kalerkantho


অদ্ভুত

পাইপের মধ্যে বসবাস

৯ মার্চ, ২০১৮ ০০:০০



পাইপের মধ্যে বসবাস

বিশ্বে জনসংখ্যা যে হু হু করে বাড়ছে, কিন্তু সমস্যা হলো জমি তো বাড়ছে না। কাজেই মূল্য বাড়ছে সাধারণ বাসা-বাড়ির। এসব চিন্তা করে এখন বাড়ির গঠন কাঠামোতেও আসছে পরিবর্তন। আর এতে দারুণ মুনশিয়ানা দেখাচ্ছে গৃহনির্মাতা প্রতিষ্ঠানগুলো। এই যেমন জেমস ল সাইবারটেকচার নামের কম্পানিটির কথাই ধরা যাক। হংকংয়ে তারা ওপড টিউব হাউস নামের যে বাড়িগুলো বিক্রি করা শুরু করেছে, সেগুলো আর কিছু নয়, স্রেফ কংক্রিটের পাইপ।

হংকং পৃথিবীর সব থেকে ঘনবসতিপূর্ণ শহরগুলোর একটি। ১২ মাস ধরে এখানে বাড়ির দাম বেড়েই চলেছে। প্রতি বর্গফুটের দাম নাকি প্রায় সাত হাজার মার্কিন ডলার বা প্রায় পাঁচ লাখ ৮০ হাজার টাকা! এশিয়ার মধ্যে সর্বোচ্চ। কাজেই মানুষ আশ্রয় নিয়েছে বিকল্প পদ্ধতির। হংকংয়ের সীমিত আয়ের লোকেরা অ্যাপার্টমেন্ট শেয়ার করে বসবাস করে। অনেকে তো শুধু বিছানাটা ভাড়া নেওয়ার সামর্থ্য রাখে। আর এহেন ঠাসাঠাসির জীবনযাপনকারীদের সংখ্যা ক্রমেই বেড়ে চলেছে।

জেমস ল নামের এক ব্যক্তি তাই নতুন ঘরানার বাসাবাড়ি নকশা করা শুরু করেছেন। ওপড টিউব হাউসগুলোর ব্যাসার্ধ মাত্র ৮ ফুট। কিন্তু  দৈর্ঘ্যে বেশ লম্বা হওয়ায় পাইপগুলোতে দুজন পূর্ণবয়স্ক মানুষ অনায়াসে থাকতে পারে। এই পাইপগুলো কিন্তু আধুনিক যেকোনো বাসার সব সুযোগ-সুবিধাসহ বানানো হচ্ছে। এখানে আছে বিছানা, ফ্রিজ, বাথরুম এমনকি জামাকাপড় আর অন্যান্য জিনিস রাখার জায়গা পর্যন্ত। একেকটি পাইপের ওজন প্রায় ২২ টন। আর সেগুলো স্থাপন করাও খুব সোজা।

জেমস লয়ের ভাষ্যমতে, পাশাপাশি দুটি বাসা বানালে মাঝে কিছুটা জায়গা ফাঁকা থেকে যায়। এই পতিত জমি এবং অন্যান্য ফাঁকা জমিতে বিপুল পরিমাণে পাইপ আকৃতির এমন বাসা বানালে সাধারণ মানুষের ভারি উপকার হবে। এই বাসাগুলোর দাম কত, তা অবশ্য এখনো খোলাসা করা হয়নি। তবে এগুলোর দাম যে সাধারণ মানুষের ক্রয়সীমার মধ্যে পড়বে, তাতে সন্দেহ নেই।

অনেকেই উদ্যোগের প্রশংসা করছেন, তবে সবাই সঙ্গে সঙ্গে এটিও স্বীকার করছে যে শুধু পাইপের মাধ্যমে আবাসন সংকটের কোনো স্থায়ী সমাধান সম্ভব নয়।

অমর্ত্য গালিব চৌধুরী



মন্তব্য