kalerkantho

ছড়া

নয় ছয়

সুমন্ত বর্মণ

১০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



নয় ছয়

একদিন গণিতের ক্লাসে স্যার রেগে কন,

ভুলে গেছে সব কয়টা কত সেরে কত মণ!

ঠিকমতো বইখানা কেউ তো না পড়ছে,

হেসে-খেলে জীবনটা ‘নয়-ছয়’ করছে।

 

নয়-ছয় শুনে সব পড়ে গেল ধাঁধাতে,

কিছুতেই এর মানে ঢুকছে না মাথাতে,

সংখ্যা তো ৯, ৬ এ কেমন শব্দ!

কী যে তার ‘মানে’ হবে এই নিয়ে জব্দ।

গণিতের কোন ‘মান’ বাক্যতে ঢুকল

তা-ই তারা নির্ণয়ে গণিতেই ঝুঁকল।

 

৯, ৬ নিয়ে আঁক কষে পাঁচ ছাত্র,

গাণিতিক রুল মেনে খাটে দিবারাত্র।

যোগ করে একজন পেয়ে গেল পনেরো,

বুদ্ধিটা খুলে গেল আর একজনেরও।

 

৯, ৬ বিয়োগেতে পেয়ে গেল তিন সে,

সারেগামা পাধা গায় নাচে ধিন্ ধিন্ সে।

একজন গুণ করে নামতার ধরমে,

চুয়ান্ন পেয়ে তার আনন্দ চরমে।

ভাগ করে একজন পায় অবশিষ্ট,

দশমিক নিয়ে এসে করে তাকে পিষ্ট।

এক দশমিক পাঁচ নির্ভুল মান পায়!

আহ্লাদে আটখানা যেন সমাধান পায়!

৯, ৬ মাঝে নেই প্রক্রিয়া চিহ্ন,

তাই ভেবে শেষজন মত দিল ভিন্ন।

‘হবে ছিয়ানব্বই’ এই তার উক্তি,

ভেবে দ্যাখে বাকি সব অকাট্য যুক্তি।

 

পাঁচজনই হয়রান নয়-ছয়ে রুষ্ট

কোনো ‘মান’ বাক্যকে করে না যে তুষ্ট!

কালি-খাতা তছনছ মতে তারা এক না,

স্যার ডেকে কন, ‘ওরে! অভিধান দ্যাখ না’

 

ছেড়ে দিয়ে আঁক-কষা শুরু হলো অভিযান

‘নয়-ছয়’ অর্থটা দিল বলে অভিধান

‘এলোমেলো’, ‘অপচয়’ অভিধান বলে রে,

গাণিতিক খাটাখাটি সব গেল জলে রে!


মন্তব্য