kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৭ জানুয়ারি ২০১৭ । ৪ মাঘ ১৪২৩। ১৮ রবিউস সানি ১৪৩৮।


স্বাধীনতার গল্প

ব্রত রায়

২৫ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



স্বাধীনতার গল্প

অলংকরণ : মানব

তোমরা কি হও অবাক যখন এই ইতিহাস শোনো

এই সেদিনও বাংলা নামে দেশ ছিল না কোনো?

 

ভারত ভাগের পরে-

কার ইশারায় আমরা গেলাম পাকিস্তানের ঘরে!

পূর্ব পাকিস্তানে-

দুইটি যুগেও পাইনি খুঁজে স্বাধীনতার মানে!

 

এই বাঙালির শিল্পকলা, অর্থনীতি, ভাষা-

ছিল দারুণ বঞ্চনা আর অবজ্ঞাতে ঠাসা!

এ দেশ মেধায়, সম্পদে যে কম ছিল না তবু -

আমরা ছিলাম ভৃত্য এবং পশ্চিমারাই প্রভু!

হায় বাঙালির স্বপ্ন-আশা খাচ্ছিল যে খাবি

বাড়ছিল ক্ষোভ এবং সাথে স্বাধীনতার দাবি!

 

সত্তরেরই ভোটে-

সুপ্ত মনের সেই কলিটা কুসুম হয়ে ফোটে।

তা-ও ক্ষমতা বুঝিয়ে দিতে ভীষণ গড়িমসি

চায় না ওরা হাতছাড়া হোক সব ক্ষমতার রশি!

 

মার্চ এল তারপরে-

ক্ষোভের আগুন ছড়িয়ে গেল দিক ও দিগন্তরে!

আলোচনার নামে-

ঢাকার বুকে অস্ত্রধারী গাড়ির বহর থামে!

পঁচিশ তারিখ রাতে-

ঘুমের ঘোরে মরল মানুষ পাকবাহিনীর হাতে।

 

সেদিন থেকেই লড়াই শুরু স্বাধীনতার নামে

লড়াই চলে শহর, নগর, গঞ্জ এবং গ্রামে!

 

পাকবাহিনীর সাথে-

এই দেশীয় দোসররাও বর্বরতায় মাতে!

ভাইয়ের দেহের রক্ত ঝরায়- দুঃখ কোথায় রাখি;

তুমিই বলো, কঠিন সাজা প্রাপ্য ওদের, নাকি?

 

নিযুত লোকের রক্ত-দামে বিজয় মোদের হলো-

দিনটা ছিল একাত্তরের ডিসেম্বরের ষোল!


মন্তব্য