kalerkantho


বিজেপির শীর্ষ নেতাকে ঘুষ দিতে গিয়ে গ্রেপ্তার দুই পুলিশ

সুব্রত আচার্য্য, কলকাতা   

২৯ মার্চ, ২০১৬ ১০:৩২



বিজেপির শীর্ষ নেতাকে ঘুষ দিতে গিয়ে গ্রেপ্তার দুই পুলিশ

বাংলাদেশে গরু পাচারের কথা বলে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য পুলিশের দুজন গোয়েন্দা সদস্য স্টিং অপারেশন চালাতে গিয়ে হাতেনাতে ধরা পড়ে বরখাস্ত হলেন। গতকাল সোমবার রাজ্য বিজেপির প্রাক্তন সভাপতি ও কেন্দ্রীয় বিজেপি নেতা রাহুল সিনহার জোড়াসাঁকোর বাড়িতে নিজেদের পরিচয় গোপন করে মোটা অঙ্কের টাকা ঘুষ দিতে গিয়েছিলেন ওই দুই গোয়েন্দা পুলিশ। ঠিক সেই সময়ই হাতেনাতে ধরা পড়েন শুভাশিস রায় চৌধুরী ও আমিনুর রহমান নামে স্পেশাল ব্রাঞ্চের দুই সদস্য। পরে তাদের জোড়াসাঁকো থানার পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়। রাতে রাজ্য পুলিশের সদর দপ্তর লালবাজার থেকে প্রেস বিজ্ঞপ্তি দিয়ে ওই অভিযুক্ত দুই পুলিশ সদস্যকে সাসপেন্ড করা হয়েছে বলে জানানো হয়।

এর আগে সোমবার সন্ধ্যায় রাজ্য বিজেপির অফিসে সাংবাদিক সম্মেলন করে পুলিশকে ব্যবহার করে বিজেপি নেতাদের স্টিং অপারেশন চালানোর জন্য তৃণমূল নেত্রী মমতা ব্যানার্জিকে দায়ী করেন বিজেপির শীর্ষ নেতা রাহুল সিনহা। ওই বিজেপি নেতার ভাষায়, শুভাশিষ রায় চৌধুরী পুলিশের স্পেশাল ব্রাঞ্চের সদস্য। ঘটনার পর তার কাছ থেকে পরিচয়পত্র পাওয়া যায়। তিনি নিজেকে গরু ব্যবসায়ী বলে পরিচয় দিয়ে তার সঙ্গে থাকা আমিনুর রহমানের দিকে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে বলেন, স্যার এই সব বেকার যুবকের জন্য কিছু করুন।

রাহুল সিনহা বলেন, বেকারদের জন্য কি করতে হবে বলুন। তখন শুভাশিস বলেন, সীমান্ত দিয়ে গরু এপার থেকে ওপার করার ব্যবস্থা করতে হবে।

এমন প্রস্তাব পাওয়ার পরই রাহুল সিনহা তাদের আটকে তল্লাশি চালান। তাদের কাছে গোপন ক্যামেরা পাওয়া যায়। রাজ্য বিজেপির তরফে দাবি করা হয়, নারদা কাণ্ডে তৃণমূল চরম অস্বস্তিতে পড়েছে। নারদায় তৃণমূল নেতাদের ঘুষ নিতে দেখা যাওয়ায় এবার বিজেপির নেতাদের পুলিশ পাঠিয়ে নকল ঘুষ কাণ্ড সাজিয়ে প্রচার চালানোর কৌশল নেওয়া হচ্ছে।

রাহুল সিনহা এদিন কালের কণ্ঠকে বলেন, মমতা ব্যানার্জি নিজে সৎ বলে দাবি করেন। আমি তাকে বলবো, আপনি এই ঘটনা সিবিআই তদন্ত করান।

তৃণমূল কংগ্রেস এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে। দলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেন, সব দোষ তৃণমূলের। ভালো কিছু সব বিজেপি করছে আর আমরা সব খারাপ করছি। আসলে বিজেপির রোগ হয়েছে। তৃণমূল এই ধরনের নোংরা রাজনীতি করে না। রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনের চূড়ান্ত প্রচার প্রচারণা চলছে। শাসক তৃণমূল, প্রধান বিরোধী বামফ্রন্ট ও কংগ্রেসের জোট ছাড়াও বিজেপিও লড়ছে রাজ্যের প্রায় সব আসনে। নারদা ডট কমে ঘুষ কাণ্ডের ভিডিও সোশাল মিডিয়া থেকে টেলিভিশন চ্যানেলগুলোতে রোজই মানুষের চোখের সামনে ভেসে উঠছে। তৃণমূল কংগ্রেস নারদা কাণ্ডে চরম বেকায়দায় পড়েছে। বিজেপিও নারদা কাণ্ড নিয়ে তৃণমূলের বিরুদ্ধে প্রচার-প্রচারণা চালাচ্ছে।

রাজনৈতিক মহল মনে করছে, নারদা কাণ্ডের অস্বস্তি কাটাতেই বিজেপি নেতাদের পুলিশ প্রশাসনকে ব্যবহার করে শাসক তৃণমূল কংগ্রেস একইভাবে ফাঁসানোর চেষ্টা করছে। যদিও তৃণমূল সরাসরি এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে।


মন্তব্য