kalerkantho

একটু আলাদা

ইয়েতি কাঁকড়া

১৭ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



 ইয়েতি কাঁকড়া

ইয়েতি বা তুষারমানবদের নাম শুনেছ? হিমালয় পর্বতে বাস করে লোমশ শরীরের বিশালদেহী এই প্রাণীরা। অবশ্য ইয়েতি আসলেই আছে, নাকি পুরোটাই মানুষের গালগপ্পো তা নিশ্চিত নয়।

তবে ইয়েতি থাকুক না থাকুক, ইয়েতি ক্র্যাব নামের একটি প্রাণী কিন্তু ঠিকই আছে। এরা ডাঙায় বাস করে না, থাকে সাগরে। কিন্তু এই প্রাণীর এমন নাম পাওয়ার কারণ কী? আসলে এদের বুক, এমনকি প্রায় গোটা শরীরই ঘন লোমে ঢাকা। তাই এদের নাম হয়ে গেছে ইয়েতি ক্র্যাব।

এরা একেবারেই ছোটখাটো। বড়জোর টেনেটুনে ছয় ইঞ্চি হয় লম্বায়। মজার ঘটনা, এই প্রাণীর কথা পৃথিবীর মানুষ জেনেছেই কয়েক বছর আগে। ২০০৫ সালে কয়েকজন বিজ্ঞানী অ্যান্টার্কটিকার সীমানার ধারে দক্ষিণ প্রশান্ত মহাসাগরে এই অদ্ভুত প্রাণীর খোঁজ পান। দক্ষিণ সাগরেও এরা বাস করে।

থাকে একেবারে সাগরের তলদেশে। আর ইয়েতি ক্র্যাবরা যে এলাকায় থাকে, সেখানকার পানি ভারি শীতল। তাই সাগরের নিচ থেকে উষ্ণ পানির প্রবাহ বের হয় এমন এলাকার ধারে এরা থাকে। অতিরিক্ত গরম পানিতে পুড়ে যাওয়া কিংবা শীতল পানিতে জমে যাওয়া—দুটো থেকেই সতর্ক থাকতে হয়। খুব অল্প জায়গায় গাদাগাদি করে অনেক ইয়েতি ক্র্যাব বাস করে। এখন পর্যন্ত বিজ্ঞানীরা তিন ধরনের ইয়েতি ক্র্যাবের খোঁজ পেয়েছেন। এদের কখনো ইয়েতি লবস্টারও বলা হয়। তবে কাঁকড়া বা ক্র্যাবদের সঙ্গেই মিল বেশি। শরীরের বড় বড় লোমে খুদে ব্যাকটেরিয়া বা অণুজীব জন্মে। এগুলো খেয়েই এরা বেঁচে থাকে। সাধারণত খুব শীতল পানিতে গিয়ে ডিম পাড়ে। এরা কিন্তু চোখে দেখে না। শুধু কয়েক বছর আগে খোঁজ মেলায় এবং পানির অনেক গভীরে থাকায় ইয়েতি ক্র্যাবদের সম্পর্কে অনেক কিছুই এখনো বিজ্ঞানীদের অজানা।


মন্তব্য