kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০১৬। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


সিরিয়ায় অস্ত্রবিরতি পর্যবেক্ষণ সংক্রান্ত টাস্ক ফোর্সের বৈঠক, ত্রাণ সরবরাহ শুরু

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১ মার্চ, ২০১৬ ১৯:৫৫



সিরিয়ায় অস্ত্রবিরতি পর্যবেক্ষণ সংক্রান্ত টাস্ক ফোর্সের বৈঠক, ত্রাণ সরবরাহ শুরু

য় ত্রাণসামগ্রী সরবরাহ করা হয়েছে। এদিকে অস্ত্রবিরতি জোরদার করতে আন্তর্জাতিক টাস্ক ফোর্স বৈঠক করেছে
জাতিসংঘ বলেছে, কয়েকটি স্থানে অস্ত্রবিরতি লংঘনের অভিযোগ খতিয়ে দেখতে জেনেভায় আন্তর্জাতিক টাস্ক ফোর্সের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এই টাস্ক ফোর্সের কো-চেয়ার হল মস্কো ও ওয়াশিংটন।
গত সপ্তাহান্তে সিরিয়া সরকারের প্রধান মদদদাতা রাশিয়া ও প্রধান বিরোধী গ্রুপ হাই নেগোশিয়েশন্স কমিটি (এইচএনসি) পরস্পরের বিরুদ্ধে অস্ত্রবিরতি লংঘনের অভিযোগ তোলে।
সোমবার রাশিয়া জানায়, গত ২৪ ঘন্টায় সাতটি লংঘনের ঘটনা রেকর্ড করা হয়েছে।
অস্ত্রবিরতি পর্যবেক্ষণের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট মস্কোর জেনারেল সের্গেই কুরালেংকো বলেন, সরকারি সৈন্য ও বিরোধী বাহিনীর মধ্যে অস্ত্রবিরতি সামগ্রিকভাবে পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে।
এইচএনসি বলেছে, সিরিয়ার দক্ষিণাঞ্চলের দারা এলাকায় সরকারি বাহিনী দুটি ও মধ্যাঞ্চলের হামা প্রদেশে রাশিয়ার যুদ্ধবিমান দু’দফা অস্ত্রবিরতি লংঘন করেছে।
হোয়াইট হাউস জানায়, অস্ত্রবিরতি লংঘনের খবরে তারা বিস্মিত নয়। তবে অস্ত্রবিরতি ব্যর্থ হয়েছে এ কথা বলার সময় এখনও আসেনি।
জাতিসংঘ প্রধান বান কি-মুন বলেছেন, কিছু স্থানে অস্ত্রবিরতি লংঘনের ঘটনা ঘটেছে। তবে সাধারণত এটা পালিত হচ্ছে।
এদিকে সিরিয়ান আরব রেড ক্রিসেন্ট বলেছে, অস্ত্রবিরতি কার্যকর হওয়ার পর সোমবার ত্রাণ কর্মীরা প্রথমবারের মত ত্রাণ সরবরাহ শুরু করেছেন।
কম্বল ও স্বাস্থ্যসম্মত সরবরাহ নিয়ে ২১ টি ট্রাক বিদ্রোহী নিয়ন্ত্রিত মোয়াদামিয়েত আল-শ্যাম নগরীতে ঢোকে। এরপর আরো ৩১ টি ট্রাক ওই এলাকায় প্রবেশ করে। সরকারি বাহিনী ওই এলাকা ঘিরে রেখেছে।
জাতিসংঘের মানবাধিকার সমন্বয়ক ইয়াকুব আল হিল্লো বলেন, তুলনামূলক শান্ত পরিস্থিতির কারণে আগামী পাঁচ দিনের মধ্যে অবরুদ্ধ ১ লাখ ৫৪ হাজার লোকের কাছে ত্রাণ সামগ্রী পৌঁছানো যাবে বলে তিনি আশাবাদী।


মন্তব্য