kalerkantho

সোমবার। ২৩ জানুয়ারি ২০১৭ । ১০ মাঘ ১৪২৩। ২৪ রবিউস সানি ১৪৩৮।


অবশেষে বামফ্রন্ট-কংগ্রেসে আসন নিয়ে সমঝোতা

সুব্রত আচার্য্য, কলকাতা    

১৪ মার্চ, ২০১৬ ১৫:৫৬



অবশেষে বামফ্রন্ট-কংগ্রেসে আসন নিয়ে  সমঝোতা

দীর্ঘ টানাপড়েনের পর পশ্চিমবঙ্গের প্রধান দুই বিরোধী রাজনৈতিক দল বামফ্রন্ট ও কংগ্রেসের মধ্যে নির্বাচনী আসন নিয়ে সমঝোতা হয়েছে। বামফ্রন্টের বর্ষীয়ান নেতা রবিন দেব আজ সোমবার সকালে কলকাতার গণমাধ্যমকে জানান, জোটে প্রথম দফায় আসন সমঝোতায় পৌঁছাতে পেরেছেন দুই দলের নেতৃবৃন্দ।

সহযোগী দল দুটিসহ কংগ্রেস ৯০টি আসনে লড়বে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, বামফ্রন্ট ও কংগ্রেস যৌথভাবে আবার আটটি আসনে প্রার্থী দেবে না। কেননা, ওই আসনগুলোর প্রার্থীদের যৌথভাবেই সমর্থন করা হচ্ছে। ফলে ২৯৪ আসনের মধ্যে বাকি ১৯৬ আসনে লড়বে বামফ্রন্ট। সিপিআইএম, ফরওয়ার্ড ব্লক, আরএসপি এবং সিপিআইসহ বেশ কয়েকটি বামপন্থী দল নিয়েই বামফ্রন্ট।

এই মাসের ৩ তারিখে নির্বাচন কমিশন রাজ্যের নির্বাচনী তফসিল ঘোষণার পর থেকেই দল দুটির শীর্ষ নেতৃত্বের মধ্যে আসন রফা নিয়ে দফায় দফায় বৈঠক হয়। একদিকে বৈঠক চলে অন্যদিকে দুই রাজনৈতিক শক্তি নিজেদের পছন্দের আসনে প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করে। তৃণমূলকে পশ্চিমবঙ্গ থেকে এবং বিজেপিকে দিল্লি থেকে হটানোর উদ্দেশ্যে বামপন্থীদের ডাকে কংগ্রেসের সমর্থনে যে নির্বাচনী জোট গঠনের সম্ভাবনা তৈরি হয় আসন সমঝোতায় না পৌঁছানোয় তা বড় ধরনের প্রশ্নের মুখে পড়ে। তবে বৃহস্পতিবার রাত থেকেই দুই দলের ক্রাইসিস ম্যানেজার সৌমেন মিত্র, রবীন দেব, প্রদীপ ভট্টাচার্য এবং আব্দুল মান্নানদের মধ্যে দফায় দফায় বৈঠকে আপাতত জোট নিয়ে শঙ্কা দূর হলো।

এদিকে, আজ সোমবার কলকাতার অদূরে রাজারহাটের একটি হোটেলে ভারতের প্রধান নির্বাচন কমিশনার নাসিম জায়েদিসহ নির্বাচন কমিশনাররা মিলিত হচ্ছেন। রাজ্যের ১৯ জেলার প্রশাসন ও পুলিশ কর্মকর্তাদের নিয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার কয়েক দফায় বৈঠক করবেন। রাজ্যে রক্তপাতহীন সুষ্ঠু ও অবাধ নির্বাচন পরিচালনা করার লক্ষ্যে ভারতের নির্বাচন কমিশনার এবার যে কঠোর মনোভাব নিয়েছেন  তা নির্বাচনের তারিখ ঘোষণার আগেই রাজ্যজুড়ে আধাসামারিক বাহিনী মোতায়েনের ঘটনার মধ্য দিয়ে প্রকাশ করেছে। ধারণা করা হচ্ছে, আজ প্রধান নির্বাচন কমিশনার নির্বাচন সুষ্ঠু করার লক্ষ্যে নতুন কোনো সিদ্ধান্ত জানাতে পারেন।

কলকাতার প্রচার শেষ করে সোমবারই উত্তরবঙ্গে নির্বাচনী প্রচার শুরু করেছেন রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। শনিবার ও রবিবার কলকাতার পৃথক দুটি নিবাচনী পদযাত্রায় হাঁটেন মমতা। আজ দুপুরে শিলিগুড়িতে সভা করার কথা রয়েছে তাঁর। ছয় দিন প্রচার শেষ করে আগামী ২০ মার্চ কলকাতায় ফিরবেন তৃণমূলপ্রধান। এর আগে ২০১১ সালে কংগ্রেসের সঙ্গে নির্বাচনী জোট করে ক্ষমতায় এসেছিল তৃণমূল কংগ্রেস। এবার অবশ্য তাদের সেই একসময়ের জোটসঙ্গী কংগ্রেসই শাসক তৃণমূলের বিরুদ্ধে কার্যত জেহাদ ঘোষণা করে বামপন্থীদের সঙ্গে জোট করেছে।

এদিকে, গত পাঁচ বছরে সরকারি দল তৃণমূলের হাতে নির্যাতিত হওয়া আমরা আক্রান্ত নামের একটি সংগঠনের তরফেও এবার রাজ্যের আটটি আসনে প্রার্থী ঘোষণা করেছে। ফলে তাঁরা ওই আট আসনে প্রার্থী ঘোষণা করেননি। তাঁরা আক্রান্ত হওয়ার প্রধান কারণ অম্বিকেশ মহাপাত্র। রেলমন্ত্রী থাকাকালে মমতা ও মুকুলকে নিয়ে কার্টুন করার প্রতিবাদে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক অম্বিকেশ মহাপাত্রকে জেলে বন্দি করেছিল তৃণমূল সরকার। দক্ষিণ কলকাতার বেহালা পূর্ব আসনে এবার কলকাতার মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য তিনিও প্রার্থী হয়েছেন। ওই আসনে কংগ্রেস ও বামফ্রন্ট কোনো প্রার্থী ঘোষণা করেনি।


মন্তব্য