kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৪ জানুয়ারি ২০১৭ । ১১ মাঘ ১৪২৩। ২৫ রবিউস সানি ১৪৩৮।


নিউ ইয়র্ক-প্যারিস রুটে চালু হচ্ছে সোলার বিমান

নিউ ইয়র্ক প্রতিনিধি   

১৪ মার্চ, ২০১৬ ০৯:৫৫



নিউ ইয়র্ক-প্যারিস রুটে চালু হচ্ছে সোলার বিমান

চলতি বছরের জুন মাস থেকে নিউ ইয়র্ক-প্যারিস রুটে চালু হচ্ছে সোলার বিমান। চার্লেস লিন্ডবার্গের উদ্যোগে একটি ফ্রেঞ্চ গবেষণা প্রতিষ্ঠান এ বছরের শেষের দিকে প্রথম কার্বনমুক্ত ট্রান্স আটলান্টিক ফ্লাইট পরিচালনার পরিকল্পনা করছে।

ওশান ভাইটালের গবেষণাগারে তৈরি ইরাওয়েল নামের বিমানটি জুন মাসে প্রথম যাত্রা করবে।

প্রতিষ্ঠানটির দাবি, বিমানটি উড্ডয়নকালে শূন্য কার্বন নির্গমন উৎপাদন করবে। এ ক্ষেত্রে সফল হলে পরিবেশ বান্ধব বিমান হিসেবে চলাচলে দীর্ঘস্থায়ী প্রভাব ফেলবে বিমানটি। এটি পরিচালনার জন্য ইতিমধ্যে বৈমানিক ঠিক করা হয়েছে। রাফাল দাইনেলি নামের একজন বৈমানিক বিমানটি পরিচালনা করবেন। ইরাওয়েলের ইলেকট্রিক ইঞ্জিন পরিচালিত হবে সোলার প্যানেল দিয়ে। বিমানের পাখাগুলো পুরোপুরি সোলার প্যানেল দিয়ে তৈরি। যখন পর্যাপ্ত সূর্যের আলো থাকবে না, তখন জৈব জ্বালানি চালু হবে। এই মিশ্রণে পরিবেশের কোনো ক্ষতি হবে না। তবে গ্রিন হাউজ গ্যাস কতটা উৎপাদিত হবে- তার ওপর বিষয়টি নির্ভর করবে।

বিমানটিতে দুটি লিথিয়াম ব্যাটারি ব্যবহার করা হয়েছে যা এটিকে মাটি থেকে আকাশে উঠতে ও নামতে সহায়তা করবে। বিমানটি ২০০৯ সালে তৈরির  পরিকল্পনা করা হয়। বিমানের জ্বালানি তৈরি করতে সময় লাগে দুই বছর। বিমানটি যৌগিক পদার্থ দিয়ে তৈরি করা হয়েছে যাতে হালকা ওজনের হয়। ইরাওয়েল ২৫ শতাংশ সোলার শক্তি, ৫৫ শতাংশ জৈব জ্বালানি এবং ২০ শতাংশ বিশুদ্ধ গ্লাইডিং দিয়ে পরিচালিত হবে। ৬০ ঘণ্টা পর্যন্ত বিমানটি টানা চলতে পারবে, যা অন্য বাণিজ্যিক বিমানের ১০ গুণ। সাধারণ বিমানে ১১ শতাংশ কার্বন নির্গমন হয় চলাচলে, যা পুরো পৃথিবীর কার্বন নির্গমনের দুই শতাংশ। এই হার দিন দিন বেড়েই চলেছে।


মন্তব্য