সিরিয়ায় ‘সত্যিকারের অগ্রগতির’-332566 | বিদেশ | কালের কণ্ঠ | kalerkantho

kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৭ সেপ্টেম্বর ২০১৬। ১২ আশ্বিন ১৪২৩ । ২৪ জিলহজ ১৪৩৭


সিরিয়ায় ‘সত্যিকারের অগ্রগতির’ প্রশংসা বিশ্ব নেতৃবৃন্দের

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৫ মার্চ, ২০১৬ ২২:৩০



সিরিয়ায় ‘সত্যিকারের অগ্রগতির’ প্রশংসা বিশ্ব নেতৃবৃন্দের

 বিশ্ব নেতৃবৃন্দ শুক্রবার সিরিয়ায় ‘সত্যিকারের অগ্রগতির’ প্রশংসা করেছেন। তবে নতুন করে বিমান হামলা সপ্তাহ ধরে চলা অস্ত্রবিরতির দুর্বলতা প্রকাশ করেছে। এদিকে বিরোধীরা আগামী সপ্তাহে জেনেভা আলোচনায় তাদের উপস্থিতির ব্যাপারে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন।
যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়ার মধ্যস্থতায় গত সপ্তাহান্তে অস্ত্রবিরতি শুরু হওয়ার পর প্রথমবারের মত সিরিয়ার রাজধানীর পূর্বাঞ্চলে বিদ্রোহীদের একটি ঘাঁটিতে যুদ্ধবিমান থেকে হামলা চালানো হয়েছে।
বৃটেন ভিত্তিক মানবাধিকার সংগঠন সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটসের প্রধান রামি আব্দেল রহমান বলেন, ইস্টার্ন ঘাওতার ডুমা শহরে দুটি বিমান হামলা চালানো হয়েছে। এতে একজন নিহত হয়।
তিনি বলেন, সিরিয়া কিংবা রাশিয়ার বিমান এ হামলা চালাতে পারে।
সরকারি বাহিনী ইস্টার্ন ঘাওতা এলাকায় নিয়মিত বিমান হামলা চালিয়েছে। তবে অস্ত্রবিরতি কার্যকর হওয়ার পর এলাকাটি তুলনামূলকভাবে শান্ত হয়ে এসেছে।
বৃটেন, ফ্রান্স, জার্মানী ও ইউরোপীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রীরা অস্ত্রবিরতি নিয়ে আলোচনার জন্য শুক্রবার প্যারিসে বৈঠক করেন। বিশ্ব নেতারা বলেন, সিরিয়ায় ‘সত্যিকারের অগ্রগতি’ হয়েছে।
ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ফিলিপ হ্যামন্ড বলেন, ‘বৈরিতা হ্রাস একেবারে যথার্থ বলা যাবে না। তবে সহিংসতার মাত্রা হ্রাস পেয়েছে। অস্ত্রবিরতির ফলে মানবিক সাহায্য পাঠানোর সুযোগ তৈরি হয়েছে।’
এদিকে গত কয়েক বছরের মধ্যে প্রথমবারের মত বিরোধী নিয়ন্ত্রিত এলাকাগুলোতে সরকারের বিরুদ্ধে বিক্ষোভের ঘটনা ঘটেছে। বিক্ষোভকারীরা ‘বিপ্লব অব্যাহত থাকবে’ বলে শ্লোগান দিয়েছে।
মানবাধিকার সংগঠনটি জানায়, শুক্রবার সন্ধ্যার দিকে একদল বিদ্রোহী যোদ্ধা ইরাকি সীমান্তের একটি ক্রসিংয়ের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে। ওই সীমান্ত ক্রসিংয়ের নাম আল-তানাফ। ক্রসিংয়ের ইরাকি অংশের নিয়ন্ত্রণ আইএসের হাতে রয়েছে।
ফ্রান্সের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জ্যাঁ মার্ক আরাউল্ত বলেন, ‘আমরা জেনেভায় দ্রুত আলোচনা শুরু করতে চাই। তবে দুটি শর্ত অবশ্যই পূরণ করতে হবে। এক, সিরিয়ার সকল নাগরিকের কাছে মানবিক সাহায্য পাঠানোর সুযোগ তৈরি করা ও দুই, অস্ত্রবিরতির প্রতি পূর্ণ সম্মান প্রদর্শন।’
তবে সিরিয়ার প্রধান বিরোধী জোট হাই নেগোসিয়েশন কমিটির প্রধান রিয়াদ হিজাব বলেন, বিরোধীরা আলোচনায় অংশ নেবে কিনা সে বিষয়ে তারা এখনও সিদ্ধান্ত নেয়নি।

মন্তব্য