাবি করেছে।


মন্তব্য