মিয়ানমার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে সু-334774 | বিদেশ | কালের কণ্ঠ | kalerkantho

kalerkantho

শনিবার । ১ অক্টোবর ২০১৬। ১৬ আশ্বিন ১৪২৩ । ২৮ জিলহজ ১৪৩৭


মিয়ানমার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে সু চির ঘনিষ্ঠ সহযোগীর সমর্থন লাভ

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১১ মার্চ, ২০১৬ ১৭:০৫



মিয়ানমার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে সু চির ঘনিষ্ঠ সহযোগীর সমর্থন লাভ

মিয়ানমারের নিম্নকক্ষে শুক্রবার অং সান সু চির ঘনিষ্ঠ সহযোগী থিন কিউ প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিসেবে সমর্থন পেয়েছেন। ফলে গত কয়েক প্রজন্মের মধ্যে প্রথমবারের মতো বেসামরিক নেতা নির্বাচনের ক্ষেত্রে একটি গুরুত্বপূর্ণ বাধা দূর হলো।

বার্তা সংস্থা এএফপি’র খবরে বলা হয়েছে, গণতন্ত্রপন্থী নেত্রী সু চির প্রক্সি প্রেসিডেন্ট হিসেবে বিশিষ্ট লেখক থিন কিউকে তার সবচেয়ে বেশি পছন্দ বলে ধারণা করা হচ্ছে। সু চির দাতব্য ফাউন্ডেশন পরিচালনায় সাহায্য করেন থিন কিউ।

তবে দেশের নেতা হিসেবে আনুষ্ঠানিকভাবে নিয়োগ দেওয়ার আগে তাকে যৌথ কক্ষের ভোটে পাস করতে হবে। গত কয়েক দশক ধরে দেশ পরিচালনা করছে সামরিক বাহিনী।

নিম্নকক্ষের স্পিকার উইন মিন্ট বলেন, দ খিন কিউ ফাউন্ডেশনের নির্বাহী কমিটির সদস্য থিন কিউ বেশির ভাগ ভোট পেয়েছেন। থিন কিউয়ের পক্ষে দলের সদস্যদের ভোট টানতে নিম্নকক্ষের নির্বাচনে সু কি প্রথমে ভোট দেন। নিম্নকক্ষের ৩১৭টি ভোটের মধ্যে তিনি ২৭৪ ভোট পান। নিম্নকক্ষে সু চির ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্রেসি দলের ২৫৫ সদস্য রয়েছেন।

মিয়ানামারে অনেকের কাছে সু চি খুবই জনপ্রিয় এবং দেশের দীর্ঘ গণতান্ত্রিক লড়াইয়ে এখনও বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বী। তবে জান্তা সরকার প্রণীত সংবিধানের কারণে প্রেসিডেন্ট হওয়ার ক্ষেত্রে সু চির বাধা রয়েছে। কিন্তু তার অবস্থান পরবর্তী প্রেসিডেন্টের ওপরে থাকবে।

থিন কিউকে প্রেসিডেন্ট হতে হলে আরো দুই প্রার্থীর সঙ্গে লড়তে হবে। এদের মধ্যে একজন হলেন উচ্চকক্ষে এনএলডি দলের মনোনীত জাতিগত চিন এমপি হেনরি ভ্যান দেউ ও অপরজন সেনাবাহিনীর মনোনীত হবেন। তবে সেনাবাহিনী থেকে এখনও কারো নাম ঘোষণা করা হয়নি।

তবে সু চির সমর্থন ও এনএলডি’র সঙ্গে পারিবারিক সম্পর্ক থাকার কারণে থিন কিউ প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হতে পারেন। আর অপর দুজন ভাইস প্রেসিডেন্ট হতে পারেন।

মন্তব্য