পুতিনের সাবেক উপদেষ্টার মৃত্যু ঘিরে-334784 | বিদেশ | কালের কণ্ঠ | kalerkantho

kalerkantho

সোমবার । ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৬। ১১ আশ্বিন ১৪২৩ । ২৩ জিলহজ ১৪৩৭


পুতিনের সাবেক উপদেষ্টার মৃত্যু ঘিরে রহস্য

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১১ মার্চ, ২০১৬ ১৭:৪৬



পুতিনের সাবেক উপদেষ্টার মৃত্যু ঘিরে রহস্য

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সাবেক উপদেষ্টা ও তথ্যমন্ত্রী মিখায়েল লেসিনকে ৫৭ বছর বয়সে যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন শহরের ডুপন্ট সার্কেলের একটি হোটেল থেকে গত বছরের শেষ দিকে মৃত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছিল। তিনি দীর্ঘ দিন ধরে শারীরিক আঘাতে ভুগছিলেও তার মৃত্যুকে ঘিরে তৈরি হয়েছে ধুম্রজাল। তার কি স্বাভাবিক ম্রিত্যু হয়েছিল, নাকি কেউ মেরে ফেলেছিল?
রাশিয়ার সংবাদ মাধ্যমকে তার পরিবার জানিয়েছে, তিনি হৃদরোগে আত্রুান্ত ছিলেন। অন্যদিকে ওয়াশিংটন ডিসির একজন চিকিৎসক জানিয়েছেন, লেসিনের ঘাড়, ধড় এবং পায়ে আঘাতের চিহ্ন ছিল। এদিকে রাশিয়া পুলিশের মুখপাত্র ডাস্টিন স্টারবেক জানিয়েছেন, ‘বিষয়টি তদন্তাধীন রয়েছে। ময়নাতদন্তের ফলাফলের ওপর ভিত্তি করে আমরা এ বিষয়ে একটি সিদ্ধান্ত পৌঁছতে পারবো।’
অন্যদিকে রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মারিয়া জেকোরাভা বলেছেন, ‘আমরা প্রত্যাশা করেছিলাম ওয়াশিংটন বিষয়টি পরিস্কার করবে। এখনও তাদের তদন্ত প্রতিবেদনের উপরই আমারা নির্ভর করছি। তাদের প্রতিবেদন হাতে পেলে আমরা আমাদের কাজ শুরু করতে পারবো।’
এর আগে ২০১৪ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মিসিসিপি অঙ্গরাজ্যের সিনেটর রোগার উইকার বিষয়টি তদন্ত করার জন্য রাশিয়াকে আহ্বান করেছিলেন। তখন তিনি বলেছিলেন, তার মৃত্যু একটি গুরুতর প্রশ্ন রেখে গেছে। তিনি জানান, একজন রুশ সরকারি কর্মকর্তা হিসেবে ইস্তফা দেয়ার পর লেসিন লস এঞ্জেলসে প্রায় ২৮ মিলিয়িন মার্কিন ডলারে বিনিময়ে একটি জায়গা কিনেছিলেন।
উইকার তার সম্পত্তি ক্রয়ের বিষয়ে প্রশ্ন তুলে বলেন, কিভাবে একজন সাধারণ কর্মকর্তার পক্ষে এতো  দামি জমি কেনা সম্ভব? তিনি উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, এই জমি ক্রয়ের সাথে যুক্তরাষ্ট্রর নিষিদ্ধ কোন গোষ্ঠির সংশ্লিষ্টতা থাকতে পারে।
উল্লেখ্য, দীর্ঘদিন ধরে লেসিন রাশিয়ার একজন প্রভাবশালী গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব হিসেবে বিবেচিত হয়ে আসছিলেন। তিনি ২০০৪ থেকে ২০০৯ সাল পর্যন্ত রাশিয়র সংবাদ ভিত্তিক চ্যানেল রাশিয়া টুডের উপদেষ্টাও ছিলেন। সর্বশেষ ২০১৪ সালে গ্যাজফ্রম-মিডিয়া হোল্ডিং গ্রুপ থেকে অব্যাহতি নেন। তার মৃত্যুতে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন এক শোক বার্তায় জানিয়ে বলেছিলেন, ‘রাশিয়ার সংবাদ মাধ্যমে তার অবদান অনস্বীকার্য।’

মন্তব্য